• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • 50 CHILDREN DIE OF MYSTERIOUS FEVER IN UTTAR PRADESH CM YOGI ADITYANATH MONITORS SITUATION SDG

Mysterious Fever in UP|| অজানা জ্বরে ৭ দিনে ৫০ শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু! উচ্চপর্যায়ে তদন্তের নির্দেশ যোগীর

হাসপাতালে শিশুরা। সংগৃহীত ছবি।

Mysterious Fever| 50 Children Die: এক সপ্তাহের মধ্যে ৫০ শিশুর (50 Children) মর্মান্তিক মৃত্যু। আচমকা অজানা জ্বরের (mysterious fever) হানায় এত শিশুর মৃত্যুতে (Children Death) চিন্তার ভাঁজ চিকিৎসক এবং বিশেষজ্ঞদের কপালে।

  • Share this:

    #লখনউ: এক সপ্তাহের মধ্যে ৫০ শিশুর (50 Children) মর্মান্তিক মৃত্যু। করোনার (Coronavirus) তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আতঙ্কে যখন দিন গুনছে দেশের মানুষ, সেই সময় এমন আচমকা অজানা জ্বরের (mysterious fever) হানায় এত শিশুর মৃত্যুতে (Children Death) চিন্তার ভাঁজ চিকিৎসক এবং বিশেষজ্ঞদের কপালে। উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) ফিরোজাবাদ (Firozabad) এবং মথুরায় (Mathura) সবচেয়ে বেশি শিশু মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

    প্রথমে মাত্রাতিরিক্ত জ্বর (High Fever) আসছে শিশুদের। তারপর শুরু হচ্ছে অসহনীয় পেতে ব্যথা, বমি। হু হু করে কমে যাচ্ছে প্লেটলেট কাউন্ট (Platelet Count)। মাত্র দু-তিনদিনের মধ্যেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে শিশুটি। ইতিমধ্যেই দুটি জেলাতেই স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে ক্যাম্প করে নজরদারি চালানো হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ঘটনার উচ্চ পর্যায়ে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। ফিরোজাবাদের মুখ্য স্বাস্থ্য অধিকর্তা (Chief Medical Officer) নিতা কুলশ্রেষ্ঠকে (Nita Kulshreshtha) অপসারণ করে দীনেশ কুমার প্রেমিকে (Dinesh Kumar Premi) নতুন স্বাস্থ্যকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। তিনি ২৪ ঘণ্টা পরিস্থিতির অপরে নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। পরিস্থিতি সামাল দিতে বাড়ান হয়েছে হাসপাতালে বেডের সংখ্যা। ৭-১৬ সেপ্টেম্বর বিশেষ নজরদারি চালানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে দুটি জেলায়।অসেই সুয়ের মধ্যে স্বাস্থ্যকর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে কেউ জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন কিনা বা করবার উপসর্গ রয়েছে কিনা, তা খতিয়ে দেখবেন।

    ইতিমধ্যেই দেশে করোনা আক্রান্তের সখ্যা বাড়তে শুরু করেছে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী বুধবার দেশে আক্রান্তের সংখ্যা পেরিয়ে গিয়েছে ৪০ হাজারের গন্ডি। আর তাতেই চিন্তা বেড়েছে। তবে কি করোনার তৃতীয় ঢেউ (third wave of Corona) আছড়ে পড়ল? কিন্তু উত্তরপ্রদেশের সরকারি রিপোর্ট অন্য কথা বলছে। সেই অনুযায়ী করোনা নয়, অজানা এই জ্বর এবং শিশু মৃত্যুর নেপথ্যে রয়েছে ডেঙ্গু (Dengue), লেপটো স্পোরোসিস (lepto sporosis) এবং স্ক্রাব টাইফাসের (scrub typhus) হানা। তবে শুধুমাত্র শিশুরাই নয়, মৃত্যু হয়েছে প্রাপ্তবয়স্ক এবং বয়স্কদেরও। অকলের ক্ষেত্রেই উপসর্গ একই।

    উত্তরপ্রদেশের সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ১ সেপ্টম্বর সকাল ৮টা পর্যন্ত  মথুরায় ৮টি শিশু এবং ফিরজাবাদে ৪২টি শিশুর মৃত্যু হয়েছে। অসুস্থ ১৮৪টি শিশুর শরীর থেকে নেওয়া নমুনা পরীক্ষা করে ৯১ জনের ডেঙ্গু (Dengue), ৪৮ জনের লেপটো স্পোরোসিস (lepto sporosis) এবং ২৯ জনের স্ক্রাব টাইফাসের (scrub typhus) ভাইরাস মিলেছে। তাদের সকলের নমুনা ফিরোজাবাদে পাঠানো হয়েছে। Vector Borne Diseases camping in Firozabad-র যুগ্ম অধিকর্তা চিকিৎসক অধ্বেশ যাদব জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত যত শিশু অসুস্থ হয়েছে, তাদের প্রত্যেকের লালারসের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, সব রিপোর্ট নেগেটিভ। ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া, স্ক্রাব টাইফাসের সংক্রমনে পরিস্থিতি এমন জটিল আকার ধারণ করেছে। করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে বলে যে মিথ্যা ভয় মানুষ পাচ্ছে, তাতে সমস্যা আরও বাড়বে।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: