• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • অবিশ্বাস্য! ব্রিটেনের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক থেকে উধাও ৫ হাজার কোটি পাউন্ড !

অবিশ্বাস্য! ব্রিটেনের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক থেকে উধাও ৫ হাজার কোটি পাউন্ড !

£50 billion in UK banknotes is 'missing.' Nobody has an explanation

£50 billion in UK banknotes is 'missing.' Nobody has an explanation

£50 billion in UK banknotes is 'missing.' Nobody has an explanation

  • Share this:

    #লন্ডন: আচমকা উধাও ৫ হাজার কোটি (৫০ বিলিয়ন) পাউন্ড! হ্যাঁ, অবাস্তব মনে হলেও সত্যিই এমনটা ঘটেছে! ব্রিটেনের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক ‘ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ড’-এর এই বিপুল পরিমাণ টাকার হদিশ মিলছে না৷ ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, সঠিক উপায়ে এই অর্থের কোনওপ্রকার লেনদেন হয়নি, এমনকী কোথাও সেই টাকা গচ্ছিতও রাখা হয়নি। শুক্রবার প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। বিবিসি জানিয়েছে, গত সেপ্টেম্বরে প্রথম ব্রিটেনের ব্যাঙ্ক থেকে এই বিপুল অর্থ হারানোর বিষয়টি নজরে আসে৷ দেশের ন্যাশনাল অডিট এই সংবাদ জানায়। হারিয়ে যাওয়া এই ৫০ বিলিয়ন পাউন্ড দেশের মোট ব্যাঙ্ক নোটের তিনভাগের এক ভাগ। মনে করা হয়, এই অর্থ পাচার করা হয়েছে। অর্থনীতির খাতাতেও এই বিপুল অর্থের হিসাব নেই৷ প্রশাসন জানিয়েছে, এই অর্থ উদ্ধারের কাজে ব্যাঙ্কটিকে আরও যত্নশীল হতে হবে৷ কারণ এই অর্থ অবৈধ উদ্দেশ্যেও ব্যবহার করা হতে পারে, যার দায় সরকারের উপর পড়তে পারে।

    হাউস অব কমনসের পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির (পিএসি) প্রধান মেগ হিলার বলেন, এই অর্থ হয়তো কোথাও সরিয়ে রাখা হয়েছে। কিন্তু ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ড এ'ব্যাপারে কিছু জানে না। এমনকী কে বা কারা এই কাজ করেছে , সে ব্যাপারে কারও মধ্যে তেমন কোনো উদ্বেগও দেখা যাচ্ছে না। নিখোঁজ ৫০ বিলিয়ন পাউন্ডের হিসাব পেতে আরও সক্রিয় ভূ্মিকা নেওয়া উচিৎ৷ ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডের এক মুখপাত্রএর দাবি, জনসাধারণ কেন ব্যাঙ্কে টাকা জমাতে চান তা ব্যাঙ্ককে ব্যাখ্যা করার প্রয়োজন নেই৷ তাই ব্যাঙ্কের উচিৎ দায়িত্বের সঙ্গে তা পালন করা৷ এই বছর করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউনের মধ্যে নোট ও কয়েনের চাহিদা ব্যাপকভাবে কমে যায়। তবে, লকডাউন শিথিল করা হলে মানুষ বাড়িতে আরও বেশি করে টাকা মজুত করতে শুরু করে। শুধু ব্রিটেনই নয়, বিশ্বের আরও অনেক দেশই এ ধরনের অর্থ উধাও হওয়ার পরিস্থিতির শিকার হয়েছে, জানিয়েছে বিবিসি৷

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published: