• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • ৪৯৮এ-তে অভিযোগ পেলেই আর সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার নয়: সুপ্রিম কোর্ট

৪৯৮এ-তে অভিযোগ পেলেই আর সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার নয়: সুপ্রিম কোর্ট

৪৯৮এ-তে অভিযোগ পেলেই আর সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার নয়: সুপ্রিম কোর্ট

৪৯৮এ-তে অভিযোগ পেলেই আর সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার নয়: সুপ্রিম কোর্ট

৪৯৮এ-তে অভিযোগ পেলেই আর সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার নয়: সুপ্রিম কোর্ট

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: বধূনির্যাতনের অভিযোগ পেলেই এবার আর তৎক্ষণাৎ অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা যাবে না ৷ ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৮এ ধারা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের এমনই পর্যবেক্ষণ সামনে হল ৷

    বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িতে পণের দাবিতে বধূর উপর নির্যাতন বন্ধ করার উদ্দেশ্যেই তৈরি হয়ে ছিল IPC ৪৯৮এ ৷ কিন্তু পরবর্তীকালে এই আইনের ধারাকে হাতিয়ার করে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৮এ ধারায় স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির বহু নিরপরাধ ব্যক্তিকে বিনা কারণে হেনস্থার বহু উদাহরণ সামনে এসেছে অভিযোগ ৷

    এইধরনের অভিযোগ পেয়ে চিন্তিত সুপ্রিম কোর্ট এই আইনের অপব্যবহারে লাগাম টানতে চায় ৷ বৃহস্পতিবার বিচারপতি এ কে গোয়েলের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ এই রেওয়াজ বন্ধ করতে একটি ব্যবস্থার কথা বলেছেন ৷ সু্প্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ, শ্বশুরবাড়িতে অত্যাচার বা পণ বিষয়ক মামলায় তত্ক্ষণাৎ গ্রেপ্তার করা যাবে না।

    বিচারপতি এ কে গোয়েল এবং বিচারপতি ইউ ইউ ললিতের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ রায়ে জানিয়েছেন, এবার থেকে এ ধরনের অভিযোগ দায়ের হলে, অভিযোগ খতিয়ে দেখার পরই পদক্ষেপ নেবে প্রশাসন ৷ এর জন্য প্রতিটি জেলায় এক বা একাধিক ফ্যামিলি ওয়েলফেয়ার কমিটি তৈরির নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত ৷ যারা অভিযোগ সত্যি কিনা খতিয়ে দেখে পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে জানাবেন ৷ অর্থাৎ রায় অনুযায়ী এবার থেকে, ৪৯৮এ ধারায় পুলিশ বা জেলাশাসকের কাছে কোনও অভিযোগ দায়ের হলে তা ওই কমিটির কাছে পাঠাতে হবে ৷ তার ভিত্তিতে কমিটি দু’তরফের সঙ্গে ব্যক্তিগত ভাবে বা টেলিফোনে সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্যে যোগাযোগ করে আসল ঘটনা খতিয়ে দেখে এক মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে রিপোর্ট দেবে ৷ এর জন্য ফ্যামিলি ওয়েলফেয়ার কমিটি কী ভাবে এই অভিযোগের তদন্ত করবে তার প্রশিক্ষণও দেওয়া হবে ৷

    ভারতের বাইরে বসবাসকারী কারও বিরুদ্ধে বধূ নির্যাতনের অভিযোগ উঠলে এবার থেকে সব খতিয়ে দেখে তবেই অভিযুক্তের পাসপোর্ট আটক করা বা রেড কর্নার নোটিস জারি করা হবে তাও স্পষ্টভাবে জানিয়েছে শীর্ষ আদালত ৷ তবে অভিযোগকারীর গুরুতর শারীরিক আঘাত অথবা মৃত্যুর ক্ষেত্রে এই রায় কার্যকর হবে না ৷ সেক্ষত্রে পূর্বের নীতিতেই গ্রেফতারি ৷ তবে এই ব্যবস্থা পরীক্ষামূলকভাবে চালু করছে শীর্ষ আদালত ৷ আগামী ছ’মাসে এই ব্যবস্থার ফলাফল খতিয়ে দেখবে সুপ্রিম কোর্ট ৷

    বেঞ্চের রায় অনুযায়ী, এই কমিটির রিপোর্ট পাওয়ার আগে কাউকেই অ্যারেষ্ট করা যাবে না ৷ এতে মূল অপরাধীর ছাড়া পেয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে ৷ একইসঙ্গে পদক্ষেপ নিতে সময় ব্যয় হলে অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে কিংবা নির্যাতিতাকে ভয় দেখিয়ে মামলা তোলার আশঙ্কাও থেকে যাচ্ছে ৷ আবার এই নীতি কার্যকর হলে সময় ব্যয়ের ফলে নির্যাতিতার প্রাণের আশঙ্কাও অবহেলা করা যায় না বলে মনে করছেন আইনজীবীদের একাংশ৷

    First published: