দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

আবার উত্তরপ্রদেশ!‌ শারীরিক হেনস্থা আটকাতে গিয়ে গুলিতে মৃত দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী

আবার উত্তরপ্রদেশ!‌ শারীরিক হেনস্থা আটকাতে গিয়ে গুলিতে মৃত দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী
Women display a banner and placards as they attend a protest march against rising incidents of crime against women. (Representational Image: Reuters)

মণীশ যাদব, শিবপালী যাদব ও গৌরব চক নামে তিন দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে এদিন অভিযোগ করেন মৃতার বাবা। তিনি বলেছেন, প্রেম নগরে তাঁদের বাড়িতে হঠাৎই শুক্রবার সন্ধ্যায় চড়াও হয় ওই তিন দুষ্কৃতী।

  • Share this:

#‌ফরিজাবাদ:‌ ফের উত্তরপ্রদেশ। ফের মহিলাদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠে গেল। উত্তর প্রদেশের ফরিজাবাদের ঘটনা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল নারী নিরাপত্তায় এখনও যে কে সেই অবস্থানেই আছে যোগী রাজ্য। শুক্রবার বিকেলে শারীরিক হেনস্থা রুখতে গিয়ে গুলির আঘাতে মরতে হল এক দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রীকে। তাঁর বয়স হয়েছিল মাত্র ১৬। ফরিজাবাদের নিজের বাড়িতে এই ঘটনার মুখোমুখি হতে হল তাঁকে। স্বাভাবিকভাবে ঘটনা নিয়ে উত্তাল হয়েছে দেশ। পুলিশ দ্রুত ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। যে তিনজন বাড়িতে ঢুকে ওই ছাত্রীকে খুন করেছে, তাদের জন্য সন্ধান চালাচ্ছে পুলিশ। স্থানীয় হাসপাতালে মৃতার দেহ পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য। পুলিশের কাছে মৃতার বাবা আক্রমণকারীদের পরিচয় নিয়ে ইতিমধ্যে বয়ান দিয়েছেন।

মণীশ যাদব, শিবপালী যাদব ও গৌরব চক নামে তিন দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে এদিন অভিযোগ করেন মৃতার বাবা। তিনি বলেছেন, প্রেম নগরে তাঁদের বাড়িতে হঠাৎই শুক্রবার সন্ধ্যায় চড়াও হয় ওই তিন দুষ্কৃতী। এসে মারামারি শুরু করে। মেয়েকে শারীরিক ভাবে হেনস্থা করতে শুরু করে। মেয়ে তারপর প্রতিরোধ গড়ে তুললে গুলি করে হত্যা করা হয় তাঁকে। সেই সময়ে নানারকম নোংরা গালিগালাজ করছিল তিনজন। স্কুলে থেকে ফিরেই এই তিনজন আক্রমণকারীর মুখে পড়ে ছাত্রী। ঘটনাস্থলেই গুলির আঘাতে তাঁর মৃত্যু হয় বলে খবর। মৃতার বাবা জানিয়েছেন, শারীরিক হেনস্থা রোধ করার জন্যই তাঁর মেয়েকে মরতে হয়েছে।

পুলিশের পক্ষ থেকে সচিন্দ কুমার প্যাটেল জানিয়েছেন, ঘটনা জানার পরেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় পুলিশ। মৃতার বাবা যে তিনজন অভিযুক্তের নাম করেছে, তাঁদের নামে সন্ধান চালাচ্ছে পুলিশ গঠন করা হয়েছে তিনটি আলাদা দল। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: October 24, 2020, 12:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर