• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • মহিলাকে কৃত্রিম যৌনাঙ্গ দিয়ে ধর্ষণ, গ্রেফতার ১৯ বছরের যুবতী

মহিলাকে কৃত্রিম যৌনাঙ্গ দিয়ে ধর্ষণ, গ্রেফতার ১৯ বছরের যুবতী

(Image only for representational purpose)

(Image only for representational purpose)

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: সমকামিতাকে আইনি স্বীকৃতি দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট ৷ গত সেপ্টেম্বর মাসে এই রায় দিয়েছিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত ৷ সেই রায়ের পর এই প্রথম সমকামিতায় উঠল ধর্ষণের অভিযোগ ৷

    অভিযোগ, কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ দিয়ে ওই মহিলাটির সঙ্গে বলপূর্বক পায়ূসঙ্গম ৷ অভিযোগের তির ১৯ বছরের তরুণীর বিরুদ্ধে ৷ ধর্ষিতা জানিয়েছেন, কাজের সূত্রে তিনি দিল্লি আসেন ৷ সেখানেই তাঁর সঙ্গে আলাপ হয় মাধুরির ৷

    এরপরই সীমাপুরি পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ দায়ের করেন ওই তরুণী ৷ অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয় অভিযুক্তকে ৷

    আরও পড়ুন: ‘সমাজের স্বার্থেই আন্না হাজারে-কে বাঁচান’, মহারাষ্ট্র সরকারের কাছে আর্জি শিবসেনার

    ধর্ষিতার অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত মাধুরি(নাম পরিবর্তিত)-কে আটক করে পুলিশ ৷ মাধুরিকে কারকাডুমা আদালতে তোলা হয়েছে ৷ মাধুরিকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ ৷ এরপর তিহার জেলে পাঠানো হবে বলে পুলিশ সূত্রে খবর ৷ অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ৩৭৭ নম্বর ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে ৷

    ভারতীয় দন্ডবিধির ৩৭৭ ধারা অনুযাইয়ী সমকামিতা বা দুটি সমকামি মানুষের মধ্যে যৌন সম্পর্ক আইনসম্মত ছিল না। এমনকী ১০ বছরের কারাদন্ডও হতে পারত । ১৯৯৪ সালে প্রথমবার এই আইনের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল দায়ের করা হয়েছিল । এরপর দায়ের হয়েছে একাধিক জনস্বার্থ মামলা । অবশেষে দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে সমকামিতাকে আইনি স্বীকৃতি দেয় সুপ্রিম কোর্ট ৷  সম্মতিসূচক ভাবে দুটি মানুষ শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হলে সেখানে আইনি কোনও বাধা থাকে না । এছাড়াও দুজন সমলিঙ্গের মানুষ যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হলে তাকে অপ্রাকৃতিক আখ্যা দেওয়া সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ।দুজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ পূর্ণ সম্মতি নিয়ে একে অপরের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করলে তা 'অসাংবিধানিক' বা অনৈতিক নয় । এছাড়াও, সমকামি মানুষদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ করলে তা তাদের মৌলিক অধিকারকে লঙ্ঘন করে বলে জানিয়ে দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট ৷

    First published: