• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • জীবনে ভোটে হারেননি কলাইনর!

জীবনে ভোটে হারেননি কলাইনর!

Photo: Collected

Photo: Collected

  • Share this:

    #চেন্নাই: "তুমি তাকে সমর্থন করতে পারো, বিরোধিতাও করতে পারো, কিন্তু তামিল রাজনীতির প্রসঙ্গ উঠলে তার উল্লেখ অনস্বীকার্য ।" এম করণানিধি-র সম্পর্কে এই আপ্তবাক্যই যেন সব কিছু বলে দিতে পারে । শুধু বর্ষীয়ান রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, ডিএমকে নেতাই নন, সারা জীবনে একবারও নির্বাচনে পরাজিত না হওয়ার কৃতিত্ব রয়েছে তাঁরই । দীর্ঘ জীবনে তামিলনাড়ুর রাজনীতিতে তাঁর উত্থান, উপস্থিতি নক্ষত্রের মতোই । কলাইনর-এর মৃত্যুও তাই প্রকৃত অর্থেই নক্ষত্র পতন ।

    ১৯৫৭ সালে ৩২ বছর বয়সে প্রথম বার বিধায়ক হন এম করুণানিধি । বাকি ১৪ জন ডিএমনকে বিধায়কের সঙ্গে পা রাখেন তত্কালীন মাদ্রাজ বিধানসভায় । ১৯৬২ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ডিএমকে-র বাকি ১৪ জন বিধায়কই হেরে যান । একা জয়ী হয়ে আসন ধরে রাখেন করুণানিধি । মোট ১৩ বার টানা নির্বাচনে জেতার রেকর্ড রয়েছে তাঁর ।

    ১৯৬৭ সালের নির্বাচনে কংগ্রেসকে হারিয়ে সরকার গঠন করে ডিএমকে । ৪২ বছরের কলাইনর দায়িত্ব পান পুর্ত দফতরের । এর দুবছরের মধ্যেই তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী পদে উত্থান । 'আন্না'-র (সিএন আন্নাদুরাই) মৃত্যুতে ১০ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৯ নতুন মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণ করেন করুণানিধি । এরপর ১৯৭১, ১৯৮৯, ১৯৯৬ ও ২০০৬ সালে মোট ৫ বার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ১৯ বছর দায়িত্ব সামলেছেন এই কিংবদন্তি রাজনীতিক ।

    আরও পড়ুন: M Karunanidhi: লড়াই শেষ! প্রয়াত 'কলাইনর' করুণানিধি

    ১৯৬৯ সালেই ডিএমকে প্রধানেরও দায়িত্ব পান করুণানিধি । পরবর্তী ৫০ বছর সেই পদও অটুট রেখেছেন তিনি । এই সময়ের মধ্যে দেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন এবং সারা দেশে রাজনৈতিক আঁতাঁত গড়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন বর্ষীয়ান রাজনীতিক । দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে উত্থান দেখেছেন জহরলাল নেহরু থেকে রাহুল গান্ধীর । সান্নিধ্য পেয়েছেন ইন্দিরা গান্ধী, এনটি রামা রাও, জ্যোতি বসু, আটল বিহারী বাজপেয়ী, ভিপি সিং, দেবগৌড়া, আইকে গুজরালের ।

    First published: