Home /News /murshidabad /
Murshidabad news: নিজেদের উদ্যোগে গ্রামবাসীরাই তৈরি করলেন বাঁশের সেতু,খরচের টাকা জোগালেন নিজেরাই 

Murshidabad news: নিজেদের উদ্যোগে গ্রামবাসীরাই তৈরি করলেন বাঁশের সেতু,খরচের টাকা জোগালেন নিজেরাই 

তৈরী

তৈরী করা হচ্ছে বাঁশের সাঁকো 

নেই স্থায়ী সেতু,চরম ভোগান্তির শিকার গ্রামবাসীরা। কষ্টের হাত থেকে রক্ষা পেতে গ্রামের মানুষ প্রশাসনের কাছে বারবার আর্জি জানিয়েছেন একটা স্থায়ী ব্রিজের।

  • Share this:

    #জলঙ্গী: প্রখর রোদ ও তীব্র গরম উপেক্ষা করে একটি বাঁশের সাঁকো তৈরি করলেন গ্রামের মানুষ! কিন্তু কেন ? মুর্শিদাবাদের জলঙ্গির ঘোষপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত জামশেদ পাড়া। ঘোষপাড়া থেকে ঝাউদিয়া যাবার মাঝেই ছোট্ট একটি গ্রাম, যা জামশেদ পাড়া নামে পরিচিত । এই গ্রামের পূর্ব-পশ্চিমে লম্বালম্বি রাস্তা ঘেঁষে প্রায় তিন কিলোমিটার দীর্ঘ একটি নালা রয়েছে, যা এলাকার বড় বিলের সাথে যুক্ত। আর এই বিলের সাথে যোগ রয়েছে পদ্মার। সামনেই বর্ষা। আর বর্ষার সময় পদ্মার জল ঢুকে নালা নদীতে পরিণত হয়। কিন্তু ওই নালার ওপরে নেই কোনও স্থায়ী ব্রিজ। যাতায়াতের জন্য রয়েছে একমাত্র বাঁশের সাঁকো। জামশেদ পাড়া থেকে দক্ষিণ দিকে হাফ কিলো মিটার দূরে মাঠের মাঝে রয়েছে গ্রামের একমাত্র মসজিদ ও গোরস্থান । গোরস্থানে ও মসজিদে যাতায়াত ও জমিতে চাষ আবাদের জন্য একমাত্র ভরসা ওই বাঁশের সাঁকো।

    আরও পড়ুন Death News: নেশামুক্ত হতে গিয়ে প্রাণ গেল এক ব্যক্তির, যা অভিযোগ...

    ২০১৪ সালে গ্রামের মানুষ চাঁদা তুলে নিজেদের উদ্যোগে বানিয়েছিল এই বাঁশের সাঁকো । কিন্তু তা কিছু দিনের মধ্যেই নষ্ট হয়ে যায়। যার কারণে ফের নতুন করে তৈরী করতে হয় ওই সাঁকো। স্বভাবতই অস্থায়ী এই সাঁকোর ফলে সাধারণ মানুষকে শুধু কষ্ট পোয়াতে হয়না, হয় অর্থের অপচয়ও। কষ্টের হাত থেকে রক্ষা পেতে গ্রামের মানুষ প্রশাসনের কাছে বারবার আর্জি জানিয়েছেন একটা স্থায়ী ব্রিজের। যাতে উপকৃত হবেন ঘোষপাড়া ,ফরাজিপারা, রায়পাড়া,টলি টলি, পারাশপুর, ঝাউদিয়া এবং জামশেদ পাড়া, সহ অন্যান্য গ্রামের হাজারখানেক মানুষ । কিন্তু বারবার আবেদন জানানোর পরেও টনক নড়েনি প্রশাসনের। ভোটে আগে আশ্বাস মিললেও তৈরী হয়না স্থায়ী ব্রিজ। তাই বাধ্য হয়েই এলাকার মানুষ সংঘবদ্ধ হয়ে নিজেদের উদ্যোগে টাকা তুলে শুরু করেছেন বাঁশের সাঁকোর পুনর্নির্মাণের কাজ। সোমবার সকাল থেকেই কাজে হাত লাগিয়েছেন গ্রামের সমস্ত মানুষ। উদ্দেশ্য বর্ষার আগেই সেরে ফেলতে হবে এই কাজ। কারণ বর্ষা শুরু হয়ে গেলে নালায় বন্যার জল ঢুকে পড়বে। নাহলে মসজিদ ও গোরস্থানে যেতে অসুবিধায় পড়তে হবে সাধারণ মানুষকে। গ্রামবাসীরা জানালেন, সেই কথা মাথায় রেখেই ছোট থেকে বড় সকলে হাত লাগিয়েছি বাঁশের সাঁকো বানাতে।শেষপর্যন্ত সারাদিনে গ্রামের মানুষের কঠোর পরিশ্রমে সম্পূর্ণ হয়েছে এই অপূর্ব সুন্দর বাঁশের সাঁকো । কিন্তু বাঁশের সাঁকো এই সৌন্দর্য দীর্ঘস্থায়ী নয় । হয়তো দুই বছর পর আবার ভেঙে পড়বে। তাই সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য গ্রামবাসীদের গলায় পাকা ব্রিজ এর আর্জি প্রশাসনের কাছে। কৌশিক অধিকারী 
    First published:

    Tags: Bridge, South bengal news

    পরবর্তী খবর