Home /News /murshidabad /
Murshidabad: বোরো ধান কাটা নিয়ে পরামর্শ কৃষি দফতরের

Murshidabad: বোরো ধান কাটা নিয়ে পরামর্শ কৃষি দফতরের

জমিতে

জমিতে ধান কেটে নিচ্ছেন ধান চাষীরা 

প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে মাঠের ফসল বাঁচাতে উদ্যোগী হল মুর্শিদাবাদ জেলার খড়গ্রাম ব্লক ও বড়ঞা ব্লকের কৃষির সাথে যুক্ত চাষীরা। মুর্শিদাবাদ জেলার অধিকাংশ ব্লকই কৃষি প্রধান এলাকা।

  • Share this:

    খড়গ্রামঃ প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে মাঠের ফসল বাঁচাতে উদ্যোগী হল মুর্শিদাবাদ জেলার খড়গ্রাম ব্লক ও বড়ঞা ব্লকের কৃষির সাথে যুক্ত চাষীরা। মুর্শিদাবাদ জেলার অধিকাংশ ব্লকই কৃষি প্রধান এলাকা। শিল্প বিহীন এই জেলার অর্থনীতির মূল ভিত্তিই হল চাষাবাদ। বিশেষ করে খড়গ্রাম ও বড়ঞা এই দুই ব্লককে জেলার শস্যগোলা বলা হয়ে থাকে। আবহাওয়া দফতরের আগাম সতর্কতা অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড় 'অশনি'র হাত থেকে ফসল বাঁচাতে ইতি মধ্যেই কৃষি দফতরের তরফে মাঠ থেকে দ্রুত শস্য তুলে নেওয়ার পরামর্শ ও সচেতনতার প্রচার চালানো হয়েছে। গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলিতে বজ্রবিদ্যুৎ সহ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গার সাথে মুর্শিদাবাদ জেলাতেও ঝড় বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। ফসল বাঁচাতে তাই আগাম সতর্কতা নেওয়া হয়েছে ওই এলাকায়। মাঠের পাকা ধান কেটে ও ঝেড়ে দ্রুত গুদামজাত করতে প্রয়োজনে যন্ত্রের সাহায্য নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও পেঁপে কলা সহ যেসব ফল ঝড়ে নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সেগুলি যাতে নষ্ট না হয় তার ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে। ঝড় বৃষ্টি শুরু হতেই খড়গ্রাম ব্লকের বিভিন্ন এলাকা থেকে ধান পাকার আগেই তা কেটে নিতে বাধ্য হচ্ছেন চাষীরা। ফলে মাথায় হাত পড়েছে চাষীদের। তাঁদের কথায় ধান চাষে অধিক পরিমাণে খরচ হলেও মুনাফা হচ্ছে না। অন্যদিকে কালবৈশাখীর জেরে জমিতে জল জমছে। ফলে মাঠের ধান তুলে নিতে বাধ্য হচ্ছেন চাষীরা। পাশাপাশি, গাছের পেঁপেও তুলে নেওয়ার জন্য আবেদন করা হয়েছে ব্লক কৃষি দফতরের পক্ষ থেকে। খড়গ্রাম ব্লক কৃষি আধিকারিক আমজাদ মন্ডল জানান, দক্ষিণবঙ্গ সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টিপাতের জেরে ধান কেটে নিতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে চাষীদের। পাশাপাশি, শস্যজাতীয় ফসলের ক্ষেত থেকেও জল নিকাশের ব্যবস্থা করে রাখা উচিৎ। আবহাওয়া দফতরের পরবর্তী নির্দেশ পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করার বার্তা দেওয়া হয়েছে কৃষি দফতরের পক্ষ থেকে। পাশাপাশি, ধান ছাড়াই রোদে শুকিয়ে নেওয়ার পরেই তারপরেই ধান ছাড়াই করার পরামর্শ দিয়েছেন ব্লক কৃষি আধিকারিক। মুর্শিদাবাদ জেলার সহকারী কৃষি আধিকারিক মোহনলাল কুমার জানান, এবছর জেলার ৮৫ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছে। বৃষ্টিপাতের জেরে ইতি মধ্যেই ৩৫ শতাংশ ধান তুলে নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি যদি কোন ধান চাষীর ফসলের ক্ষতি হয়ে থাকে, তার শস্য বীমা করা থাকলে তার ক্ষতিপূরণ পাবেন ধান চাষী।

    প্রতিবেদনঃ কৌশিক অধিকারী

    First published:

    Tags: Murshidabad

    পরবর্তী খবর