সিট বেল্ট নিয়ে উদাসীন, ৯০% মানুষ ঝুঁকিপূর্ণ ভাবেই রাস্তায় যাতায়াত করেন: Nissan-SaveLIFE study

সিট বেল্ট নিয়ে উদাসীন, ৯০% মানুষ ঝুঁকিপূর্ণ ভাবেই রাস্তায় যাতায়াত  করেন: Nissan-SaveLIFE study
Photo: Collected

অংশগ্রহণকারীদের দুই তৃতীয়াংশের মতে ভারতের রাস্তা শিশুদের চলাফেরার জন্য যথেষ্ট পরিমাণ সুরক্ষিত নয় । ৯২.৮ অংশগ্রহণকারী শিশুদের সেফটি হেলমেটের বিষয়ে নিয়ে সচেতন থাকলেও মাত্র ২০.১ শতাংশের কাছে এই হেলমেট রয়েছে

  • Share this:

#কলকাতা: সিট বেল্ট নিয়ে সচেতনতার অভাব ও সেই কারণে রাস্তায় চলাচলের সময় নিজের ও বাচ্চাদের সুরক্ষার সময় আপস করেন কলকাতার এক বড় অংশের মানুষ, সম্প্রতি এই তথ্যই প্রকাশ পেয়েছে Nissan India ও SaveLIFE Foundation একটি গবেষণা রিপোর্টে । আজ ‘Rear Seat-Belt Usage and Child Road Safety in India’ নামক এই বিশেষ রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন সড়ক পরিবহণ মন্ত্রী নীতিন গড়করি। এই গবেষণায় প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের ৯০% মানুষ রিয়ার সিট বেল্ট ব্যবহার করেন না ও প্রবল ঝুঁকি নিয়েই যাতায়াত করেন । দিল্লি, মুম্বই, বেঙ্গালুরু, জয়পুর, কলকাতা ও লখনউ শহরে এই সার্ভে টি করা হয়েছিল । সংগৃহীত তথ্য অনুযায়ী, ৯৮% মানুষ সিট বেল্ট ব্যবহার করার বিষয়টি নিয়ে উদাসীন। এমনকি, গাড়িতে সিট বেল্ট রয়েছে ৭০% মানুষের ।

একইসঙ্গে রাস্তায় যাতায়াতের সময় বাচ্চাদের সুরক্ষার বিষয়টিও উঠে এসেছে । এই রিপোর্ট অনুযায়ী, অংশগ্রহণকারীদের দুই তৃতীয়াংশের মতে ভারতের রাস্তা শিশুদের চলাফেরার জন্য যথেষ্ট পরিমাণ সুরক্ষিত নয় । ৯২.৮ অংশগ্রহণকারী শিশুদের সেফটি হেলমেটের বিষয়ে নিয়ে সচেতন থাকলেও মাত্র ২০.১ শতাংশের কাছে এই হেলমেট রয়েছে । সম্প্রতি সড়ক পরিবহন মন্ত্রক কর্তৃক প্রকাশিত একটি রিপোর্টেও জানা গিয়েছে ২০১৭ সালে কেবলমাত্র সড়ক দূর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে প্রায় ৯,৪০৮ শিশু অর্থাৎ প্রতিদিন সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২৬টি শিশুর ।

এই গবেষণায় সার্বিক সড়ক সুরক্ষা ও মোটর ভেহিকলস সংশোধনী বিলের বাস্তবায়নের দিকটিও তুলে ধরা হয়েছে । স্বাভাবিকভাবেই, আরও উন্নত নীতি ও সচেতনতার প্রয়োজন রয়েছে । প্রসঙ্গত, এই গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের মাত্র ২৭.৭% জানতেন যে রিয়ার সিট বেল্টের ব্যবহার আইনত বাধ্যতামূলক। ৯১.৪% উত্তরদাতা মনে করেন শিশুদের জন্য আরও উন্নত সড়ক পরিবহণ আইন প্রয়োজন।

এই রিপোর্ট প্রকাশ অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি জানিয়েছেন ভারত এই মুহূর্‍র্তে পরিকাঠামোগত উন্নতির শীর্ষে রয়েছে ও সেই কারণে সড়ক পরিবহণ আইনের গুরুত্ব আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। সরকারের তরফ থেকে আইন ও সচেতনতা, উভয়কেই সমান গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে । পাশাপাশি এই উদ্যোগেরও প্রশংসা করেছেন তিনি ।

SaveLIFE Foundation এর প্রতিষ্ঠাতা ও কর্ণধার পীযূস তেওয়ারির মতে সড়ক পরিবহণ সুরক্ষা নিয়ে এই ধরনের বিস্তৃত গবেষণা প্রথমবার করা হয়েছে। দূর্ঘটনাজনিত মৃত্যুকে আটকানোর জন্য সার্বিক সচেতনতা প্রয়োজন । শিশু হেলমেট, স্কুল চত্বরে সুরক্ষা ব্যবস্থা, শিশুদের জন্য আলাদা সিট, স্কুল বাস ও ভ্যান চালকদের জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা দেশে বাধ্যতামূলক হওয়া প্রয়োজন । সরকারি সহযোগীতায় এই কাজ আরও সহজ হবে বলে জানিয়েছেন তিনি ।

Nissan India এর সভাপতি থমাস কুয়েল জানিয়েছেন সড়ক পরিবহণ নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে নানাবিধ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে , কিন্তু সিট বেল্ট নিয়ে সচেতনতার এখনও যথেষ্ট অভাব রয়েছে । এই উদ্যোগের মাধ্যমে সিট বেল্টের ব্যবহার নিয়ে মানুষকে আরও সচেতন করতে সচেষ্ট Nissan। এই ক্যাম্পেইনের প্রথম দফায় প্রায় ১২টি শহরে ২ লক্ষ শিশুদের সড়ক সুরক্ষা ও সিট বেল্টের ব্যবহার নিয়ে সচেতন করা হবে ।

Nissan India এবং SaveLIFE Foundation এর গবেষণা সংস্থা এমডিআরএ পরিচালিত 'রিয়ার সিট বেল্ট ইউজেজ অ্যান্ড চাইল্ড রোড সেফটি ইন ইন্ডিয়া' গবেষণাটি ১১ টি ভারতীয় শহরে করা হয়েছে এবং ৬,৩০৬ মুখোমুখি সাক্ষাতকারের মাধ্যমে প্রতিক্রিয়া রেকর্ড করেছে, ১০০ টি বিশেষজ্ঞ ইন্টারভিউ, সিবিএসই স্কুল বাস নির্দেশিকাগুলির পাশাপাশি পিছন সীট বেল্টের ব্যবহার মেনে চলার জন্য দুটি ফোকাস গ্রুপ আলোচনা এবং সাইট পর্যবেক্ষণের রিপোর্টও তুলে ধরা হয়েছে ।

First published: February 6, 2019, 5:10 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर