Home /News /local-18 /
West Bardhaman: আগামী বছরেই আরও একটি বিমানবন্দর পেতে পারে পশ্চিম বর্ধমান

West Bardhaman: আগামী বছরেই আরও একটি বিমানবন্দর পেতে পারে পশ্চিম বর্ধমান

বিমানবন্দর তৈরি নিয়ে জেলা প্রশাসনের বৈঠক।

বিমানবন্দর তৈরি নিয়ে জেলা প্রশাসনের বৈঠক।

বিমানবন্দর চালুর ক্ষেত্রে সমস্যা করছে ২৫৫ টি বড় গাছ। যার মধ্যে বেশ কিছু গাছ রয়েছে ব্যক্তিগত মালিকানায়।

  • Share this:

    #পশ্চিম বর্ধমান-  আগামী বছর আরও একটি বিমানবন্দর পেতে পারে শিল্প নগরী আসানসোল। শহরে প্রস্তাবিত বার্নপুর বিমানবন্দর তৈরির কাজ প্রায় শেষের মুখে। অপেক্ষা শুধু এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার গ্রিন সিগন্যাল। কিন্তু সেখানে কিছু বড় বড় গাছ তৈরি করেছে জটিলতা।

    বিমান ওঠা নামার ক্ষেত্রে গাছগুলি ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। তাই এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়া তরফে, এই গাছগুলি কেটে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার সঙ্গে জেলা প্রশাসনের বৈঠক হয়েছে এই মর্মে। তারপরেই আগামী বছরেই, শিল্প জেলা পশ্চিম বর্ধমানের নতুন এয়ারপোর্ট চালু হওয়ার আশা দেখা যাচ্ছে। উল্লেখ্য, প্রস্তাবিত বার্নপুর এয়ারপোর্ট তৈরির কাজ প্রায় শেষ। বিমানবন্দরের ভিতরে কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে, বলে খবর। কিন্তু এখনও এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার কাছে থেকে গ্রিন সিগন্যাল পাওয়া যায়নি। এর কারণ হিসেবে জানা যাচ্ছে, বিমানবন্দর চালুর ক্ষেত্রে সমস্যা করছে ২৫৫ টি বড় গাছ, যার মধ্যে বেশ কিছু গাছ রয়েছে ব্যক্তিগত মালিকানায়। ইসকো কর্তৃপক্ষের অধীনে যে সমস্ত গাছ রয়েছে, সেই বড় গাছগুলি কাটার কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে। কিন্তু ব্যক্তিগত মালিকানাধীন যে সমস্ত গাছগুলি কাটতে হবে, তা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে। যদিও এই বিষয়ে গ্রামবাসীদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে স্থানীয় প্রশাসনের। তবে কোনও রফাসুত্র পাওয়া যায় নি। কিন্তু এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়া সঙ্গে বৈঠক হয়েছে জেলা প্রশাসনের। সেখানে জেলাশাসক এস অরুণ প্রসাদ, ছাড়াও হাজির ছিলেন রাজ্যের পূর্তমন্ত্রী মলয় ঘটক, আসানসোল দুর্গাপুর কমিশনারেট এর আধিকারিক এবং ইসকো কর্তৃপক্ষের আধিকারিকরা। সেই বৈঠকে স্থির হয়েছে, বনদপ্তর এর তরফ থেকে ব্যক্তিগত মালিকানাধীন যে সমস্ত গাছগুলি রয়েছে, সেগুলি যাচাই করে দাম নির্ধারণ করা হবে। তারপর সেই সমস্ত মালিকদের সহমত পাওয়া গেলে, নির্দেশিকা জারি করে গাছ কাটার কাজ শুরু হবে। জেলা প্রশাসনের আশা, আগামী তিন মাসের মধ্যে সেই কাজ সম্পন্ন হবে। পাশাপাশি নতুন বছরেই এয়ারপোর্ট চালু হওয়ার খুশির খবর পেতে পারে জেলাবাসী। যদিও গাছ কাটা ছাড়াও, কিছু জটিলতা রয়েছে স্থানীয় মানুষদের মধ্যে। তারা বলছেন এয়ারপোর্ট তৈরি হলে, স্থানীয় যে জমিগুলি রয়েছে, সেগুলিতে দোতলা বাড়ি তৈরি করা যাবে না। ফলে জমিগুলি কার্যত অকেজো হয়ে যাবে। তাই তাদের দাবি, জমি অধিগ্রহণ করে তাদের মূল্য দেওয়া হোক অথবা সমপরিমাণ জমি অন্য কোথাও দেওয়া হোক। তবে এই ব্যাপারে প্রশাসনের কি চিন্তাভাবনা, তা এখনও জানা যায়নি। কিন্তু জেলা প্রশাসন সূত্রে খবর, বড় বড় গাছগুলি এখন প্রস্তাবিত বার্নপুর এয়ারপোর্ট নিয়ে মাথা ব্যাথার কারণ। এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়া গাছগুলি জেলা প্রশাসনকে কেটে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে। জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে আগামী কয়েক মাসের মধ্যে সেই কাজ সম্পন্ন করার চেষ্টা হচ্ছে। তারপরেই এয়ারপোর্ট চালু করার কাজে আরও গতি পাওয়া যাবে, বলে আশা করছেন তারা।
    Published by:Samarpita Banerjee
    First published:

    Tags: Airport, Airports, Asansol, West Bardhaman

    পরবর্তী খবর