Home /News /local-18 /
West Bardhaman News- রাতারাতি ভাগ্যবদল! ১০ টাকায় জয় কোটি টাকা। তবুও নারাজ লরি চালকের পেশা ছাড়তে

West Bardhaman News- রাতারাতি ভাগ্যবদল! ১০ টাকায় জয় কোটি টাকা। তবুও নারাজ লরি চালকের পেশা ছাড়তে

লটারি জয়ের পর পুলিশি নিরাপত্তায় গাড়িচালক মুমতাজ খান।

লটারি জয়ের পর পুলিশি নিরাপত্তায় গাড়িচালক মুমতাজ খান।

সকালে গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে ছিলেন কারখানার উদ্দেশ্যে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে কেটেছিলেন ১০ টাকার লটারি। ফল পেয়েছেন হাতে নাতে।

  • Share this:

    #পশ্চিম বর্ধমান- ভাগ্যের চাকা যে কখন কোন দিকে ঘুরবে, তা কেউই বলতে পারে না। এই ধরুন আপনি হয়তো দশ টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে বেরোলেন। আর রাতারাতি কোটিপতি হয়ে গেলেন। স্বপ্নে হলেও, বাস্তবে কি এমন টা সম্ভব? হ্যাঁ! এমনটাই হয়েছে। ভাগ্যের জোরে রাতারাতি কোটিপতি হয়েছেন এক লরি চালক। সকালে ১০ টাকা দিয়ে লটারি কেটে, হাতে পেয়েছেন এক কোটি টাকার পুরস্কার। রানিগঞ্জের নিমচা কোলিয়ারির বাসিন্দা মুমতাজ। সকালে গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে ছিলেন কারখানার উদ্দেশ্যে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে কেটেছিলেন ১০ টাকার লটারি। ফল পেয়েছেন হাতে নাতে। দুপুরে তিনি লটারিতে এক কোটি টাকা জয়ের খবর পেয়ে যান (West Bardhaman News)। যদিও কোটিপতি হয়েও পুরনো লরি চালক এর পেশা ছাড়তে নারাজ তিনি।

    প্রতিদিনের মতো সকালে গাড়ি নিয়ে কাজে বেরিয়ে ছিলেন নিমচা কোলিয়ারির বাসিন্দা মুমতাজ খান। রানিগঞ্জের মঙ্গলপুর এলাকার কারখানায় যাচ্ছিলেন তিনি। পথে রানিসায়ের মোড়ের কাছে গাড়ি দাঁড় করান মুমতাজ। সেখানেই ১০ টাকার লটারি টিকিট কাটেন তিনি (West Bardhaman News)। তারপর রওনা দেন কর্মস্থলের দিকে। কর্মস্থলে পৌঁছে দুপুরের দিকে তিনি লটারির জয়ের খবর পান। খুশিতে উৎফুল্ল হয়ে ওঠেন তিনি। পাশাপাশি এত টাকা পুরস্কার পেয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে শুরু করেন।

    এরপর মুমতাজ লটারির জয়ের খবর জানান তার মালিককে। খবর পেয়েই সঙ্গেসঙ্গে মুমতাজের মালিক যোগাযোগ করেন পুলিশের সঙ্গে। লটারি জয় এবং তার নিরাপত্তাহীনতায় ভোগার খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। পদক্ষেপ করে পুলিশও। নিরাপত্তা দেওয়া হয় কোটিপতি লরি চালককে। ১০ টাকার লটারিতে কোটি টাকা জয়, এখনও মুমতাজের কাছে স্বপ্নর মতই মনে হচ্ছে।

    লটারিতে জেতা টাকা দিয়ে কি করবেন মুমতাজ? এই প্রশ্ন করা হয় তাকে। সঙ্গে সঙ্গে সোজাসাপ্টা উত্তর দেন রাতারাতি কোটিপতি হয়ে যাওয়া লরি চালক। তিনি বলেন, সামান্য একজন লরি চালকের কাছে এক কোটি টাকা অনেক (West Bardhaman News)। টাকা দিয়ে তিনি প্রথমে একটি মনের মত করে বাড়ি তৈরি করবেন। পাশাপাশি যে টাকা থাকবে, তা দিয়ে দুই মেয়ের বিয়ে দেবেন। অনেকেই মনে করেছিলেন লটারিতে কোটি টাকা জয়ের পর, লরি চালকের পেশা ত্যাগ করবেন তিনি। কিন্তু মুমতাজ খান জানিয়ে দিয়েছেন, কোটি টাকা পেলেও তিনি লরি চালকের পেশা ছাড়তে চান না।

    Nayan Ghosh

    Published by:Samarpita Banerjee
    First published:

    Tags: Lottery, West Bardhaman

    পরবর্তী খবর