• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • করোনার তৃতীয় ঢেউ রুখতে মাইক্রো প্ল্যান আসানসোল পুরসভার

করোনার তৃতীয় ঢেউ রুখতে মাইক্রো প্ল্যান আসানসোল পুরসভার

একটি সেন্টারে চলছে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ।

একটি সেন্টারে চলছে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ।

শহরের প্রতিটি মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনতে চাইছে পুরসভা। ১০৬ টি ওয়ার্ডে ভ্যাকসিন সেন্টার করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

  • Share this:

    #আসানসোল: করোনার তৃতীয় ঢেউ (Coronavirus Third Wave) শুরতেই শেষ করে দিতে উদ্যোগী  হয়েছে আসানসোল পুরসভা (Asansol Municipal Corporation)। শহরের প্রতিটি মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনতে চাইছে পুরসভা। তাই শহরের ১০৬ টি ওয়ার্ডে ভ্যাকসিন সেন্টার (vaccination centers) করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে গণটিকাকরণের। পুরসভার উদ্যোগে বেশ কিছু ওয়ার্ডে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে টিকাকরণ।

    করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে আশঙ্কার রিপোর্ট জমা পড়েছে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে। তারপরই রাজ্যগুলি কোভিডের তৃতীয় ঢেউ সামাল দিতে আগেভাগেই সতর্ক হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যত দ্রুত সম্ভব বেশি মানুষের টিকাকরণ (coronaviurs vaccine)  করতে হবে। সেই মতো, আসানসোল পুরসভা প্রতিটি ওয়ার্ডে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে। প্রতিদিন ২০ হাজার মানুষকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।

    পুরসভা সূত্রে খবর, কলকাতার মতো আসানসোল পুরসভাও প্রতিটি ওয়ার্ডের মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে ব্লু প্রিন্ট তৈরি করেছে। যার মধ্যে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে কয়েকটি ওয়ার্ডে। আসানসোলের রবীন্দ্র ভবনেও দেওয়া হচ্ছে ভ্যাকসিন (Coronavirus vaccine)। ইতিমধ্যেই পুরসভা এলাকায় তিন লক্ষ মানুষ ভ্যাকসিন পেয়েছে বলে খবর।

    পুরসভার উদ্যোগে প্রথম দিকে ২০ টি ভ্যাকসিন সেন্টার থেকে ছয় হাজার মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছিল। যার মধ্যে ১৩ টি স্থায়ী ও ৭ টি মোবাইল সেন্টার থেকে ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছিল। তবে বর্তমানে সে সংখ্যা বাড়িয়ে ৩৩ টি করা হয়েছে। যেখান থেকে প্রতিদিন দশ হাজার মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে পুরসভার। আগামী দিনে মাইক্রো প্ল্যানের মাধ্যমে ১০৬ টি ওয়ার্ডে ভ্যাকসিন সেন্টার থেকে ২০০০০ মানুষকে প্রতিদিন ভ্যাকসিন দেওয়া হবে খবর।

    এছাড়াও আসানসোলে একটি আরটিপিসিআর (RTPCR Test) (করোনা পরীক্ষা) ল্যাব তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে জেলা প্রশাসন। জেলাশাসকের পৌরহিত্যে একটি বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যেখানে প্রতিদিন ৬০০ জনের করোনা পরীক্ষা হবে। এছাড়াও করোনা নিয়ন্ত্রণে জেলা প্রশাসনকে নজর রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

    এছাড়াও, জেলার স্বাস্থ্য আধিকারিকদের ও কর্মীদের, ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রাথমিক কাজের দিকে নজর দিতে বলা হয়েছে। প্রতিদিন কোভিড ডেথ অডিট করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে খবর। পাশাপাশি ব্লাড সেপারেটর, পেডিয়াট্রিক আইসিইউ বেড, ডেডিকেটেড কোভিড ওয়ার্ড ইত্যাদির ব্যবস্থা নিয়ে প্রতিদিন রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে বলে খবর। সবমিলিয়ে তৃতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার আগেই তৎপর জেলা প্রশাসন থেকে পুরসভা। শুরুতেই তৃতীয় ঢেউ শেষ করতে নেওয়া হচ্ছে পদক্ষেপ।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: