Home /News /local-18 /

Siliguri News|| দীর্ঘ যানজটে প্রথমদিনেই ভোগান্তি! 'শিরে সংক্রান্তি' অ্যাম্বুল্যান্স থেকে পড়ুয়াদের

Siliguri News|| দীর্ঘ যানজটে প্রথমদিনেই ভোগান্তি! 'শিরে সংক্রান্তি' অ্যাম্বুল্যান্স থেকে পড়ুয়াদের

মূল রাস্তায় এভাবেই যানজট পেরিয়ে রোজ করতে হয় যাতায়াত

মূল রাস্তায় এভাবেই যানজট পেরিয়ে রোজ করতে হয় যাতায়াত

Bangla News: বিভিন্ন রাস্তা যেমন হিলকার্ট রোড, থানা মোড়, কোর্ট মোড়ে যানজটে নাজেহাল হতে দেখা গিয়েছে যাত্রী ও গাড়িচালকদের।

  • Share this:

    #শিলিগুড়ি ও জলপাইগুড়ি: যানজট নিয়ে সমস্যা বহু পুরোনো শিলিগুড়ি শহরে। প্রধান প্রধান রাস্তা যেমন দার্জিলিং মোড়, এয়ারভিউ মোড়, ভেনাস মোড়, কোর্ট মোড় প্রত্যেকটি জায়গা যানজট যেন রোজকার দৃশ্য। করোনা থাক চাই না থাক, যানজটে নাজেহাল মানুষের দেখা মিলবেই।

    রাজ্য সরকারের নির্দেশিকা অনুযায়ী ১৬ নভেম্বর থেকে খুলে গিয়েছে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি। শহরের প্রত্যেকটি স্কুলেই সাজো সাজো রব ও উৎসবের আমেজ। স্কুল খোলার আনন্দ-উল্লাস নিয়ে মঙ্গলবার প্রথম দিন ক্লাসরুমে পা রাখার জন্য বাড়ি থেকে বের হতেই সেই চেনা ছবি দেখতে পেল পড়ুয়ারা। দাগাপুরের এক বেসরকারি স্কুলে পাঠরত পড়ুয়া সায়নী দেব বুধবার বলে, 'আমাদের এখানে অন্যান্য দিন খুব একটা ভিড় হয় না। আজ এতটাই যানজট ছিল যে স্কুলে পৌঁছাতে ২০ মিনিট দেরি হয়। মঙ্গলবারও একইভাবে যানজটের কবলে পড়েছিলাম।'

    যানজটে ভরপুর রাস্তা দিয়ে ২০ মাস আগে ছেড়ে আসা ক্লাসরুমের দিকেই পা বাড়িয়েছিল নবম-দ্বাদশ শ্রেণী ও কলেজের পড়ুয়ারা। ফলেই একেবারে নাজেহাল অবস্থা। এদিন এক পড়ুয়ার কথায়, 'দার্জিলিং মোড় থেকে এয়ারভিউ পৌঁছাতে লেগে গেল এক ঘন্টা! ভাবা যায়?' এদিকে শহরে মূল রাস্তায় টোটোর দৌরাত্ম্য যেন সমস্যাকে আরও গভীর করে তুলছে।

    যানজট সমস্যা এতটাই গুরুতর হয়ে গিয়েছিল যে প্রায় দেড় ঘন্টা রাস্তায় নেমে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেও এর সমাধান বের করতে পারেননি শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটান পুলিশের ডিসিপি (ট্রাফিক) অভিষেক গুপ্তা। তিনি বলেন, 'যানজট একটু শিথিল করতে আমরা চার চাকা ও দুই চাকার গাড়িগুলিকে হিলকার্ট রোড দিয়ে ঘুরিয়ে আনার ব্যবস্থা করেছি। এছাড়াও সব স্কুলের কোন কোন এবং কতগুলি গাড়ি যাবে, তার তথ্য আমাদের কাছে রয়েছে। সেইমতো আমরা নজর রাখছি।'

    বিভিন্ন রাস্তা যেমন হিলকার্ট রোড, থানা মোড়, কোর্ট মোড়ে যানজটে নাজেহাল হতে দেখা গিয়েছে যাত্রী ও গাড়িচালকদের। এর মধ্যে ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা ছিল তুলনামূলক বেশি।

    এদিকে বিপদে পড়ে অ্যাম্বুলেন্সের চালকও। রোগীকে নিয়ে যাতায়াত করার সময় যেন চলে জীবন-মরণের লড়াই। শুধুমাত্র যানজটের জন্য এই ভোগান্তি। এদিন ক্ষোভ উগরে দিয়ে এক রোগীর পরিবারের সদস্য বলেন, 'মাটিগাড়ার এক বেসরকারি হাসপাতালে যাওয়ার পথে এমন যানজটে ফেঁসে যাই, পৌঁছাতে বিশাল দেরি হয়। রোগীর প্রাণ সংশয়ও হতে পারত।'

    প্রথমদিনেই স্কুল পৌঁছাতে দেরি হওয়ায় ক্ষোভে ফেটে পড়ে পড়ুয়ারা। জলপাইগুড়ির আসাম মোড় সংলগ্ন এলাকায় যানজট এতই তীব্র হয় যে সুনীতিবালা সদর বালিকা বিদ্যালয়ে পৌঁছাতে লেগে যায় এক ঘণ্টারও বেশি সময়। কদমতলা বালিকা বিদ্যালয়ের সামনেও এদিন ঠাসা ভিড় লক্ষ্য করা গিয়েছে। প্রথমদিন যানজটে নাজেহাল পড়ুয়ারা পরেরদিন অর্থাৎ বুধবারও একই সমস্যার মুখে পড়ে। রাস্তায় টোটোর অবাধ চলাচলকে কেন্দ্র করে ক্রমেই বাড়তে থাকে যানজট। এনিয়ে সদর ওসি (ট্রাফিক) বাপ্পা সাহা বলেন, 'স্কুল খোলার দুদিন আগে থেকেই আমরা প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছিলাম। বাইরে থেকে লাইসেন্সহীন টোটোগুলিকে আটকানো হয়। তবে পড়ুয়াদের আমরা ছাড় দিয়েছি।'

    Vaskar Chakraborty

    Published by:Shubhagata Dey
    First published:

    Tags: Darjeeling, Jalpaiguri

    পরবর্তী খবর