Home /News /local-18 /

South 24 Parganas- ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস নিলেন খোদ বিডিও

South 24 Parganas- ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস নিলেন খোদ বিডিও

ক্লাস নিচ্ছেন বিডিও আব্দুল্লা শেখ

ক্লাস নিচ্ছেন বিডিও আব্দুল্লা শেখ

স্কুল পরিদর্শনে এসে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস নিলেন খোদ বিডিও

  • Share this:

    রুদ্র নারায়ন রায়, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: কোভিড পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠে স্কুল খুলেছে সপ্তাহ খানেক আগে। বহু স্কুলের পরিকাঠামো ফেরানোর কাজ চলছে এখনও। ফলে স্কুল বিল্ডিংয়ের হাল-সহ অন্যান্য পরিকাঠামো খতিয়ে দেখতে বের হন মগরাহাট-দু নম্বর ব্লকের বিডিও। এরপরই, স্কুলের পরিকাঠামো খতিয়ে দেখতে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস নিলেন তিনি। শিক্ষকতা তাঁর নেশা, তিনি পেশায় ডব্লিউবিসিএস আধিকারিক। তাই স্কুল পরিদর্শনে এসে নিজেকে সামলাতে পারলেন না। পড়ুয়াদের ক্লাস নিলেন, বলা ভালো পড়াশোনা করালেন বিডিও আব্দুল্লা শেখ। যা দেখে রীতিমতো অবাক হয়ে যান স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা সহ অন্যান্য ছাত্র-ছাত্রীরাও।

    মগরাহাটের হাঁসুড়ি হাইস্কুলের পরিকাঠামো খতিয়ে দেখতে গিয়েছিলেন বিডিও আব্দুল্লা শেখ। স্কুলে পৌঁছেই প্রধান শিক্ষক রনজিৎ হালদারের সঙ্গে কথা বলেন, স্কুলের পরিকাঠামো পর্যবেক্ষণ করেন। পাশাপাশি মিড-ডে মিলের খাবারের মান খতিয়ে দেখেন। এছাড়া, কোভিড বিধি মেনে চলা ও ছাত্র-ছাত্রীদের পঠন পাঠনের বিষয়ে গুরুত্বসহকারে প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে আলোচনা করেন। হঠাৎই বিডিও সরাসরি ঢুকে যান স্কুলের একাদশ শ্রেণির ক্লাসরুমে। ক্লাসে পড়াশোনা নিয়ে কোন অসুবিধা হচ্ছে কি না, তা ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে জানার চেষ্টা করেন। এরপর তিনি ভাইরাস ও আবহাওয়ার পরিবর্তন সংক্রান্ত বিষয়ে সচেতনতামূলক ক্লাস নেন ছাত্র-ছাত্রীদের। পড়ুয়াদের পাশাপাশি তখন মুগ্ধ শ্রোতা স্বয়ং ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক রণজিৎ হালদারও। উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাটের বাসিন্দা আব্দুল্লা শেখ। ২০১৬ সালে কেন্দ্রীয় সরকারের ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ এগ্রিকালচার রিসার্চের (আইসিএআর) চাকরি ছেড়ে বীরভূম জেলার সিউড়ি দু নম্বর ব্লকের বিডিও পদে যোগ দেন। বিডিও পদে যোগ দেওয়ার আগে বীরভূম জেলা শাসকের দপ্তরে কাজ করেছেন এক বছরের বেশি সময়। এরপর সাঁইথিয়া ব্লকে অ্যাক্টিং বিডিও হিসেবে প্রায় দু'মাসের বেশি সময় ধরে কাজ করেন। কিন্তু সিউড়ি দু'নম্বর ব্লকে প্রায় দু'বছরের বেশি সময় ধরে বিডিও পদে থাকার পর গত ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝিতে মগরাহাট দু নম্বর ব্লকের বিডিও হয়ে আসেন।

    ছাত্রছাত্রীদের পড়ানো তাঁর নেশা। একসময় কোচিং করাতেন, এখন ব্যস্ততার কারণে অনলাইনে পড়ান। তাই বহুদিন পর সরাসরি ক্লাসে পড়াতে পেরে আর সুযোগ হাতছাড়া করতে চাননি বিডিও আব্দুল্লাহ শেখ। পরে তিনি বলেন, 'পড়ানো আমার নেশা। স্কুল আর পড়ুয়া পেয়ে তাই একটু ঝালিয়ে নিলাম। সবাই খুব ভাল। পড়ুয়াদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি।' আর মগরাহাট হাঁসুড়ি হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক জানান, 'বিডিও সাহেব আমাদের স্কুলের ছাত্রদের ক্লাস নেওয়ায় আমরা উপকৃত হলাম। আর এই অতিমারী পরিস্থিতিতে উনি সচেতনতামূলক যে ক্লাস নিয়েছেন তাতে ছাত্রছাত্রীরা অনেক কিছু জানতে পারল।' বিডিও-র এই ভূমিকা দৃষ্টান্ত তৈরি করল জেলার অন্যান্য প্রশাসনিক আধিকারিকদের কাছেও, এমনটাই মনে করছে সমাজের বিশিষ্ট মহল।

    Published by:Samarpita Banerjee
    First published:

    Tags: BDO, School, South 24 pargana, South 24 Pargana news, Teacher

    পরবর্তী খবর