• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • SILIGURI WB MADHYAMIK 2021 RESULT IS OUT BUT STUDENTS MIGHT BE FACING TROUBLE IN ADMISSION FOR CLASS ELEVEN PB

পরীক্ষাহীন মাধ্যমিকের নজরকাড়া রেজাল্ট! একাদশে ভর্তি নিয়ে তৈরি জট

পরীক্ষাহীন মাধ্যমিকের নজরকাড়া রেজাল্ট! একাদশে ভর্তি নিয়ে তৈরি জট

প্রশাসন সূত্রে খবর, একাদশে ভর্তি নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সঙ্গে স্কুলগুলির সঙ্গে আগে থেকেই আলোচনা শুরু করেছিল।

  • Share this:

     শিলিগুড়ি: পরীক্ষাহীন কিন্তু নির্বিঘ্নে প্রকাশিত হল মাধ্যমিকের ফলাফল। মধ্যশিক্ষা পর্ষদের তরফে এবার কোন মেধা তালিকা প্রকাশ করা হয়নি। কিন্তু শীর্ষস্থান দখল করল ৭৯ জন। তারমধ্যে জলপাইগুড়ি জেলার সহমিতা ঘোষাল, দিশা নন্দী, অনন্যা ঘোষ ও রাজদীপ দত্ত ৬৯৭ পেয়েছে। আবার দার্জিলিং জেলাতেও ৪জনের রেজাল্ট নজরকাড়ার মতো। ৬৯১ পেয়ে উমানন্দ বর্মন সম্ভাব্য সপ্তম, ৬৯০ পেয়ে সাবিয়া হুসেন সম্ভাব্য অষ্টম, ৬৮৯ পেয়ে তনিমা সাহা সম্ভাব্য নবম স্থান দখল করেছে। এতেই দেখা গেল চলতি বছরে মাধ্যমিকে ১০০ শতাংশ পাশ। অর্থাৎ ফেল হয়নি কেউই। আর তা নিয়েই পাকিয়েছে জট। চলতি বছরে কেউই ফেল করেননি। ১০০ শতাংশ পাশ। নিঃসন্দেহে খুশির খবর পরীক্ষার্থী থেকে অভিভাবক শিক্ষক মহলের সকলের। কিন্তু খুশি হতে পারছেন কোথায়? এত সংখ্যক ছাত্রছাত্রীকে নতুন শ্রেণীতে অর্থাৎ একাদশ শ্রেণিতে জায়গা দেওয়ার মতো পরিকাঠামো যে নেই রাজ্যের কোথাও। প্রশাসন সূত্রে খবর, একাদশে ভর্তি নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সঙ্গে স্কুলগুলির সঙ্গে আগে থেকেই আলোচনা শুরু করেছিল। সমস্যার জট কিছুটা খুললেও পরিকল্পনা উভয় তরফেই যে আছে তা এককথায় পরিষ্কার। তবে আশঙ্কা বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে। বিজ্ঞান বিভাগে প্রয়োগিক অর্থাৎ প্র্যাকটিক্যাল ক্লাস আবশ্যিক। সমস্যা আরও বাড়িয়েছে মঙ্গলবার উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের একটি নির্দেশিকা। নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, স্ট্যাটিসটিকস, জীবন বিজ্ঞান, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন, ভূগোল, অংক এবং কম্পিউটার সাইন্সে ভর্তির ক্ষেত্রে ন্যূনতম ৪৫ শতাংশ নম্বর থাকতে হবে। কিন্তু রাজ্যে চলতি বছরে ৯০ শতাংশ পড়ুয়া প্রথম বিভাগে পাস করায় তাদের অধিকাংশই এই বিষয়গুলিতে ৪৫ শতাংশের বেশি নম্বর পেয়েছেন। অতএব এতো ছাত্রছাত্রীদের সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলিতে ভর্তি করে দেওয়ার মত সুযোগ পরিকাঠামোগত দিক থেকে একপ্রকার প্রশ্নের মুখে। তবে ছাত্রছাত্রীদের আশ্বস্ত করেছেন দার্জিলিং সমতলের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার জয়েন্ট কনভেনার ডঃ সুপ্রকাশ রায়। এদিন তিনি বলেন, \'দার্জিলিং জেলায় প্রত্যেকটি স্কুল পরিকাঠামোগত দিক থেকে যথেষ্ট উন্নত। ধরুন কোনও স্কুলে ৪০০ জন ছাত্রছাত্রী পড়াশোনা করে, অর্থাৎ সেই স্কুলে ৪০০ জন ছাত্রছাত্রীর উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য পরিকাঠামো রয়েছে। এবার কিছু অভাবী কিন্তু মেধাবী ছাত্রছাত্রীরা যদি নিজের স্কুল ছেড়ে অন্য কোনও স্কুলে ভর্তি হতে চায় তখন আমাদের বাড়তি আসন সংখ্যার জন্য পশ্চিমবঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক কাউন্সিলের কাছে অনুমতি চাইতে হয়। কাউন্সিল তখন বিচার-বিবেচনা করে অনুমতি দিয়ে থাকে। সুতরাং ছাত্রছাত্রীদের ভয় পাওয়া থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করব। আমরা একটি কঠিন পরিস্থিতির সঙ্গে মোকাবিলা করছি। সুতরাং ছাত্রছাত্রী তৎসহ তাঁদের অভিভাবকদের অনুরোধ করছি আপনারা ভয় কিংবা বিচলিত হবেন না।\' অন্যদিকে, রাজ্য সরকারকে একপ্রকার কাঠগোড়ায় দাঁড় করিয়েছেন দার্জিলিং জেলা নিখিলবঙ্গ শিক্ষক সমিতির সম্পাদক তথা শ্রীগুরু বিদ্যামন্দিরের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক বিশ্বনাথ দত্ত। তিনি বলেন, \'প্রথমেই জানিয়ে রাখি পশ্চিমবঙ্গের বর্তমান সরকারের শিক্ষা নিয়ে কোনও দৃষ্টিভঙ্গি নেই, কোনও পরিকল্পনা নেই। দিশাহারা অবস্থায় দাঁড়িয়ে বর্তমান রাজ্য সরকার। ছেলেমেয়েগুলো এই করোনা পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে যেভাবে পরীক্ষাগুলো দিয়েছে তাঁদের ধন্যবাদ ও শুভাশিস কামনা করা ছাড়া উপায় নেই। তবে আমি নিজে একটি বিদ্যালয়ে ২২ বছর প্রধান শিক্ষকের ভূমিকায় ছিলাম। এরম পর্যায়ে দাঁড়িয়ে এরূপ অব্যবস্থা কখনও দেখিনি। সরকার যেমন ১০০ শতাংশ পাশ করিয়ে ছাত্রছাত্রীদের উত্তীর্ণ করেছে, তেমনই তাঁদের উচ্চশিক্ষার ব্যবস্থাও সরকার পক্ষকেই করে দিতে হবে। তাঁদের প্রত্যেক সুযোগ সুবিধা সুনিশ্চিত করতেই হবে।\' উল্লেখ্য, মাধ্যমিকের ফলপ্রকাশের একদিনের মধ্যেই একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করল উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। বুধবার একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নিয়ামাবলী প্রকাশ করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আগামী ২২ জুলাই ভর্তির বিজ্ঞপ্তি জারি করতে হবে। এরপর আগামী ২ আগস্ট থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত প্রথম পর্যায়ের ভর্তি চলবে। ১৬ অগাস্ট থেকে ৩১ অগাস্ট পর্যন্ত ভর্তির দ্বিতীয় পর্যায় শুরু হবে। এই সময়ের মধ্যে সেই সমস্ত পড়ুয়াদের অ্যাডমিশন হবে যারা স্কুল বদল করছে, অর্থাৎ এক স্কুল থেকে অন্য স্কুলে ভর্তি হচ্ছে। কোভিডবিধি মেনে ভর্তির প্রক্রিয়া চলবে।

    ভাস্কর চক্রবর্তী

    Published by:Piya Banerjee
    First published: