• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • SILIGURI WB HUGE CROWD GATHER ON OCCASION OF ULTO RATH YATRA IN SILIGURI ADMINISTRATION IN QUESTION AC

উল্টো রথে 'অঘোষিত' মেলার রূপ শিলিগুড়িতে, প্রশ্নের মুখে প্রশাসন

উল্টো রথে 'অঘোষিত' মেলার রূপ শিলিগুড়িতে, প্রশ্নের মুখে প্রশাসন

করোনাবিধিকে একপ্রকার বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে দেদার সমাগমে মেতে উঠল শিলিগুড়ি রথখোলা স্পোর্টিং ক্লাব

  • Share this:

    ভাস্কর চক্রবর্তী, শিলিগুড়ি: বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। তবে করোনার চোখ রাঙানিতে সবেতেই সেধেছে বাঁধ। মঙ্গলবার ছিল জগন্নাথ-বলদেব ও সুভদ্রার প্রত্যাবর্তন যাত্রা। অর্থাৎ উল্টো রথযাত্রা। শিলিগুড়ি ইস্কনের তরফে একেবারে অনাড়ম্বর আয়োজনে পালন করা হয় উল্টো রথযাত্রা। দর্শনেরও ক্ষেত্রেও ছিল একাধিক বিধিনিষেধ। একপ্রকার \'না\' মান্যতায় জগন্নাথ দেবকে মন্দিরে উল্টো রথে আনা হয়। কিন্তু তখনই করোনাবিধিকে একপ্রকার বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে দেদার সমাগমে মেতে উঠল শিলিগুড়ি রথখোলা স্পোর্টিং ক্লাব। সকাল থেকে তেমনভাবে ভিড় দেখা না গেলেও বেলা গড়াতেই চিত্র পরিবর্তন হতে থাকে। মেলার রূপ নিয়েছে ততক্ষণে দর্শনার্থীর সংখ্যা। সুযোগ বুঝে ছোট ছোট দোকান নিয়েও বসে পসড়া সাজিয়ে তোলেন ব্যবসায়ীরা। ফলে ক্রমেই জমজমাট হয়ে ওঠে \'অঘোষিত\' মেলার পরিবেশ।

    বাড়তে থাকা করোনার প্রকোপের কথা মাথায় রেখে জনসমাগম নিষিদ্ধ করেছে বিভিন্ন স্বাস্থ্যসংস্থাগুলি সঙ্গে সরকার এবং প্রশাসন। সংক্রমণ বৃদ্ধির ফলে সম্প্রতি ফুলেশ্বরী বাজারকেও বন্ধ করা হয়েছে। বারংবার মেনে চলতে বলা হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি। তবুও উদাসীন সাধারণ মানুষ। বিবেকবোধ যেন লোপ পেয়েছে!

    এছাড়াও করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে রথযাত্রাতে। ফলে রাজ্য সহ শহর শিলিগুড়ির রথযাত্রাগুলিতে গত বছরের তুলনায় পালন করা হয়েছে অধিক কড়া নিয়ম। কোনও কোনও জায়গায় এবছরের মতো বন্ধ রাখা হয়েছে জগন্নাথদেবের মাসিবাড়ির যাত্রাও। কিন্তু সব নিষেধাজ্ঞাকে টপকে জীবনের পরোয়ানা না করেই শহরের রথখোলা স্পোর্টিং ক্লাবে উল্টো রথ নিয়ে মেতে উঠলেন কয়েক শতাধিক ভক্ত। মেলায় আগত অনেককেই দেখা গেল মাস্কহীন উন্মুক্ত মুখে। সামাজিক দূরত্ব ও প্রসাদ আদান-প্রদানেও নিয়ম পালনে নেই কোনও বালাই। সোজা রথের দিন কিছু লোকের সমাবেশ হলেও পুলিশি নিরাপত্তার জেরে সেই সংখ্যা ছিল নগন্য। দোকানের সংখ্যাও ছিল হাতে গোনা।তবে সপ্তাহ পার হতেই এইপ্রকার পরিবর্তন চিন্তায় ফেলেছে পাড়ার বাসিন্দাদের। অন্যদিকে পুলিশের উপস্থিতিতেও এমন চিত্র চোখে পড়ায় প্রশ্ন উঠছে নিরাপত্তার উদাসীনতা নিয়েও।

    স্থানীয় বাসিন্দা প্রিয়াঙ্কা ভৌমিক বলেন, \'এত লোকের জমায়েতে রোগ ছড়ালে তো সবার প্রথমে আক্রান্ত হতে হবে আমাদের মতো পাড়ার লোকদেরই। আবার এতদিনের ঐতিহ্য না পালন করলেও তো নয়। তাই আনন্দ পালনে সচেতন হতে হবে সবাইকেই।\'

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: