• হোম
  • »
  • খবর
  • »
  • local-18
  • »
  • PURBA MEDINIPUR JADAVPUR UNIVERSITY STUDENT IS TRAPPED IN ATM FRAUD CASE PB

এটিএম জালিয়াতির শিকার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ! উধাও টাকা

করোনা মহামারীর কারণে স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। বাড়ি থেকেই অনলাইনে চলছে পড়াশোনা। এরকম অবস্থায় দৃষ্টিহীন প্রতিবন্ধী ছাত্রের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে খোয়া গেছে অনেকগুলো টাকা।

করোনা মহামারীর কারণে স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। বাড়ি থেকেই অনলাইনে চলছে পড়াশোনা। এরকম অবস্থায় দৃষ্টিহীন প্রতিবন্ধী ছাত্রের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে খোয়া গেছে অনেকগুলো টাকা।

  • Share this:

    #পূর্ব মেদিনীপুর: জন্ম থেকেই একশ শতাংশ দৃষ্টিহীন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এটিএম জালিয়াতি শিকার।  ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে খোয়া গেছে ৪৩ হাজার টাকা।

    করোনা মহামারীর কারণে স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। বাড়ি থেকেই অনলাইনে চলছে পড়াশোনা। এরকম অবস্থায় দৃষ্টিহীন প্রতিবন্ধী ছাত্রের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে খোয়া গেছে অনেকগুলো টাকা। বিভিন্ন স্কলারশিপ থেকে প্রাপ্য টাকা এটিএম জালিয়াতি চক্রের হাতে।

    পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুক থানার অন্তর্গত মিরিকপুর গ্রামের রঘুনন্দন মাইতি জন্ম থেকেই দৃষ্টিহীন প্রতিবন্ধী। দৃষ্টিহীন হলেও ছোটবেলা থেকেই মেধাবী। উচ্চশিক্ষার জন্য  যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। বর্তমানে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারনেশনাল রিলেশন বিভাগের ছাত্র। পড়াশোনার খরচ চালানোর সুবিধার্থে স্থানীয় স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার শাখায় একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। রঘুনন্দনের ওই অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় পঞ্চাশ টাকা হাতিয়ে নেয় এটিএম জালিয়াতি কারবার চক্রের দুষ্কৃতীরা।

    চলতি মাসের ৪ জুন  দুপুর বেলা রঘুনন্দনের কাছে একটি নির্দিষ্ট নাম্বারটা থেকে বারবার ফোন আসে। এবং একপ্রকার তাকে বাধ্য করা হয় তার এটিএম কার্ডের সিসিভি নম্বর সহ সব কিছু তথ্য শেয়ার করতে। একশো শতাংশ দৃষ্টিহীন প্রতিবন্ধী রঘুনন্দন কে হুমকিও দেয় কার্ড জালিয়াতি কারবার চক্রের দুষ্কৃতীরা। তাই বাধ্য হয়ে সব কিছু তথ্য দুষ্কৃতিকারীদের হাতে তুলে দেয় রঘুনন্দন।

    রঘুনন্দন জানায়, "৪ জুন দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত তার কাছে নির্দিষ্ট ব্যাংকের ঠিকানা দিয়ে পরপর ফোন আসে। বলা হয় সেই যদি না তার সমস্ত কিছু তথ্য শেয়ার করে তাহলে তার ঐ অ্যাকাউন্টটি বন্ধ হয়ে যাবে।"  জন্মদিন দৃষ্টিহীন প্রতিবন্ধী রঘুনন্দন বাধ্য হয়েই এটিএম এর গোপন নাম্বার সহ বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করে। তারপরেই তার ব্যাংক একাউন্ট থেকে ৪৩ হাজার টাকা গায়েব হয়ে যায়। এই ঘটনায় কার্যত ভেঙে পড়েছে রঘুনন্দন। পড়াশোনার জন্য বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা থেকে কলারশিপ বাবদ ওই টাকা পেয়েছিল।

    রঘুনন্দন প্রাথমিকভাবে ই মেল মারফত একটি অভিযোগ যাদবপুর থানায় জানিয়েছে। কিন্তু থানা থেকে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না হওয়ায়, ই মেল মারফত কলকাতা পুলিশের সাইবার ছেলে অভিযোগ জানায় রঘুনন্দন। রাজ্যজুড়ে দিন দিন বাড়ছে অসাধু চক্রের কারবার তাদের সেই পাতা ফাঁদ থেকে রেহাই পেল না একশো শতাংশ দৃষ্টিহীন মেধাবী ছাত্র।

    Saikat Shee

    Published by:Piya Banerjee
    First published: