• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • PURBA MEDINIPUR EAST MIDNAPORE HUGE SELLING SMALL HILSA FISH WITHOUT THE ATTENTION OF THE ADMINISTRATION PBD

Hilsa in Bengal: প্রশাসনের নজর এড়িয়ে এতোটাই বিকোচ্ছে ছোট ইলিশ, আগামী বছর ইলিশ না মেলার আশঙ্কা

Hilsa in Bengal

মরশুমের শেষের পথে বিশাল পরিমাণ(Hilsa) ছোট ইলিশ মাছ ধরা পড়ায় সামনের বছর ইলিশের দেখা মিলবে না, আশঙ্কা

  • Share this:

    পূর্ব মেদিনীপুর:    পূর্ব মেদিনীপুর (East Midnapore) জেলার বিভিন্ন বাজারে প্রচুর বিক্রি হচ্ছে ছোট ছোট ইলিশ (Small size Hilsa) মাছ। প্রশাসনের নজরদারি এড়িয়ে কিভাবে এত পরিমাণ বাচ্চা ইলিশ বাজার ছেয়ে গেল প্রশ্ন তুলছে সাধারণ মানুষেরা। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি, রামনগর, তমলুক, পাঁশকুড়া, ময়নার বিভিন্ন বাজারগুলিতে প্রতিদিন বিক্রি হচ্ছে প্রচুর পরিমাণ ছোট ইলিশ মাছ (Small Hilsa sell)। ২০০ থেকে ৩০০ গ্রাম (200-300 gms Hilsa) ওজনের এত পরিমান ইলিশ মাছ বাজারের ছেয়ে যাওয়ায় ইলিশ বিলুপ্ত হওয়ার আশঙ্কা করছে মৎস্যবিদরা।

    রাজ্য মৎস্য দফতরের নিয়মে ছোট ইলিশ ধরা বেআইনি (Small Hilsa catching is illegal)। তা স্বতেও হাতে বিপুল পরিমাণ ছোট ইলিশ মাছ বাজারে বিক্রি হওয়ায় প্রসাশনের (Market flooded with small Hilsa) নজরদারিতে ফাঁক রয়েছে বলে অভিযোগ করছে সাধারণ মানুষেরা। জেলার মৎস্য দফতরের এক আধিকারিকের কথায়, ২৩ সেন্টিমিটার বা ৯ ইঞ্চির নিচে ইলিশ মাছ ধরা বেআইনি। কিন্তু পূর্ব মেদিনীপুর (East Midnapore news) জেলার বিভিন্ন বাজারে ২৩ সেন্টিমিটারের কম দৈর্ঘ্যের ইলিশ মাছ প্রচুর পরিমাণে বিক্রি হচ্ছে।

    আরও পড়ুন Bengal News| Hospital in West Midnapore: মন্ত্রী'র উদ্বোধন করা হাসপাতাল এখন আগাছায় ঢাকা! খোলার দাবি স্থানীয়দের

    প্রতিবছর ব্যান্ড পিরিয়ড পেরিয়ে মৎস্যজীবীদের ট্রলার সমুদ্রে মাছ ধরার উদ্দেশ্যে যাত্রা দেওয়ার আগে মৎস্যজীবীদের নিয়ে বৈঠক বসে রাজ্য মৎস্য দফতর। ইলিশ মাছ ধরার জন্য কী ধরনের জাল ব্যবহার করা হবে তা নিয়ে স্পষ্ট নির্দেশিকা দেওয়া হয় (Hilsa catching)। কত সেন্টিমিটারের নিচের ইলিশ মাছ ধরা যাবে না, তা নিয়েও নির্দেশিকা (guideline to catch Hilsa fish) স্পষ্ট করে দেওয়া হয়।

    ইলিশ মাছ ধরার জালের ফাঁসের মাপ ৯o মিলিমিটারের কম হবে না। এমনকি মৎস্যজীবীরা জাল নিয়ে ট্রলারে ওঠার আগে প্রশাসন থেকে নজরদারি চালানো হয় যাতে কোনো মৎস্যজীবীদের টলার ৯০ মিলিমিটারের কম ফাঁস যুক্ত জাল নিয়ে ট্রলারে না উঠতে পারে। কিন্তু তার পরেও এই ইলিশের মরসুম শেষের দিকে এত পরিমাণ বাচ্চা ইলিশ (baby Hilsa) ধরা পড়ায় প্রশাসনের নজরদারিতে ফাঁক রয়ে গেছে বলে অভিযোগ সাধারণের।

    আরও পড়ুন Priest Allowance: মিলছে না ব্রাহ্মণ ভাতা, পুজো থেকে শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে অংশ না নেওয়ার হুঁশিয়ারি পুরোহিতদের

    বাজারে ছােট ইলিশের ছড়াছড়ি। কয়েক মাস পর দিঘা মােহনা, শঙ্করপুর মােহনার মৎস্যজীবিদের জালে ইলিশ ওঠার খুশির বহর। সম্প্রতি দিঘা মােহনায় প্রায় ১০-১২ টন ইলিশ ওঠে (10-12 ton Hilsa)। তবে এই ইলিশের ওজন গড় ৩০০ গ্রাম (300 gms Hilsa)। যা আইন বিরুদ্ধ! রাজ্য মৎস্য দফতরের নির্দেশ সত্ত্বেও মৎস্যজীবির ৩০০ গ্রামের নীচে  ইলিশ শিকার করে আইনকে বুড়াে আঙুল দেখাচ্ছে। আর সেই ইলিশ দেদার বাজারে বিকোচেছ। বিষয়ে মৎস্যদফতরের এক অধিকর্তা বলেন ৩০০ গ্রামের নীচে ইলিশ ধরা আইনত অপরাধ। অভিযােগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে (action will be taken against illegal Hilsa catching)।

    এ বিষয়ে কয়েকজন মৎস্যজীবি জানান অন্যান্য মাছেদের সঙ্গে ছােট ইলিশ উঠে আসছে। কিন্তু জালে ঢোকার পর তারা আর বাঁচে না। তাই বাধ্য হয়েই ছােট ইলিশ নিয়ে আসতে হয়। দিঘা ফিসারম্যান এন্ড ফিশট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশনের কর্মকর্তা পিনাকী কর জানান, "ছােট ইলিশের ঝাঁকে কিছু বড় ইলিশও ধরা পড়ছে। তবে অ্যাসােসিয়েশনের পক্ষ থেকে ছােট ইলিশ না ধরার জন্য সর্তক করা হয়েছে মৎস্যজীবিদের।"

    আরও পড়ুন Visva Bharati news| Birbhum: বিশ্বভারতীতে খোলা হল বিক্ষোভ মঞ্চ, থেকেই যাচ্ছে আন্দোলনের আশঙ্কা

    এমনিতেই দিন দিন কমছে ইলিশ মাছ (Hilsa fish)। এবছর তার পরিমাণ আরও কম। ভরা মৌসুমে ইলিশ না পেয়ে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে ট্রলারগুলোকে। পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘা মোহনা, শংকরপুর মোহনা সহ অন্যান্য মৎস্যখুঁটি বা মৎস্য বন্দরে এবছর ইলিশের জোগান একেবারে তলানিতে। তার ওপর মরশুমের শেষের পথে বিশাল পরিমান ছোট ইলিশ মাছ ধরা পড়ায় সামনের বছর ইলিশের দেখা মিলবে না বলে আশঙ্কা করছে মৎস্য বিজ্ঞানীরা।

    সৈকত শী

    Published by:Pooja Basu
    First published: