• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • জলের স্রোতে ভেঙে গিয়েছে বাঁশের সেতু, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুই মেদিনীপুর জেলার মধ্যে

জলের স্রোতে ভেঙে গিয়েছে বাঁশের সেতু, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুই মেদিনীপুর জেলার মধ্যে

জলের স্রোতে বাঁশের সেতু ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুই মেদিনীপুরের মধ্যে।

জলের স্রোতে বাঁশের সেতু ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুই মেদিনীপুরের মধ্যে।

জলের স্রোতে বাঁশের সেতু ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুই মেদিনীপুরের মধ্যে।

  • Share this:

    কোলাঘাট:   একদিকে পূর্ব মেদিনীপুরের কোলাঘাট ব্লক অন্যদিকে পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুর দুই নম্বর ব্লক। মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে রূপনারায়ণ নদ। দুই মেদিনীপুর জেলার মানুষের মধ্যে সংযোগ রেখেছে অস্থায়ী বাঁশের সেতু। কিন্তু গত কয়েকদিন টানা বৃষ্টির জেরে নদীতে জলস্তর বেড়ে যাওয়ায়  নদী ও নদী সংযুক্ত খালে ব্যাপক স্রোতের ফলে দুই মেদিনীপুরের মানুষের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষাকারী বেশকিছু বাঁশের সেতু  ভেঙে যায়। কোলাঘাট ব্লকের জশাড় ও কলাগাছিয়া গ্রামে নদীর স্রোতে ভাঙলো দুটি বাঁশের সেতু, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুই মেদিনীপুরের মধ্যে‌

    সেতু ভেঙে যাওয়ার কারণে পূর্ব মেদিনীপুরের কোলাঘাট ব্লকের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী পশ্চিম মেদিনীপুরের দাশপুর দুই নম্বর ব্লকের যোগাযোগ একপ্রকার বিচ্ছিন্ন হয়েছে। কোলাঘাট ব্লকের জশাড়ে বাঁশের সেতুটি রবিবার এক আগস্ট গভীর রাতে নদীর স্রোতে ভেঙে যায়। ফলে জশাড় ও দাসপুর ২ ব্লকের শ্রীবরার মধ্যে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম নৌকা। নদীর প্রবল স্রোতের মধ্যে  জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে মানুষজন।

    রূপনারায়ণ নদের সাথে সংযুক্ত দূর্বাচাটী খালের সেতুটি ভেঙে যায়। ফলে চরম অসুবিধের মধ্যে পড়েছে এলাকাবাসীরা।স্থানীয় মানুষজনদের অভিযোগ, দুই জেলার সংযোগরক্ষাকারী পাকা কংক্রিটের স্থায়ীভাবে জশাড় সেতুর কাজ শুরু হয়েছিল ২০০০ সালে, রাজ্যে তখন ক্ষমতায় বামফ্রন্ট সরকার। কুড়ি বছর পার হয়ে গেলেও আজও শেষ হয়নি কংক্রিটের সেতু নির্মাণের কাজ।  আর প্রতিবছরই নদীতে জল বাড়লেই এই রূপনারায়ন নদীর উপর অস্থায়ী বাঁশের সেতু ভেঙে পড়ে। ফলে তখন দুই জেলার মানুষের পারাপারের একমাত্র অবলম্বন নৌকা। সারা বছরই পয়সা দিয়ে দুই জেলার মানুষকে পারাপার হতে হয় বাঁশের সেতুতে কিংবা নৌকায়।

    পাশাপাশি ঐদিন রাত্রে দূর্বাচটী খালের ওপর কলাগাছিয়া গ্রামেতেও অপর একটি বাঁশের পোলটিও স্রোতে ভেঙে পড়ে। ফলে কলাগেছিয়া, কুলহান্ডা, ভোড়দহ সহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের মানুষদের ওপর প্রান্তে মাগুড়িয়া যাওয়ার যোগাযোগ সম্পর্ণ বিচ্ছিন্ন। ফলে চরম সমস্যায় দুই মেদিনীপুর জেলার মানুষ।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: