Home /News /local-18 /
East Bardhaman News- সরকারি কাজে আধিকারিকের গাফিলতির জেরে কন্যাশ্রীর ভাতা থেকে বঞ্চিত ছাত্রী

East Bardhaman News- সরকারি কাজে আধিকারিকের গাফিলতির জেরে কন্যাশ্রীর ভাতা থেকে বঞ্চিত ছাত্রী

কন্যাশ্রীর আবেদনকারী ছাত্রী বিবাহিত, সেই রিপোর্ট ভুল। তড়িঘড়ি ভাতা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হল ব্লকের তরফে। 

  • Share this:

    #পূর্ব বর্ধমান: কন্যাশ্রীর আবেদনকারী ছাত্রী বিবাহিত, সেই রিপোর্ট যাওয়ার পরেই কন্যাশ্রীর আবেদন বাতিল হল পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরের এক ছাত্রীর (East Bardhaman News)। জানা গেছে বিয়ে না হওয়া সত্ত্বেও, কন্যাশ্রী ভাতা পাবার জন্য আবেদনকারী বিবাহিত বলে ভুল রিপোর্ট দিয়েছেন বুথ অফিসার। আর সরকারি দফতরে জমা পড়া এমন ভুল রিপোর্টের জন্যই কন্যাশ্রী ভাতা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয় আবেদনকারী, বলে খবর। সরকারি কাজে আধিকারিকের গাফিলতির এমন নজিরবিহীন ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে। ঘটনার বিহিত চেয়ে ছাত্রী মণিমালা মণ্ডল নিজেই বিডিওর কাছে লিখিত অভিযোগ জানায়। অভিযোগ পাওয়ার পরই নড়েচড়ে বসল ব্লক প্রশাসন।

    জানা গিয়েছে, মণিমালা মণ্ডলের বাড়ি জামালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উত্তর মোহনপুর গ্রামে। তাঁর বাবা বিশ্বনাথ মণ্ডল পেশায় ফুচকা বিক্রেতা। মা পূর্ণিমাদেবী, গৃহবধূ। ছোট বেলা থেকেই লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহী মণিমালা (East Bardhaman News)। জামালপুর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় থেকে সফল ভাবে মাধ্যমিক পাশ করার পর জামালপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। ২০২১ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করার পর মণিমালা জামালপুর মহাবিদ্যালয়ে বি.এ প্রথম বর্ষে ভর্তি হয়। কন্যাশ্রী ভাতা পাওয়ার জন্য ২০২০ সালে সে নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে আবেদন করে বলে জানায় মণিমালা নিজে। তবে সহপাঠীরা সকলে কন্যাশ্রী ভাতা পেয়ে গেলেও বঞ্চিত থাকে মণিমালা।

    কি কারণে কন্যাশ্রী ভাতা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হল, তা জানতে কয়েকদিন আগে ওই ছাত্রী বিডিও অফিসে যায়। ব্লকের কন্যাশ্রী আধিকারিকের মুখ থেকে সব ঘটনা শোনার পরই বিডিওকে লিখিত অভিযোগ জানায় সে।

    বিডিওকে লিখিত ভাবে মণিমালা জানায়, নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে সে কন্যাশ্রী ভাতার জন্য আবেদন করেছে (East Bardhaman News)। তবে ভাতার টাকা মেলেনি। খোঁজ নিতে এসে ব্লকের কন্যাশ্রী বিভাগের আধিকারিকরা বলেন, তাঁর বিয়ে হয়ে গিয়েছে বলে রিপোর্ট জমা পড়েছে। তাই সে কন্যাশ্রী ভাতা পাবেন না। মণিমালা বিডিওকে জানায় তাঁর বিয়েই হয় নি। যে রিপোর্ট পেশ করা হয়েছে তা সত্যি নয়।

    Malobika Biswas

    First published:

    Tags: East Bardhaman, Jamalpur, Kanyashree Prakalpa, Student

    পরবর্তী খবর