Home /News /local-18 /
জুলাইয়ে বীরভূমে আসছে ন্যানো ইউরিয়া, কৃষি ক্ষেত্রে আসছে নতুন দিগন্ত

জুলাইয়ে বীরভূমে আসছে ন্যানো ইউরিয়া, কৃষি ক্ষেত্রে আসছে নতুন দিগন্ত

জুলাইয়ে বীরভূমে আসছে ন্যানো ইউরিয়া, কৃষি ক্ষেত্রে আসছে নতুন দিগন্ত

জুলাইয়ে বীরভূমে আসছে ন্যানো ইউরিয়া, কৃষি ক্ষেত্রে আসছে নতুন দিগন্ত

কৃষি ক্ষেত্রে নতুন দিগন্ত দেখাতে এবার বাজারে এলো ন্যানো ইউরিয়া

  • Share this:

    বীরভূম : কৃষি ক্ষেত্রে নতুন দিগন্ত দেখাতে এবার বাজারে এলো ন্যানো ইউরিয়া। ইতিমধ্যেই এই ইউরিয়া বিক্রি করার জন্য কেন্দ্রের তরফে ছাড়পত্র পাওয়া গিয়েছে। আর এই ছাড়পত্রের সঙ্গে সঙ্গেই আগামী জুলাই মাসে বীরভূমের সরকারি বিক্রয় কেন্দ্রগুলিতে এই সার বিক্রি করা হবে, এমনটাই জানা যাচ্ছে।

    বিশ্বে প্রথম এই ন্যানো ইউরিয়া আবিষ্কার করেছে ইফকো। সারা ভারতের ১১ হাজার জায়গার পাশাপাশি বীরভূমের তিনটি ব্লক লাভপুর, বোলপুর এবং ময়ূরেশ্বর ২ এর বিভিন্ন জায়গায় রথীন্দ্র কৃষিবিজ্ঞান কেন্দ্র (বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কেন্দ্র) ধান, আলু, পেঁয়াজ এবং অন্যান্য সবজি চাষের ক্ষেত্রে এই সার প্রয়োগ করে ট্রায়াল চালায়। আর সেই সকল ট্রায়ালে সফলতা অর্জনের পর এই সার বিক্রি করার অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্র।

    ইফকোর আবিষ্কৃত এই ন্যানো ইউরিয়া কৃষি জমিতে প্রয়োগ করা হলে কৃষকরা একাধিক সুবিধা পাবেন। কৃষকদের সুবিধার পাশাপাশি এই সার ব্যবহার হলে কেন্দ্রের সুবিধার পাশাপাশি দূষণ মুক্ত হবে পরিবেশ। সংস্থার তরফে জানা গিয়েছে, এই সার ব্যবহার করা হলে চাষের খরচ হবে অর্ধেক অর্থাৎ আগে সারের পিছনে যে পরিমাণ খরচ করা হতো তার অর্ধেক খরচ করতে হবে। এটি হলো প্রথম সুবিধা।

    দ্বিতীয় সুবিধা হিসেবে জানা গিয়েছে, বর্তমান ইউরিয়া ব্যবহারের তুলনায় এই ন্যানো ইউরিয়া ব্যবহার করা হলে ফলন বাড়বে ৮ শতাংশ, যা একাধিক পরীক্ষায় ফলাফল হিসেবে উঠে এসেছে। তৃতীয় সুবিধা হিসেবে বাড়বে ফলনের গুণগতমান এবং চাষীরা ফলনের সঠিক আকৃতি পাবেন।

    কৃষকদের সুবিধার পাশাপাশি এই সার ব্যবহার করা হলে কেন্দ্র সরকারের সারের পিছনে ভর্তুকির পরিমাণ অর্ধেক হয়ে যাবে। অন্যদিকে সবথেকে বড় বিষয়টি হলো এই সার সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব। এই সার ব্যবহার করা হলে নাইট্রেট, নাইট্রাইট পলিউশন কমবে।

    ইফকোর আবিষ্কৃত এই নতুন সার ব্যবহারে যাতে চাষিরা উদ্যোগী হন তার জন্য ইতিমধ্যেই সংস্থার তরফে একটি সম্মেলন করা হয়েছে। বর্তমান কোভিড পরিস্থিতিতে গত শনিবার সেই সম্মেলন করা হয় ভার্চুয়ালি। যেখানে বীরভূমের ২৫০ জন প্রগতিশীল কৃষক অংশগ্রহণ করেন। পাশাপাশি এই ভার্চুয়াল সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেছিলেন রাজ্য বিপণন প্রবন্ধ পার্থসারথি ভট্টাচার্য্য, বীরভূম জেলা কৃষি দপ্তরের উপ কৃষি অধিকর্তা মিনহাজুর আহাসান, রথীন্দ্র কৃষিবিজ্ঞান কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক ডঃ সুব্রত মন্ডল, বীরভূম জেলার ইফকোর দুই আধিকারিক সুনীল কুমার এবং দেবাশিস মন্ডল।

    এছাড়াও উল্লেখযোগ্য ভাবে এই ভার্চুয়াল সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণ ঘাঁটির এক কৃষক গণেশ কবিরাজ। তিনি জানিয়েছেন, ট্রায়াল চলাকালীন তার জমিতে পেঁয়াজ চাষের উপর এই ন্যানো ইউরিয়া সার প্রয়োগ করা হয়। আর এই নতুন সার প্রয়োগ করার ফলে তার ফলন বেড়েছে ৮ শতাংশ।

    বীরভূম জেলার ইফকো আধিকারিক দেবাশিস মন্ডল জানিয়েছেন, আগামী জুলাই মাস থেকে বীরভূমের প্রতি ব্লকের ১৫ থেকে ২০টি বিক্রয় কেন্দ্রে এই যুগান্তকারী সার পাওয়া যাবে।

    মাধব দাস

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Agriculture, Birbhum, Farmers

    পরবর্তী খবর