• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • মাধ্যমিকে ৬৯০ নম্বর পেল নবদ্বীপ সারস্বত মন্দিরের ছাত্র সবজি বিক্রেতার ছেলে দীপশঙ্কর সাহা

মাধ্যমিকে ৬৯০ নম্বর পেল নবদ্বীপ সারস্বত মন্দিরের ছাত্র সবজি বিক্রেতার ছেলে দীপশঙ্কর সাহা

রাজ্যের মধ্যে অষ্টম স্থান অধিকার নবদ্বীপ সারস্বত মন্দিরের ছাত্র সবজি বিক্রেতার ছেলে দীপঙ্কর সাহা

রাজ্যের মধ্যে অষ্টম স্থান অধিকার নবদ্বীপ সারস্বত মন্দিরের ছাত্র সবজি বিক্রেতার ছেলে দীপঙ্কর সাহা

পেশায় সবজি বিক্রেতা মনোতোষ বাবু আর্থিকভাবে সচ্ছল না হলেও ছেলের এই সফলতা তার পরিবারের কাছে অনেক বলে জানান তিনি

  • Share this:

    করোনা পরিস্থিতির জেরে দিশেহারা গোটা রাজ্য। থমকে গেছে দেশের অর্থনীতির চাকা। রাজ্য তথা দেশজুড়ে চলছে একাধিক বিধি নিষেধ। তবে দোকানপাট বাজার হাট আস্তে আস্তে খুলে গেলেও সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগের মতোই রয়েছে বন্ধ। বিগত ২ বছর ধরে ছাত্র-ছাত্রীরা ক্লাস করছে অনলাইনে। ফলে অনেক ক্ষেত্রেই পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়ে ওঠেনি। ঠিক সেরকমই করোনা মহামারীর জেরে রাজ্যের মাধ্যমিক পরীক্ষাও বাতিল করা হয়েছিল। তবে পরীক্ষা না নিয়েও পরীক্ষার ফলাফল বেরিয়ে গেছে গতকাল। সূত্রের খবর অনুযায়ী পূর্ববর্তী ক্লাসের মার্কশিট এর উপর ভিত্তি করেই পরীক্ষার্থীদের দেওয়া হয়েছে মাধ্যমিকের নম্বর।

    ঠিক তেমনই নবদ্বীপ আরসিবি সারস্বত মন্দিরের ছাত্র দীপশঙ্কর সাহা ২০২১ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষায় বিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নম্বর অধিকার করেছে। তাঁর প্রাপ্ত নম্বর ৬৯০। কৃতি ছাত্রটির বাবা মনোতোষ সাহা পেশায় একজন সব্জি বিক্রেতা। বাড়ি নবদ্বীপ পৌরসভার চার নম্বর ওয়ার্ডের চটির মাঠ এক নম্বর মাথাপুর লেন এলাকায়। মনোতোষ বাবুর দুই ছেলের মধ্যে ছোট ছেলে দীপশঙ্কর। মনোতোষ বাবু সাধারণ একজন সব্জি বিক্রেতা হওয়ার কারণে আর্থিকভাবে সংসারে স্বচ্ছল নয়। তার মধ্য থেকেও ছোট ছেলে দীপশঙ্করের এই সফলতা তাঁর পরিবারের কাছে অনেক বড় পাওনা বলে এই দিন জানান তিনি। বর্তমানে সে বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে পড়তে চায় এবং ভবিষ্যতে একজন প্রতিষ্ঠিত ইঞ্জিনিয়ার হয়ে পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে পরিবারের অভাব ঘোচাতে চায়। পড়াশোনার পাশাপাশি দীপশঙ্করের ক্রিকেট খেলার প্রতি আগ্রহ রয়েছে। তার এই সফলতায় স্বাভাবিকভাবেই আরসিবি সারস্বত মন্দির বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা থেকে শুরু করে বন্ধুবান্ধব এমনকি খুশি ছাত্রটির পরিবারের সকল সদস্যরাও।

    Published by:Pooja Basu
    First published: