Home /News /local-18 /
Nadia: টিউশন টিচার থেকে এখন সফল বিরিয়ানি বিক্রেতা!

Nadia: টিউশন টিচার থেকে এখন সফল বিরিয়ানি বিক্রেতা!

সৌরভ গাঙ্গুলীকে বিরিয়ানি খাওয়াচ্ছেন জয়ন্ত বাবু

সৌরভ গাঙ্গুলীকে বিরিয়ানি খাওয়াচ্ছেন জয়ন্ত বাবু

স্বয়ং সৌরভ গাঙ্গুলীও তার বিরিয়ানি খেয়ে প্রশংসা করেছেন

  • Share this:

    নদিয়া: এমন কোন খাদ্য রসিক নেই যার বিরিয়ানি (Biriyani) পছন্দ নয়। এটি একমাত্র একটি খাবার যার হেটার্স খুব কমই পাওয়া যায়। বিশেষত ভোজন রসিক বাঙালি সকালের জলখাবার থেকে শুরু করে রাতের ডিনার সবেতেই বিরিয়ানি (Biriyani) পছন্দ করেন। আবার বাংলার বিরিয়ানির (Biriyani) একটা অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো আলু। মাংসের আইটেমে চিকেন বা মটন থাকুক কিন্তু আলুটা মাস্ট। দিনকেদিন বিরিয়ানির চাহিদা কলকাতা থেকে মফস্বলে ছড়িয়ে পড়ছে। আর সেই দৃষ্টিকোণ থেকেই টিউশনি পড়ানোর ছেড়ে দিয়ে বিরিয়ানির ব্যবসা করে আজ একজন সফল ব্যবসায়ী নদিয়ার (Nadia) চাকদহের জয়ন্ত কর্মকার। তিনি কোন স্কুল বা কলেজের শিক্ষক ছিলেন না। পড়াতেন টিউশন, তবে টিউশনে নেহাত কম ছাত্র ছাত্রী ছিল না তার। ২০১১ সালে যখন তিনি বিয়ে করেন তখনো তার পেশা ছিল টিউশন পড়ানো। বিয়েতে খাবারের মেন্যুতে ছিল বিরিয়ানি। তবে বিরিয়ানি বানানোর জন্য পাড়াগাঁয়ের রাঁধুনি না এনে এনেছিলেন কলকাতার নামকরা বিরিয়ানির সেফ। যার ফলে পেয়েছিলেন তিনি হাতেনাতে। বিয়েতে নিমন্ত্রণ অতিথিরা বিরিয়ানি খেয়ে তার সুনাম করেছিল অনেক। তার পরেই তিনি সিদ্ধান্ত নেন তিনি বিরিয়ানির দোকান খুলবেন। চাকদাতেই রাস্তার পাশে খুললেন বিরিয়ানির দোকান। তার বিয়েতে যিনি বিরিয়ানি বানিয়ে ছিলেন সেই সেফকেই তিনি নিযুক্ত করলেন তার দোকানের বিরিয়ানি বানানোর জন্য। এত বছর ধরে সেই দোকানে এখনো তিনি বিরিয়ানির প্রধান সেফ।

    ক্রমেই তার বিরিয়ানির জনপ্রিয়তা শিখরে পৌঁছালো। তিনি জানান আশেপাশে বিরিয়ানির বেশকিছু দোকান থাকতেও বিরিয়ানির বেশ ভিড় লেগে থাকে তার দোকানে। বিরিয়ানি প্রধান দ্রব্য মাংস। সেই মাংসের পরিমাণ যথেষ্টই তার বিরিয়ানিতে বলে জানালেন দোকানের মালিক জয়ন্ত কর্মকার। তার বিরিয়ানি সুনাম করেছেন বাংলার যুবরাজ খোদ সৌরভ গাঙ্গুলীও! সৌরভ গাঙ্গুলীর জনপ্রিয় টিভি শো তে গিয়ে তিনি সৌরভ গাঙ্গুলী কে খাইয়ে এসেছেন তার দোকানের বিরিয়ানি। তিনি জানান বিরিয়ানি খেয়ে দাদা খুবই প্রশংসা করেন। এমনকি ওই শোয়ের পরেও তার কাছে দাদাকে বিরিয়ানি খাওয়ানোর জন্য ফোন আসে। জয়ন্ত বাবু নিজে তার দোকানের স্পেশাল বিরিয়ানি নিয়ে যান দাদার জন্য।

    বর্তমানে জয়ন্ত বাবুর দুটি দোকান। একটিতে শুধুমাত্র বিরিয়ানি। অন্যটিতে বিরিয়ানি ছাড়াও বিভিন্ন রকমারি খাবার পাওয়া যায়। তবে বর্তমানে কোভিড পরিস্থিতিতে বিরিয়ানি চাহিদা কিছুটা কম হলেও অনলাইনে অর্ডার বেশ ভালই আসছে বলে জানান তিনি। এছাড়াও সমস্ত রকম কোভিড প্রটোকল মেনেই খরিদ্দার আসছেন তার রেস্টুরেন্টে। প্রাক্তন প্রাইভেট টিউটর জয়ন্ত বাবু বর্তমানে একজন সফল ব্যবসাদার।

    First published:

    Tags: Nadia

    পরবর্তী খবর