Home /News /local-18 /
Malda News- বিভিন্ন রকমের সবজি চাষ করে নজর কাড়ছেন ভাগচাষি দীপঙ্কর, শোধ করেন লক্ষাধিক টাকার ঋণও

Malda News- বিভিন্ন রকমের সবজি চাষ করে নজর কাড়ছেন ভাগচাষি দীপঙ্কর, শোধ করেন লক্ষাধিক টাকার ঋণও

সপরিবারে [object Object]

মিশ্র চাষ পদ্ধতিতে সবজি চাষ করে সফল দীপঙ্কর। একসাথে একাধিক সবজি চাষ করায় লাভের পরিমাণ বাড়ছে। নিজের উদ্যোগেই বেসরকারি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে সবজি চাষ করছেন। ফসল বিক্রি করে প্রতি সপ্তাহে ঋণের টাকা শোধ করছেন তিনি

  • Share this:

    #মালদহমাত্র তিন বিঘে জমি। সেখানে একসাথে বিভিন্ন রকমের সবজি চাষ করে নজর কাড়ছেন ভাগচাষি দীপঙ্কর দাস। অল্প সামান্য জমিতে প্রায় সমস্ত সবজি চাষ করছেন তিনি। গ্রীষ্মের মরশুমের পটল, ঝিঙে, লাউ, কুমড়ো, শশা থেকে কলা সহ অন্যান্য সমস্ত সবজি এক সাথে চাষ করছেন। করোনায় কাজ হারিয়ে পরিবার নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছিলেন মালদহের ইংরেজবাজার থানার কোতুয়ালি আড়াপুরের বাসিন্দা দীপঙ্কর। সংসারের হাল ধরতে টাকা কোথায় পাবেন বুঝতে পারছিলেন না। সেই সময় নিজের অল্প একটু জমিতে সবজি চাষ শুরু করেন। প্রথমদিকে নিজের সামান্য একটু জমিতেই বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ শুরু করেন। তারপর প্রতিবেশীর জমি লিজে নেন। বেসরকারি ব্যাংক থেকে প্রায় তিন লক্ষ টাকা ঋণ করে তিন বিঘা জমিতে শুরু করেন সবজি চাষ।

    প্রথমে নিজের উদ্যোগেই চাষ শুরু করেন। পরে চাষ ও সবজি গাছ পরিচর্যার কাজে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন স্ত্রী সহ ছেলে। এই ভাবে গত দুই বছর ধরে সাফল্যের সাথে সবজি চাষ করে আসছেন দীপঙ্কর। ভাল সবজি উৎপাদন করতে পারায় বাজারে দামও পাচ্ছেন বেশ।প্রথমদিকে বিনা প্রশিক্ষণেই চাষ শুরু করেছিলেন।ফলে সবজি চাষ করতে গিয়ে অনেকটাই সমস্যায় পড়তে হয়েছে তাঁকে।সবজির বীজ বপন থেকে পরিচর্যা করতে বেগ পেতে হয়েছে। শুরুতে তেমন ভালো সবজি উৎপাদন করতে পারছিলেন না। বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই স্বাভাবিক হয়েছে। এখন নিয়মিত স্থানীয় কৃষি দফতরে গিয়ে চাষের প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন তিনি। কৃষি দফতরের আধিকারিকদের পরামর্শ নিয়ে চাষ করছেন। যার জেরে লাভের পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে বর্তমানে।

    সরকারি কোনো সাহায্য দীপঙ্কর পাননি এখন পর্যন্ত। নিজের উদ্যোগেই বেসরকারি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে সবজি চাষ করছেন। এখন পর্যন্ত ভালো সবজি উৎপাদন হচ্ছে। ফসল বিক্রি করে প্রতি সপ্তাহে ঋণের টাকা শোধ করছেন। তারপর সামান্য কিছু লাভ হচ্ছে। কিন্তু প্রাকৃতিক বিপর্যয় হলে সমস্যায় পড়তে হবে দীপঙ্কর বাবুকে। তাই তিনি সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প সাহায্যের দাবি জানিয়েছেন। তার স্ত্রীও চাষবাসের জন্য সরকারিভাবে ঋণ ও বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার আবেদন জানিয়েছেন প্রশাসনের কাছে।

    Harashit Singha
    First published:

    Tags: Farmer, Malda

    পরবর্তী খবর