Home /News /local-18 /
Malda News- মালদহ জেলার চাঁচোল এলাকায় কুরিয়ার সার্ভিস গোডাউনে ডাকাতি

Malda News- মালদহ জেলার চাঁচোল এলাকায় কুরিয়ার সার্ভিস গোডাউনে ডাকাতি

News

News 18 লোকাল

রবিবার রাতে মালদহর চাঁচোল শান্তিমোড় এলাকায় একটি অনলাইন কুরিয়ার সার্ভিসের গোডাউনে এমন ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকা জুড়ে

  • Share this:

    #মালদহ- বন্দুকের গানপয়েন্টে কর্মীকে রেখে লুট অনলাইন কুরিয়ার সার্ভিস গোডাউনে। গোডাউনের দুই কর্মী সেই সময় টাকার হিসাব করছিলেন। ঠিক সেই সময়েই আগ্নেয়াস্ত্র হাতে গোডাউনের ভেতরে ঢোকে চার দুষ্কৃতী। দুই দুষ্কৃতী কর্মীদের মাথায় বন্দুক ধরে থাকে। বাকি দুই জন টাকা লুট করে ব্যাগ ভর্তি করে নেয়। গোডাউনের সিসিটিভি ফুটেজে সম্পূর্ণ ধরা পড়েছে সেই ছবি। সিসিটিভির ফুটেজ দেখেই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

    রবিবার রাতে মালদহর চাঁচোল শান্তিমোড় এলাকায় একটি অনলাইন কুরিয়ার সার্ভিসের গোডাউনে এমন ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকা জুড়ে। টাকা লুট করে পালানোর সময় গোডাউনের দুই কর্মীর হাত পা বেঁধে পালিয়ে যায় চারজনের দুষ্কৃতী দলটি। পরে দুই কর্মী কোনরকমে ছাড়া পেয়ে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করলে ছুটে আসে আশেপাশের বাসিন্দারা। খবর দেওয়া হয় চাঁচোল থানায়। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে চাঁচোল থানার ওসির নেতৃত্বে বিশাল পুলিশবাহিনী। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ।

    গোডাউনের সমস্ত সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে দুষ্কৃতীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। পাশাপাশি, রাতেই পুলিশের পক্ষ থেকে গোটা চাঁচোল জুড়ে নাকা চেকিং চালানো হয়েছে। তবে এখনও অধরা রয়েছে চার দুষ্কৃতী। প্রতিদিনের মতো সোমবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ ওই গোডাউনের কর্মীরা টাকা-পয়সার হিসাব করছিলেন। হঠাৎ চার জনের একটি দুষ্কৃতী দল গোডাউনের মধ্যে প্রবেশ করে। দুটি মোটর বাইকে করে চারজন আসে। প্রত্যেকের মুখে মাস্ক ও চোখে চশমা ছিল। সশস্ত্র অবস্থায় গোডাউনের ভিতর প্রবেশ করে।গোডাউনের দুই জন কর্মীকে আগ্নেয়াস্ত্র মাথায় ঠেকিয়ে ১১লক্ষ টাকা লুটপাট চালায় দুষ্কৃতীরা। প্রায় তিন মিনিট ধরে গোডাউনের মধ্যে লুটপাট চালায় দুষ্কৃতী দলটি। তারপর সেখান থেকে চম্পট দেয়।

    গোডাউনের কর্মী নূর আলম বলেন, "রাত সাড়ে দশটা নাগাদ প্রায় প্রত্যেকেরই ছুটি হয়ে গিয়েছিল। প্রতিদিনের মতো এদিনও আমরা দুইজন টাকার হিসাব করছিলাম। হঠাৎ চারজন ঢুকে পড়ে গোডাউনের ভিতর। আমাদের মাথায় আগ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে চিৎকার-চেঁচামেচি করতে বারণ করে। কোথায় টাকা রাখা আছে জানতে চায়। আমরা ভয়ে বলে দিই। তারপর প্রায় তিন মিনিট ধরে লুট চালায়। যাওয়ার সময় আমাদের হাত-পা বেঁধে দিয়েছিল। পরে আমরা কোনক্রমে ছাড়া পাই। ঘটনাটি আমরা পুলিশকে জানাই। চারজনের মধ্যে একজন হিন্দি ভাষায় কথা বলছিল, বাকি তিনজন বাংলায়।"

    First published:

    Tags: Malda, Robbery

    পরবর্তী খবর