Home /News /local-18 /
Malda: ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে বোরো ধান কেটে ফেলার পরামর্শ

Malda: ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে বোরো ধান কেটে ফেলার পরামর্শ

মাঠে [object Object]

পাকতে শুরু করেছে বোরো ধান। মাঠে প্রায় ৫০ শতাংশ জমিতে ধান পাকতে শুরু করেছে। আর দুই থেকে তিন সপ্তাহ পর মাঠে প্রায় সমস্ত ধান পেকে কাটার প্রক্রিয়া শুরু হবে।

  • Share this:

    মালদহ: পাকতে শুরু করেছে বোরো ধান। মাঠে প্রায় ৫০ শতাংশ জমিতে ধান পাকতে শুরু করেছে। আর দুই থেকে তিন সপ্তাহ পর মাঠে প্রায় সমস্ত ধান পেকে কাটার প্রক্রিয়া শুরু হবে। কিন্তু তার আগেই গ্রীষ্মের মরশুমের বৃষ্টিপাতের জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বোরো ধান। গত কয়েকদিন ধরে মাঝে মধ্যেই বৃষ্টি হচ্ছে। এমনকি ঝড় ও শিলাবৃষ্টি পর্যন্ত হয়েছে। তাতেই ক্ষতির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে ধানের। জেলার বিস্তীর্ণ এলাকায় মাঠে ধান পড়ে গিয়েছে ঝড়ের কবলে পড়ে। সেধান ঠিকঠাক না পাকায় চাষিরা কাটতে পারছেন না। এদিকে জেলায় আরও বৃষ্টির পূর্বাভাস দিচ্ছেন আবহাওয়া দপ্তর। পড়ে যাওয়া ধানের জমিতে বৃষ্টি হলে সমস্ত ধান পচে নষ্ট হয়ে যাবে। এমন পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়েই কৃষকরা ধান কাটা শুরু করেছেন। কাঁচা অবস্থা তেই ধান কেটে ঘরে তোলার চেষ্টা করছেন। তা না হলে বৃষ্টির জলে সমস্ত ধান নষ্ট হয়ে যাবে। মালদা জেলা কৃষি দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে চলতি মরশুমে মালদা জেলার প্রতিটি ব্লক মিলিয়ে মোট ৬৫ হাজার ৪৪২ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে। চলতি মরশুমে জেলায় কিছুটা পরে ধানের রোপন করা হয়েছিল। তাই এখনও ধান পাকতে শুরু করেনি। এদিকে জেলায় গ্রীষ্মকালীন বৃষ্টিপাত নেমে এসেছে। মাঠে ধান আধ পাকা অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ঝরে ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বেশকিছু ধানের জমি। কৃষকরা যাতে লোকসানের মুখে না পড়েন তাই জেলা কৃষি দপ্তর থেকে দ্রুত বোরো ধান কেটে নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন দফতরের কর্তারা। মালদা জেলা কৃষি দফতরের পক্ষ থেকে চাষীদেরকে ধান কেটে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। জেলা কৃষি দফতরের কর্তারা জানান, যে সমস্ত মাঠের ধান ৭৫ থেকে ৮০ শতাংশ পেকে গিয়েছে। সেই জমির ধান কেটে নিতে হবে। জমিতে ধান কেটে বেশিদিন ফেলে রাখা যাবে না। বৃষ্টিপাত হলে জমিতে কেটে রাখা ধান নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তাই জেলা কৃষি দফতরের কর্তারা ধান ঝাড়াই মেশিন এর সাহায্যে ধান কাটার পরামর্শ দিচ্ছেন। এতে জমির ধান কাটা সম্ভব, জমিতে জলবা কাদা থাকলেও মেশিনের সাহায্যে ধান কেটে দ্রুত তা তুলে নেওয়া যায়। তাই ধান নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা কম। যে সমস্ত কৃষকদের নিজস্ব ধান ঝাড়াই মেশিন নেই তাদেরকে ভাড়া করা মেশিনের সাহায্যে ধান কেটে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। ধান ঝাড়াই মেশিন এক ঘন্টায় প্রায় দুই বিঘা জমির ধান কাটতে সক্ষম। আবার সেই ধান মেশিনের সাহায্যে ঝাড়াই সম্ভব। বৃষ্টির হাত থেকে ধান রক্ষা করা যাবে মেশিনের সাহায্যে কাটলে। কৃষি সহায়কদের মাধ্যমে জেলার বিভিন্ন প্রান্তের কৃষকদের বোরো ধান দ্রুত কেটে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে কৃষি দফতরের পক্ষ থেকে। প্রতিবেদন- হরষিত সিংহ ( Harashit Singha)

    First published:

    Tags: Malda, North Bengal

    পরবর্তী খবর