• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • LESS SALE OF HANDMADE CHARIOTS DURING RATH CORONA HAS TAKEN AWAY PATH OF EXTRA INCOME AC

হাতে তৈরি রথের বিক্রিতে ভাটা, করোনা কেড়ে নিয়েছে বাড়তি আয়ের পথ

হাতে তৈরি রথের বিক্রিতে ভাটা। করোনা কেড়ে নিয়েছে বাড়তি আয়ের পথ।

হাতে তৈরি রথের বিক্রিতে ভাটা, করোনা কেড়ে নিয়েছে বাড়তি আয়ের পথ

  • Share this:

    কোলাঘাট: প্রতিবছর রথ এলেই বাড়তি রোজগারের পথ খুলে যায় কোলাঘাট হ্যামিলটন ব্রিজ সংলগ্ন মালাকারদের। ছোট ছোট রথ বানিয়ে বিক্রি করে বাড়তি টাকা উপার্জন করে তারা। কিন্তু করোনা কেড়ে নিয়েছে তাদের বাড়তি রোজগারের পথ।

    ১২ জুলাই সোমবার রথযাত্রা। কিন্তু করোনা আবহে বাঙালির আরেকটা উৎসবে ভাটা পড়েছে। মানুষের মধ্যে নেই সেই উন্মাদনা। জেলার বড় বড় রথযাত্রা অজেই বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে রথযাত্রা কমিটি ও স্থানীয় প্রশাসন। রথ টানা হচ্ছে না পূর্ব মেদিনীপুরের ঐতিহ্যশালী মহিষাদল রাজবাড়ীর রথ। করোনা পরিস্থিতিতে ২০২০ সালের পর এবছরও বন্ধ রথযাত্রা। রথ টানা হয়নি তমলুকের মহাপ্রভু মন্দিরের। ফলে স্বাভাবিকভাবেই রথ এ বছর জেলা বাসীর কাছে উৎসব রূপে ধরা দেয়নি।

    প্রতিবছর রথের দিন শহর ও গ্রামের রাস্তায় ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের রথ টানতে দেখা যায়। এক দেড় ফুট উচ্চতার রথ টানতে টানতে নিয়ে যায় ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা। কিন্তু করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এই কচি কাঁচাদের রথ টানাও বন্ধ হয়েছে। ছোট ছোট রথ তৈরি করতেও কোলাঘাটের বেশকিছু মালাকার নিজের শোলা থার্মকল দিয়ে বানিয়ে বিক্রী করত। কোলাঘাটের এই রথ কিনতে পার্শ্ববর্তী জেলা হাওড়া থেকে মানুষজনের আসত। কিন্তু করোনা পরিস্থতিতে তা বন্ধ হয়েছে।

    কোলাঘাট হ্যামিল্টন ব্রীজ সংলগ্ন বেশকয়েকজন মালাকার পরিবার সারাবছর দেব দেবীর বিভিন্ন শোলার গয়নাপাতি বানায়। তবে আষাঢ় মাসে রথযাত্রা উপলক্ষে প্রায় মাস খানেক ধরে শোলা ও থার্মোকল দিয়ে রথ বানায় কয়েক বছর ধরেই এই পরিবারগুলি। কিন্তু করোনার কারণে বিক্রিতে ভাটা এই হাতে তৈরি রথের। মূলত শিশুরাই এই রথের ক্রেতা। বাড়ির বড়দের সঙ্গে শিশুরা নিজেরাই পছন্দ মতো কিনে নিয়ে যেত।

    কোলাঘাটের এক মালাকার বলে, করো না পরিস্থিতির আগে প্রায় দেড়শ থেকে দুশো রথ হাতে বানিয়ে বিক্রি করত। প্রতি রথের দাম ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা। কিন্তু করোনার কারণে ২০২০ সালে মোটে ২০ টি রথ বিক্রী হয়েছিল। এ বছর তাও বিক্রী নেই। করোনার প্রাদুর্ভাবে গত বছর থেকে ভাটা পড়েছে এই হাতে তৈরি রথ কেনার। আর তাতেই রথ উপলক্ষ্যে বাড়তি টাকা আয়ের পথ বন্ধ হয়েছে।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: