Home /News /local-18 /
Darjeeling snowfall: তুষারপাত থামল পাহাড়ে! বিপত্তি থেকে মুক্তি বহু পর্যটকের

Darjeeling snowfall: তুষারপাত থামল পাহাড়ে! বিপত্তি থেকে মুক্তি বহু পর্যটকের

বরফের সাদা চাদরে ঢেকেছে গাড়ি।

বরফের সাদা চাদরে ঢেকেছে গাড়ি।

বড়দিনেই জাঁকিয়ে পড়ে শীত! তুষারপাত হয় লাচেনে, সমতলে ঠাণ্ডা হাওয়ার কাঁপুনি দিয়ে নামে বৃষ্টি। শীতল হাওয়ার সঙ্গে কুয়াশার দাপট শিলিগুড়ি, দার্জিলিং তথা পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতেও দেখা যায়।

  • Share this:

    #দার্জিলিং: পাহাড়ে গেলে বরফ দেখার বা উপভোগ করার সৌভাগ্য খুব কম মানুষেরই হয়। বড়দিনের দুদিন পরেও তুষারপাতের ধারা পরিবর্তন হয়নি (Darjeeling snowfall)। পাহাড়ে বরফে ঢাকা নৈসর্গিক পরিবেশ উপভোগ করতে বাইরে এসে পড়েন বহু মানুষ। আটকে থাকা পর্যটকদের সেনাছাউনিতে নিয়ে এসে আশ্রয় দেওয়া হয়। উত্তর সিকিমের সোমগো নাথুলা রোডেও ধরা পড়েছে একই ছবি। সেখান থেকেও শুরু হয় উদ্ধারকাজ।

    দার্জিলিংয়ের জেলা শাসক এস পোনাম্বলাম জানান, টুমলিং এলাকা থেকে ১৫৫ জনকে নামানো হয়েছে। পুলিশ প্রশাসনের সাহায্যে এই কাজ করা হয়েছে। মানেভঞ্জন এলাকার স্থানীয় মানুষ এবং ল্যান্ডরোভার অ্যাসোসিয়েশনের তরফে উদ্ধারকাজে সাহায্য করা হয়। এদিন তিনি বলেন, "বৃহস্পতিবার সন্ধ্যে পর্যন্ত প্রায় ২৩৫ জন পর্যটক নেমে গিয়েছেন পাহাড় থেকে। সবাই সুরক্ষিত রয়েছেন।" (Darjeeling snowfall)

    তুষারপাতের অপেক্ষায় ছিলেন পর্যটকরা। শৈলশহরকে উপভোগ করতে পর্যটকরা বরফে ঘেরা ঘুম, ম্যালের পাশাপাশি সান্দাকফুও চলে যান (Darjeeling snowfall)। চটকপুরে তুষারপাতের জেরে পা ভাঙে এক পর্যটকের। টুমলিং থেকে পর্যটকরা ফিরে আসতে পারেনি। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন হোমস্টে মালিকরা। তাঁরা পর্যটকদের রাতে থাকার ব্যবস্থা করার পাশাপাশি খাওয়ারও ব্যবস্থা করে দেন। রাস্তা পরিষ্কার করার জন্য সহযোগিতা করে স্থানীয় বাসিন্দা-সহ ল্যান্ড রোভার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা।

    হিমালয়ান হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম নেটওয়ার্কের (Himalayan Hospitality and Tourism Network) সাধারণ সম্পাদক (general secretary) সম্রাট সান্যাল বলেন, "প্রচুর পর্যটককে নামানো হয়েছে। অনেকেই আটকে ছিলেন সিকিমে। এদিকে অরুণাচল প্রদেশেও অনেকেই আটকে ছিলেন। তবে পুলিশ ও প্রশাসনের সহযোগিতায় প্রায় সকলকে উদ্ধার করা হয়েছে।"  আবহাওয়ার বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, "এখন বরফ অনেকটাই গলেছে। আজ সকাল থেকে ব্রাইট ও সানি (bright and sunny) ছিল। তাই উদ্ধারকাজে সুবিধা হওয়ার কথা। কেউ দার্জিলিং বা সিকিমে যাতে আটকে না যায়, আমরা সর্বত্র খোঁজখবর রাখছি।"

    উল্লেখ্য, বড়দিনেই জাঁকিয়ে পড়ে শীত! তুষারপাত হয় লাচেনে, সমতলে ঠাণ্ডা হাওয়ার কাঁপুনি দিয়ে নামে বৃষ্টি। শীতল হাওয়ার সঙ্গে কুয়াশার দাপট শিলিগুড়ি, দার্জিলিং তথা পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতেও দেখা যায়। Vaskar Chakraborty

    First published:

    Tags: Darjeeling, Jalpaiguri, Snowfall, Tourist

    পরবর্তী খবর