Home /News /local-18 /
Jalpaiguri: ছাগলের লোভে ঘরে ঢুকল চিতাবাঘ, রাতের ঘুম ছুটল পাড়া-পড়শির!

Jalpaiguri: ছাগলের লোভে ঘরে ঢুকল চিতাবাঘ, রাতের ঘুম ছুটল পাড়া-পড়শির!

বনকর্মীদের

বনকর্মীদের তৎপরতা

লোডশেডিং ছিল বলে চারিদিকে ঘুটঘুটে অন্ধকার৷ হঠাৎই বাড়ির মধ্যে জন্তুর উপস্থিতি টের পান তিনি৷ বেরিয়ে দেখেন ওপারে দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখা একটি ছাগল লেপার্ডের হাত থেকে বাঁচার চেষ্টা করছে৷ ভয়ে কাঁটা হয়ে যান সুনীতি দেবী৷ মেয়েকে নিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে যান৷

আরও পড়ুন...
  • Share this:

    ভাস্কর চক্রবর্তী, জলপাইগুড়ি (ক্রান্তি): ফের চিতাবাঘের আতঙ্ক ডুয়ার্সে। শনিবার থেকে ক্রান্তি ব্লকে রাত বাড়ার সঙ্গে এলাকায় চিতাবাঘের আতঙ্কে অনেকেরই ঘুম উড়েছে। এমনকি উত্তর খালপাড়া মৌজার অমল রায়ের বাড়িতে চিতাবাঘ হানার ঘটনা সামনে এসেছে। অমলবাবুর স্ত্রী সুনীতি দেবী রান্না সেরে বিছানায় গা এলিয়ে দিয়েছিলেল৷ পাশে বসে মেয়ে৷ রাত তখন সাড়ে ৯টা৷ লোডশেডিং ছিল বলে চারিদিকে ঘুটঘুটে অন্ধকার৷ হঠাৎই বাড়ির মধ্যে জন্তুর উপস্থিতি টের পান তিনি৷ বেরিয়ে দেখেন ওপারে দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখা একটি ছাগল লেপার্ডের হাত থেকে বাঁচার চেষ্টা করছে৷ ভয়ে কাঁটা হয়ে যান সুনীতি দেবী৷ মেয়েকে নিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে যান৷ ততক্ষণে তাঁর চিৎকার চেঁচামেচিতে জড়ো হয়ে যান প্রতিবেশীরা৷ কালক্রমে বেঁচে যান তিনি পাড়া পড়শীদের তৎপরতায়। তবে, লোকালয়ে বাঘ ঘরের মধ্যে ঢুকে পরার ঘটনা নতুন নয়। এদিনের ঘটনার জেরে এলাকায় আতঙ্ক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। যার ফলে রাতে বাড়ি থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছে এলাকাবাসী। জানা গেছে এদিন অমল রায়ের স্ত্রী সুনীতি রায় ও তার কন্যা রান্না করে শোবার ঘরে বসে ছিলেন। তখন শোবার ঘরের ফাঁক দিয়ে হঠাৎ চিতাবাঘ ঢুকে পড়ে। শোবার ঘরে একটি ছাগল ছিল। মা ও মেয়ে বাঘটিকে দেখে আতঙ্কিত হয়ে চিৎকার চেঁচামেচি করলে পার্শ্ববর্তীবাড়ি থেকে লোক এসে তাদেরকে বের করে। তৎক্ষণাৎ ক্রান্তি ফাঁড়ি ও কাঠামবাড়ি আপাল চাঁদ বন দপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। এবং কাঠামবাড়ি আপাল চাঁদ রেঞ্জের বনদপ্তরের কর্মী ও মালবাজার ওয়ার্ল্ড লাইভ কর্মীরা এসে বাঘটিকে ঘুমপাড়ানি গুলি দিয়ে কাবু করে।অমল রায়ের স্ত্রী সুনীতি রায় জানালেন, শোবার ঘরে ছাগল ছিল শোবার ঘরের ফাঁকা দিয়ে বাঘ ঢুকে ছাগলটিকে ধরে। তারা চিৎকার চেঁচামেচি করলে পাশের বাড়ির লোক এসে তাদের বের করে। বনদপ্তর আধিকারিকরা সেই বাঘটিকে উদ্ধার করে। তবে তাদের কোনও ক্ষতি হয়নি। এদিকে, বনদপ্তর সূত্রে খবর চিতাবাঘটিকে উদ্ধার করে লাটাগুড়িতে দু'দিন নজরদারিতে রাখা হবে। অতঃপর বাঘটি ছাড়া হবে।

    First published:

    Tags: Dooars, Jalpaiguri, Lataguri

    পরবর্তী খবর