• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • Kali Puja 2021: মালদহের জহুরা মায়ের ন্যায় হাওড়ার শিবপুরের জহুরা কালী মা ও তার ইতিহাস

Kali Puja 2021: মালদহের জহুরা মায়ের ন্যায় হাওড়ার শিবপুরের জহুরা কালী মা ও তার ইতিহাস

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

রক্তবর্ণ,লোলজিহ্বা, নির্গত ত্রিনেত্রা, বরাহ দন্তিকা বিকশিত এইরকমই জহুরা মায়ের এক রূপ দেখেন ।

  • Share this:

    হাওড়া: শহর হাওড়া শিবপুর অঞ্চলের অন্যতম বিখ্যাত কালীমন্দির হল অপ্রকাশ মুখার্জী লেনস্থ শ্রীশ্রী জহুরা কালী মাতার মন্দির (Kali Puja 2021) । আজ থেকে প্রায় 50 বছর আগে 1970 সালে শিবপুরের কালী সাধক শ্রী তঙ্কুরাম ভট্টাচার্য ঝোপঝাড় আকীর্ণ এই অঞ্চলটিতে জহুরা কালিমাতার প্রতিষ্ঠা করেন ।

    তখন এই মন্দিরটি ছিল একটি দর্মার ঘর মাত্র । মায়ের যে মূর্তিটি বর্তমানে দেখা যায় তা কিন্তু ভট্টাচার্য মহাশয় প্রতিষ্ঠিত মূল মূর্তি নয় । মূল মূর্তিটি গর্ভগৃহের তলায় মাটির নীচে অবস্থিত । মাটির উপর মায়ের যে মূর্তিটি দেখা যায় সেটি সিমেন্টের তৈরি । এই মূর্তির সামনে অবস্থিত ঘটের নীচেই নাকি মূল দেবী মূর্তিটি প্রতিষ্ঠিত রয়েছে ।

    এই দেবীর মূলত অবস্থান মালদহ জেলার অন্যতম বিখ্যাত পূর্ণ তীর্থ শ্রী শ্রী জহুরা কালী মাতার মন্দির (Kali Puja 2021)। এই জহুরা মায়ের সম্বন্ধে জানতে গেলে আমাদের ফিরে যেতে হবে 300 বছর আগে ।

    মাতৃসাধক ছল্ব তেওয়ারী শ্রীশ্রী জহুরা মাতা ঠাকুরানীকে সিদ্ধি লাভে স্থাপন করেন । তারও 100 বছর পরে ছল্ব তেওয়ারীর পৌত্র সাধক হীরারাম তেওয়ারী সাধনার পর সিদ্ধিলাভ করে দৈব দর্শন লাভ করেন । সেই দর্শনে মাকে তিনি মুখোশ রূপে দেখেন । রক্তবর্ণ , লোলজিহ্বা , নির্গত ত্রিনেত্রা , বরাহ দন্তিকা বিকশিত এইরকমই এক রূপ । তিনি সেই রূপই এক মুখোশ কুম্ভকারের সাহায্যে প্রস্তুত করেন এবং তার প্রবর্তন ও প্রতিষ্ঠা করেন । এই মুখোশ মালদহে মুখা নামেও পরিচিত ।

    শ্রী তঙ্কুরাম ভট্টাচার্য যে দর্মার ঘরে মায়ের পুজো করতেন সেটিই পরে স্থানীয় বাসিন্দা ও অন্যান্য ভক্তদের সহায়তায় পাকা মন্দিরে রূপান্তরিত হয় । আর 2019 সালে এই মন্দিরটি সংস্কার হয়ে বর্তমান আকার ধারণ করেছে ।

    সংবৎসর প্রতিদিন দুবেলা মায়ের নিত্য পূজা সম্পন্ন হয় , এবং প্রতি অমাবস্যা তিথিতে হোম যোজ্ঞ সহকারে মায়ের বিশেষ পূজা সম্পন্ন হয় । কালীপুজোর (Kali Puja 2021) দিনেও মায়ের বিশেষ পুজোর আয়োজন হয় এই মন্দিরে । অমাবস্যার দিনগুলিতে মাকে ভোগ নিবেদন করা হয় । মায়ের প্রধান ভোগ হলো মান । এই ভোগ নিবেদনের সময় খিচুড়ি বা লুচির ব্যবস্থা থাকলেও , মান - কচু ভোগ নিবেদন অবশ্যই থাকে ।

    প্রতি বছর পয়লা জানুয়ারি মায়ের বাৎসরিক উৎসব উদযাপিত হয় । এইদিন হোম যজ্ঞের পাশাপাশি চণ্ডীপাঠের আয়োজনও করা হয় । এই দিনের এক বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো মাগুর মাছ বলি । পয়লা জানয়ারির দিনটিতে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও পালিত হয় । ওইদিন জহুরা মায়ের মন্দিরে বহু দূর দূরান্ত থেকে আগত ভক্তদের সমাগম হয় ।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: