Home /News /local-18 /
Birbhum News- বেঁচে যাওয়া খাবার নয়, বিয়ের অনুষ্ঠানের আগেই পেটপুরে পিছিয়ে পড়া শিশুদের খাওয়ালেন সিউড়ির নবদম্পতি।

Birbhum News- বেঁচে যাওয়া খাবার নয়, বিয়ের অনুষ্ঠানের আগেই পেটপুরে পিছিয়ে পড়া শিশুদের খাওয়ালেন সিউড়ির নবদম্পতি।

খাওয়ানো ও উপহার দেওয়ার অনুষ্ঠান

খাওয়ানো ও উপহার দেওয়ার অনুষ্ঠান

শ্রী গোপাল অনুষ্ঠান ভবনে এদিন ২০ জন শিশুকে খাওয়ানোর বন্দোবস্ত করেছিলেন তারা।

  • Share this:

    #বীরভূম : বিয়ের অনুষ্ঠান হোক অথবা অন্য কোন অনুষ্ঠান, শেষে বেঁচে যাওয়া খাবার অনাথ, পথশিশু অথবা পিছিয়ে পড়াদের খাওয়াতে লক্ষ্য করা যায় অনেককেই। তবে এই বেঁচে যাওয়া খাবার নয়, নিজেদের বিয়ের অনুষ্ঠানের আগেই পিছিয়ে পড়া শিশুদের খাইয়ে নজির গড়লেন বীরভূমের সিউড়ির নবদম্পতি (Birbhum News)।

    বীরভূমের সিউড়ির ইন্দিরাপল্লীর সায়নী চৌধুরীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে বাঁধেন সিউড়ির বড় বাগান সংলগ্ন লোকনাথ পল্লীর স্বাধীন চক্রবর্তী। তাদের আজ অর্থাৎ সোমবার রয়েছে অতিথি আপ্যায়নের অনুষ্ঠান। রাতে এই অনুষ্ঠানের আগেই এই নব দম্পতি দুপুরবেলা সিউড়ির উপহার নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার পিছিয়ে পড়া শিশুদের পেটপুরে খাওয়ালেন। এদিন দুপুরবেলা এই খাওয়া দাওয়ার অনুষ্ঠান হয় সিউড়ির শ্রী গোপাল অনুষ্ঠান ভবনে।(Birbhum News)

    শ্রী গোপাল অনুষ্ঠান ভবনে এদিন ২০ জন শিশুকে খাওয়ানোর বন্দোবস্ত করেছিলেন তারা। যদিও তিন জনের শরীর অসুস্থ থাকার কারণে তারা আসতে পারেনি। বাকি ১৭ জনের পাতে পরে দুপুরের খাবার ভাত, ডাল, মাংস, রকমারি তরকারি, চাটনি, পায়েস, আইসক্রিম ইত্যাদি (Birbhum News)। অন্যদিকে যারা মাংস খেতে চান না, তাদের জন্য আবার আলাদা করে মাছের ব্যবস্থাও করা হয়েছিল। শুধু খাওয়া দেওয়া নয়, খাওয়া-দাওয়ার পর আবার ঐ সকল শিশুদের হাতে তুলে দেওয়া হয় উপহারস্বরূপ একটি করে শীতবস্ত্র।

    এমন অভিনব অনুষ্ঠান আয়োজনের পরিপ্রেক্ষিতে স্বাধীন চক্রবর্তী জানিয়েছেন, "আমার বাড়িতে কোনদিন কোনো অনুষ্ঠান হলে এই সকল শিশুদের খাওয়ানোর ইচ্ছা প্রথম থেকেই ছিল। কিন্তু বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে তাদের অনুষ্ঠানের ভিড়ভাট্টায় আনতে চাইনি। যে কারণে তাদের জন্য আলাদা করেই খাওয়ানো এবং উপহার দেওয়ার ব্যবস্থা করেছি।" এর পাশাপাশি তিনি আরও জানান, "বেঁচে যাওয়া খাবার খাওয়ানোর ইচ্ছা আমার কোনদিনই ছিল না। প্রথম থেকেই ইচ্ছা ছিল যাদের খাওয়াবো তাদের ফ্রেশ খাবার খাওয়াবো। সেই জন্যই আমি আমার বিয়েতে এই শখ পূরণ করলাম। আমার পাশাপাশি একই শখ আমার সঙ্গিনীরও। সেও আমাকে এমন অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে, পাশে থেকেছে।"

    স্বাধীন চক্রবর্তী পেশায় একজন বন দফতরের কর্মী এবং তার স্ত্রী সায়নী চৌধুরী একজন স্কুল শিক্ষিকা (Birbhum News)। তাদের দুজনের এই অনুষ্ঠানের আয়োজনের পরিপ্রেক্ষিতে বেজায় খুশি উপহার স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার অন্যতম সদস্য তথা সম্পাদক প্রিয়নীল পাল। তিনি জানিয়েছেন, "এনাদের এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়। এনাদের মত আগামী দিনেও অন্যান্যরা এগিয়ে আসুক এটাই চাইবো।"

    Madhab Das 

    First published:

    Tags: Birbhum, Siuri

    পরবর্তী খবর