• হোম
  • »
  • খবর
  • »
  • local-18
  • »
  • BIRBHUM A POLITICAL ACTIVIST IN BIRBHUM DISAPPEARED WITH 24 LAKH RUPEES PB

'গ্রাম ষোলআনা'র সাড়ে ২৪ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও বীরভূমের এক রাজনৈতিক কর্মী

'গ্রাম ষোলআনা'র টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের অন্তর্গত লোবা গ্রাম পঞ্চায়েতের কোটা গ্রামে।

'গ্রাম ষোলআনা'র টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের অন্তর্গত লোবা গ্রাম পঞ্চায়েতের কোটা গ্রামে।

  • Share this:

     #বীরভূম: একুশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল বের হওয়ার সাথে সাথে বীরভূমের মত জেলায় নানান ধরনের ঘটনা চোখে পড়েছে। ভোট-পরবর্তী হিংসা থেকে বিরোধী দল ছেড়ে শাসকদলে ফিরে আসার জন্য অভিনব আবেদন। তবে এসবের মাঝেই বীরভূমের এক রাজনৈতিক কর্মীকে সুযোগের উপযুক্ত ব্যবহার করে 'গ্রাম ষোলআনা'র ২৪ লক্ষ টাকার বেশি টাকা নিয়ে উধাও হতে দেখা গেল। উধাও হওয়া ওই রাজনৈতিক কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ এমনটাই।

    'গ্রাম ষোলআনা'র টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের অন্তর্গত লোবা গ্রাম পঞ্চায়েতের কোটা গ্রামে। গ্রামের বাসিন্দাদের অভিযোগ, বিজেপি কর্মী তথা শিক্ষক স্বরূপ দাস গ্রামোন্নয়নের জন্য বিভিন্ন খাতে আদায় করা টাকার সমস্ত হিসাব নিকাশ রাখতেন। তাকে গ্রামের ষোলআনার সদস্যরা ভরসা করেই এই দায়িত্ব দিয়েছিল। এখন সেই 'গ্রাম ষোলআনা'র টাকার হিসাব করতে গিয়ে দেখা যায় মোটা অংকের টাকার হিসাবে গরমিল। তার কাছে ছিল মোট ২৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।

    অন্যদিকে অভিযুক্ত স্বরূপ দাস দুবরাজপুর ব্লকের বিডিও এবং অন্যান্যদের ফোন করে অভিযোগ জানিয়েছেন, তাকে গ্রামে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। তিনি বিরোধী দল করতেন বলেই ভোটের ফলাফলের পর আর গ্রামে তিনি ঢুকতে পারছেন না। কিন্তু স্বরূপ দাসের এই অভিযোগ সব মিথ্যা বলে জানিয়েছেন ওই এলাকার তাঁর নিজের দলেরই বুথ সভাপতি হারাধন দে। তার কথায়, "স্বরূপ দাসের গ্রাম ছেড়ে পালানোর সাথে রাজনীতির কোনো যোগাযোগ নেই। উনি এই মোটা অংকের 'গ্রাম ষোলআনা'র  প্রায় সাড়ে ২৪ লক্ষ টাকা নিয়ে গ্রাম ছেড়েছেন।" হারাধন দাসের মতই অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সদস্যরা এবং গ্রামের বাসিন্দারাও একই দাবি করেছেন।

    আর এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওই গ্রামের 'গ্রাম ষোলআনা'র সাথে যুক্ত সদস্যরা, গ্রামের বেশকিছু বাসিন্দা এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্যরা মঙ্গলবার দুবরাজপুর থানার দ্বারস্থ হন। দুবরাজপুর থানার দ্বারস্থ হয়ে তারা এই ঘটনার সঠিক তদন্ত করার জন্য দুবরাজপুর থানার অফিসার এবং দুবরাজপুর ব্লকের ব্লক আধিকারিককে আবেদন জানান। তদন্তের পাশাপাশি তারা যাতে ওই মোটা অংকের টাকা যাতে দ্রুত ফেরত পান তার জন্য পুলিশের কাছে দাবি রেখেছেন যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করার।

    মাধব দাস

    Published by:Piya Banerjee
    First published: