পূর্বজন্মে কী ভাবে মৃত্যু হয়েছিল, সে কথা বলে দেয় জন্মদাগ! মিলিয়ে নিলে মজা পাবেন বইকি

বিশ্বাসযোগ্য হোক আর না হোক, ব্যাপারটা মিলিয়ে নিলে মজা পাওয়া যায়, তৈরি হয় বন্ধুদের সঙ্গে আলোচনার বিষয়ও!

বিশ্বাসযোগ্য হোক আর না হোক, ব্যাপারটা মিলিয়ে নিলে মজা পাওয়া যায়, তৈরি হয় বন্ধুদের সঙ্গে আলোচনার বিষয়ও!

  • Share this:

জন্ম-মৃত্যুর রহস্য এমনিতেই গভীর, তাকে আরও অন্ধকারাচ্ছন্ন করে তোলে জন্মান্তরবাদের সূত্র। এই পথেই লোকসমাজে কাজ করে এক এক তীব্র বিশ্বাস বার্থ মার্ক বা জন্মদাগকে ঘিরে। সত্যি বলতে কী, এগুলো বেশ রহস্যময় হয় বলেই তাদের নিয়ে সমাজে তৈরি হয়েছে নানা রকমের বিশ্বাস। আর তার সবক'টাই আমাদের আগের জন্ম, স্পষ্ট করে বললে আগের জন্মের মৃত্যুর সঙ্গে সম্পৃক্ত। মনে করা হয়, জন্মদাগ দেখে বোঝা যায় যে পূর্বজন্মে কী ভাবে মৃত্যু হয়েছিল! বিশ্বাসযোগ্য হোক আর না হোক, ব্যাপারটা মিলিয়ে নিলে মজা পাওয়া যায়, তৈরি হয় বন্ধুদের সঙ্গে আলোচনার বিষয়ও!

১. বুলেট মার্ক নাম শুনেই নিশ্চয়ই ব্যাপারটা বোঝা যাচ্ছে? এক্ষেত্রে যদি কারও শরীরে বুলেট লাগার মতো জন্মদাগ থাকে, তাহলে বিশ্বাস করা হয় যে আগের জন্মে মৃত্যু হয়েছিল বন্দুকের গুলিতে। গুলিটা শরীরে গেঁথে ছিল বলে এই রকম দাগ তৈরি হয়ে গিয়েছিল।

২. স্ট্যাবড উন্ড ছুরি মারলে তার ঘা শুকিয়ে আসার সময়ে যে রকমের দাগ হয়, এই ধরনের জন্মদাগও অনেকটা সে রকম দেখতে হয়। বুঝে নিতে অসুবিধা নেই যে এক্ষেত্রে আগের জন্মে ছুরির আঘাতে মৃত্যু হয়েছিল।

৩. পয়জন অ্যারো এই ধরনের জন্মদাগ একটু গোলাকার হয়, তার চারপাশে একটা আংটার মতো সাদা দাগও থাকে। বলা হয়, এক্ষেত্রে বিষ মাখানো তির ছুড়ে হত্যা করা হয়েছিল ব্যক্তিটিকে, সেই দাগ পরের জন্মেও থেকে গিয়েছে।

৪. বার্ন মার্ক এই ধরনের দাগ সচরাচর হাতে থাকে; তা সাদা, কালচে বা লালচে হতে পারে, ছড়িয়েও থাকে অনেকটা জায়গা জুড়ে। বলা হয় যে এমন দাগ থাকলে সেই ব্যক্তিকে আগের জন্মে আগুনে পুড়িয়ে মারা হয়েছিল!

৫. স্ক্যাটারড শট এই ধরনের জন্মদাগ শরীরে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকে। বলা হয়, বন্দুকের অনেকগুলো গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেওয়া হয়েছিল আগে জন্মে, তাই শরীরে এরকম ভাবে তার দাগ ইতস্তত বিক্ষিপ্ত হয়ে আছে।

৬. ব্র্যান্ডিং মার্ক অতীতে অপরাধ জগতের সঙ্গে যাঁরা যুক্ত থাকতেন, দলের তরফ থেকে তাঁদের শরীরে ছ্যাঁকা দিয়ে একটা দাগ তৈরি করে দেওয়া হত, যাতে দল ছাড়লেও ব্যক্তিটিকে খুঁজে বের করা যায়, এখান থেকেই দাগী অপরাধী শব্দটি জন্ম নিয়েছে। যদি জন্মদাগ অনেকটা নকশার মতো হয়, তাহলে ধরে নিতে হবে যে আগের জন্মে সেই ব্যক্তি অপরাধ জগতের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন!

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: