World TB Day 2021: কেন হয় এই মারণ রোগ? কী কী উপসর্গ, কী চিকিৎসা? জেনে নিন বিশদে

World TB Day 2021: মারণ ব্যাধির কারণ, উপসর্গ ও চিকিৎসা সম্পর্কে জেনে নিন বিশদে!

রিপোর্ট অনুযায়ী সারা বিশ্বে প্রতি দিনে ৪০০০ জনের মৃত্যু হয় এই মারণ ব্যাধির কবলে

  • Share this:

    #কলকাতা: সারিয়ে তোলা যে যায় না, এমনটা নয়! কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট বলছে যে তার পরেও পৃথিবী জুড়ে একটা বড় অংশ টিউবারকিউলোসিস বা যক্ষ্মায় আক্রান্ত হন এবং ধীরে ধীরে এগিয়ে যান মৃত্যুর দিকে। রিপোর্ট অনুযায়ী সারা বিশ্বে প্রতি দিনে ৪০০০ জনের মৃত্যু হয় এই মারণ ব্যাধির কবলে। বিশ্ব যক্ষ্মা দিবসে তাই এই রোগের কারণ, উপসর্গ এবং চিকিৎসা পদ্ধতি নিন বিশদে।

    কারণ: এটি একটি ব্যাকটেরিয়া বাহিত রোগ। মাইকোব্যাকটেরিয়াম টিউবারকিউলোসিস নামের ব্যাকটেরিয়া শ্বাসযন্ত্রে সংক্রমণ ঘটিয়ে এই রোগ ঘটায়। করোনাভাইরাসের মতো এটিও বাতাসে ভেসে বেড়ানো ড্রপলেটের মধ্যে দিয়ে সংক্রমিত হয়ে থাকে। ফলে এই অসুখ যারপরনাই ছোঁয়াচে বলে গণ্য করা হয়। একজনের হাঁচি-কাশি থেকে দ্রুত এটি অন্যের শরীরে ছড়িয়ে যায়।

    উপসর্গ:

    ১. তিন সপ্তাহের বেশি কাশি থাকলে ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলা উচিত, তা যক্ষ্মার লক্ষণ হতে পারে। ২. এই অসুখের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আরেকটি উপসর্গ বুকে ব্যথা। ৩. কাশির সঙ্গে বেরিয়ে আসা কফে রক্ত লেগে থাকলে তা সাধারণত এই রোগের উপসর্গ বলে ধরা হয়। ৪. যক্ষ্মায় আক্রান্তের শরীরে বেশ ভালো রকমের জ্বরও থাকে। ৫. এই রোগে আক্রান্ত হলে অনেক সময়ে খিদে কমে যায় ৬. ঘন ঘন ক্লান্তিও যক্ষ্মার অন্যতম বড় লক্ষণ। ৭. ঘুমের মধ্যে আচমকা শরীর ঘেমে ওঠাও এই রোগের একটি উপসর্গ।

    চিকিৎসা পদ্ধতি:

    ১. খাওয়ার ওষুধ দিয়েই এই রোগের চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। ২. শিশুদের ছোটবেলায় BCG ভ্যাকসিন দিলে বড় হয়ে এই রোগে সংক্রমণের সম্ভাবনা কমে যায়। ৩. যাঁদের মৃদু উপসর্গ আছে, তাঁদের দিনে একটা কী দু'টো ওষুধেই কাজ হয়। ৪. উপসর্গ জটিল হলে একসঙ্গে অনেকগুলো ওষুধ দেওয়া হয়। ৫. দীর্ঘ দিনের সমস্যা হলে ফ্লুওরোকুইনোলোনস (Fluoroquinolones) নামের এক ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক এবং ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়।

    তবে কোন ক্ষেত্রে কোন ওষুধ দেওয়া উচিত, সেই সিদ্ধান্ত একমাত্র ডাক্তারেই নিতে পারেন। তাই উপসর্গ মিললে দেরি না করে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া দরকার। পাশাপাশি মনে রাখা দরকার যে চিকিৎসা কখনই বন্ধ করা চলবে না।

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published: