লাইফস্টাইল

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ওয়র্ক ফ্রম হোম-এর জেরে ব্যক্তিগত জীবনে অশান্তি ? নজরে রাখুন এই বিষয়গুলো

ওয়র্ক ফ্রম হোম-এর জেরে ব্যক্তিগত জীবনে অশান্তি ? নজরে রাখুন এই বিষয়গুলো

কাজ ও ব্যক্তিগত জীবনের এই ভারসাম্যকে রক্ষা করতেই হবে। কী ভাবে তা সম্ভব?

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা সংক্রমণের জেরে এখনও ওয়র্ক ফ্রম হোমেই রয়েছেন অধিকাংশ। কিন্তু এই ওয়র্ক ফ্রম হোম ঘিরে সমস্যা বেড়েই চলছে। অফিসকর্মীদের চোখেমুখেও সেই বিরক্তি বা ক্লান্তির ছাপ স্পষ্ট। সমীক্ষা বলছে, অনেকেই অবসাদে ভুগতে শুরু করেছেন। আর এর প্রধান কারণ হিসেবে দায়ী করা হচ্ছে টাইম ম্যানেজমেন্টকে। অর্থাৎ বাড়িতে থেকে অফিস ও ব্যক্তিগত জীবনের সময় কাটানোর মধ্যে ফারাক করতে না পারা। সারা দিন ভিডিও কলে মিটিং, কনফারেন্স, একগাদা মেইলের মধ্যেই থাকতে হচ্ছে। ফলে বাড়ছে কাজের সময়ও। সব মিলিয়ে একটি ভারসাম্যহীন পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছেন মানুষজন। কিন্তু কাজ ও ব্যক্তিগত জীবনের এই ভারসাম্যকে রক্ষা করতেই হবে। কী ভাবে তা সম্ভব?

বসের সঙ্গে কথা বলুন-- যদি বাড়িতে কাজের পরিস্থিতি না থাকে, বাড়িতে ছোট ছেলেমেয়ে রয়েছে বা অন্য কোনও কারণে পরিবারের পরিস্থিতি যদি আলাদা হয়, তা হলে সেই বিষয়টি স্পষ্ট ভাবে বসকে জানান। নিজের শিফটিংয়ের বিষয়টি নিয়েও ওয়াকিবহাল থাকুন।

আপনার সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলুন-- পরিবারে ছেলেমেয়ে রয়েছে, তাদের যত্ন নেওয়াটাও খুব জরুরি। তাই আপনার প্রিয়জনের সঙ্গে কথা বলুন। যদি দু'জনে অফিসে কাজ করেন, তা হলে রোটেশন ডিউটি নিন। পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমেই পরিবারের বাকিদের ও বাচ্চাদের সময় দেওয়ার চেষ্টা করুন।

বুদ্ধি করে সব দিক বজায় রাখুন--অফিসের পাশাপাশি পরিবারের প্রতিও নজর দিন। তা না হলে কিন্তু অবসাদ ও ঝামলা বাড়ে।

ধৈর্য ধরে ছেলেমেয়েদের সঙ্গে মাথা ঠাণ্ডা রেখে ব্যবহার করুন। আপনার মতো বাড়ির বাচ্চারাও বাইরে বেরোতে পারছে না। তাই তাদের অল্প-বিস্তর দুষ্টুমি সহ্য করতে হবে। অযথা মাথা গরম করা চলবে না। ধৈর্য রেখে তাদের সঙ্গে মিশতে হবে। না হলে আপনার কাজেরই ক্ষতি হবে।

অফিসের কাজ শেষ হলে বাড়িতেই পুরো সময় দিন-- একবার অফিসের কাজ শেষ হয়ে গেলে ল্যাপটপটি দূরে সরিয়ে রাখুন। ফোন, কলিগ, অফিসের ওয়েবিনার থেকে দূরে গিয়ে এ বার পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান। এতে মন ও মানসিকতা ভাল থাকবে। পরের দিন কাজের জন্য নিজেকে তৈরি করতে পারবেন। আর অবসাদ কমলে শরীরও ভালো থাকবে।

শরীরচর্চার জন্য সময় বের করুন--পরিবারের জন্য সময় বের করার পাশাপাশি নিজের শরীরচর্চার কথাও ভুলবেন না। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যবিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, নিয়মিত শরীরচর্চা, অল্প যোগ ও মেডিটেশন আপনার শরীর সুস্থ রাখবে, আপনার অবসাদও কমাবে।

বাকি থাকা কাজগুলির দিকে একবার ফিরে তাকান--ওয়র্ক ফ্রম হোমে রয়েছেন। ছুটি থাকলে বা সময় পেলে নিজের পুরনো কোনও শখের দিকে নজর দিন বা বাকি থাকা কাজ শুরু করুন। অবসরে ছবি আঁকা, ফটো তোলার মতো নানা বিষয়ে আবার নজর দিন।

সম্পর্কের পুরনো সমস্যাগুলি মেটান--এই কয়েক মাস আপনি বাড়িতেই রয়েছেন। উৎসবের দিনগুলিতেও বাড়িতেই থাকতে হচ্ছে। তাই এত দিন ব্যস্ততার ভিড়ে যে কাজগুলি করতে পারেননি, সেগুলি এ বার করে ফেলুন। অনেক ছোটখাটো রাগারাগি বা ঝগড়ার জেরে বন্ধু বা আত্মীয়দের সঙ্গেও দীর্ঘদিন ধরে মনোমালিন্য তৈরি হয়েছে। এ বার সময়-সুযোগ করে সেগুলি মিটিয়ে ফেলুন।

Published by: Rukmini Mazumder
First published: November 10, 2020, 7:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर