• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • এখনও ঠিক করেননি কী ভাবে সাজবেন? সরস্বতী পুজোর লাস্ট টাইম ফ্যাশন টিপস-এ পথ দেখাচ্ছেন তারকারা

এখনও ঠিক করেননি কী ভাবে সাজবেন? সরস্বতী পুজোর লাস্ট টাইম ফ্যাশন টিপস-এ পথ দেখাচ্ছেন তারকারা

সরস্বতী পুজোর সাজগোজে মাথায় রাখা যেতে পারে এই বিষয়গুলি!

সরস্বতী পুজোর সাজগোজে মাথায় রাখা যেতে পারে এই বিষয়গুলি!

সরস্বতী পুজোর সাজগোজে মাথায় রাখা যেতে পারে এই বিষয়গুলি!

  • Share this:

শীত পেরিয়ে শহরের দরজায় কড়া নেড়েছে বসন্ত। পঞ্চমী তিথিতে আজ দিকে দিকে বাগদেবীর আরাধনা শুরু হয়েছে। কেউ পুজোর অজুহাতে নতুন প্রেমের পিছু নিয়েছে। কেউ আবার বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে মশগুল। অনেকে আবার একসঙ্গে কোথাও খেতে বা কাছাকাছি ঘুরে আসার প্ল্যান করেছেন। তবে সব কিছুতেই সাজগোজ মাস্ট। এক্ষেত্রে সরস্বতী পুজোর সাজগোজে মাথায় রাখা যেতে পারে এই বিষয়গুলি!

শাড়ি

পুজোর সঙ্গে শাড়ির একটা আত্মিক সম্পর্ক। তাই সবার প্রথমে রাখা যেতে পারে শাড়িকে। এক্ষেত্রে ভালো ফ্যাব্রিকের শাড়ি পরলে মন্দ হয় না। রং হিসেবে সাদা বা বাসন্তীকে বেছে নেওয়া যেতে পারে, যেমনটা দেখা যাচ্ছে স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়ের (Swastika Mukherjee) সাজে। সকালের দিকটায় শাড়ি বেস্ট। কারণ অঞ্জলির ব্যাপার রয়েছে। এক্ষেত্রে সাদা, হলুদ বা বাসন্তী রঙের শাড়ি একান্তই না থাকলে কমলার শেডে কিছু পরা যেতে পারে। সঙ্গে একটু স্টাইলিশ ব্লাউজ। আঁচল ছেড়ে শাড়ি পরা যেতে পারে। তবে যাঁদের আঁচল সামলাতে সমস্যা, তাঁরা প্লিট করে পরতে পারেন। করোনা ভুললে চলবে না। তাই একটা মাস্ক রেখে দিতে হবে। এক্ষেত্রে কাপড়ের কোনও ম্যাচিং মাস্ক নেওয়া যেতে পারে। একদম ছোটরা লাল-পাড় হলুদ শাড়ি পরে, বাবা-মা বা দাদু-দিদার হাত ধরে বেরিয়ে পড়তে পারে।

পাঞ্জাবি

ছেলেদের জন্য হলুদ পাঞ্জাবি হলে তো আর কথা নেই। তবে সাদা বা আকাশিও চলবে, যেমন দেখা যাচ্ছে আবির চট্টোপাধ্যায়ের (Abir Chatterjee) গায়ে। এক্ষেত্রে প্রিয়জনের শাড়ির সঙ্গে ম্যাচিংয়ের কোনও অলিখিত শর্ত থাকলে, সেই বিষয়েও গুরুত্ব দেওয়া যেতে পারে। যাঁরা পাজামা বা ধুতিতে একেবারে স্বচ্ছন্দ নন, তাঁদের জন্য জিন্সই ভরসা। তবে জুতোর দিকটাও খেয়াল রাখতে হবে।

শাড়ির বিকল্প হিসেবে লেহঙ্গা/স্কার্ট

View this post on Instagram

A post shared by Nusrat (@nusratchirps)

হেঁটে হেঁটে ঠাকুর দেখা। খেতে যাওয়া। এদিক-ওদিক ঘুরতে যাওয়া। শাড়ি পরলে অনেকের কাছে একটু বাড়তি চাপ হয়ে যায়। অনেকের কাছেই শাড়ি সামলানো বেশ কঠিন। এক্ষেত্রে উজ্জ্বল কোনও রঙের, বিশেষ করে হলুদ বা বাসন্তী রঙের লেহঙ্গা/স্কার্ট পরা যেতে পারে। ক্রপ টপ বা যে কোনও পছন্দসই টপের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে একটা লেহঙ্গা/স্কার্ট; সঙ্গে ম্যাচিং দোপাট্টা নেওয়াটা নিজের ইচ্ছে। ব্যস, সাজ জমে যাবে, ঠিক নুসরত জাহানের (Nusrat Jahan) মতো!

ডিজাইনার কুর্তি বা গাউন

লেহঙ্গা বা শাড়ি বাদে মিড বা ফুল লেন্থের কোনও এথনিক ড্রেসও বেছে নেওয়া যেতে পারে। এখানেই ডিজাইনার কুর্তি বা গাউনের কথা উঠে আসে। এক্ষেত্রে কুর্তির সঙ্গে মিলিয়ে স্লিম-ফিট প্যান্ট পরতে হবে। এগুলি ছাড়া আনারকলি বা কলিদার কুর্তি ও পালাজোও পরা যেতে পারে। বা সোজা-সাপ্টা গাউন ড্রেস বেছে নেওয়া যায়, যেমনটা দেখা যাচ্ছে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর (Rituparna Sengupta) সাজে।

প্যান্ট-শাড়ি

View this post on Instagram

A post shared by ARYA By SVA (@aryabysva)

শাড়ি সামলানোর ঝুঁকি একটু কমিয়ে নর্ম্যাল শাড়িকে প্যান্ট স্টাইলে পরা যেতে পারে। কেনাও যেতে পারে প্যান্ট-শাড়ি। এর সঙ্গে একটা ক্রপ টপ বা ম্যাচিং কোনও টপ পরে নেওয়া যেতে পারে। যেমন এই ছবিতে পরেছেন বিদ্যা বালন (Vidya Balan)।

জামা-কাপড়ের সঙ্গে সাজগোজও কিন্তু খুব জরুরি। শাড়ির সঙ্গে চোখে মোটা কাজল বা গাঢ় লিপস্টিক হলে মন্দ হয় না। এক্ষেত্রে পোশাক অনুযায়ী কাজল ও লিপস্টিকের শেড ঠিক করতে হবে। খুব বেশি না হলেও হালকা গয়না পরা যেতে পারে। তবে ভারী গয়নাও খুব একটা খারাপ লাগবে না। এক্ষেত্রে সাদা অথবা হলুদ শাড়ির সঙ্গে মানানসই নেকলেস আর ঝুমকো পরা যেতে পারে।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: