• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • শীতকালে বাড়তে পারে মাথা যন্ত্রণার সমস্যা, আটকানো যাবে এই ১০ উপায়ে!

শীতকালে বাড়তে পারে মাথা যন্ত্রণার সমস্যা, আটকানো যাবে এই ১০ উপায়ে!

কী ভাবে শীতে মাথা যন্ত্রণার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে-

কী ভাবে শীতে মাথা যন্ত্রণার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে-

কী ভাবে শীতে মাথা যন্ত্রণার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে-

  • Share this:

#কলকাতা: শীতকাল পড়ে গিয়েছে। এই সময়ে অনেকেরই ঠাণ্ডা লাগা, মাথা যন্ত্রণা- এই সব লেগে থাকে। যাঁদের মাথা যন্ত্রণা এমনিতেই হয়, তাঁদের এই সময় সেই সমস্যা আরও বেড়ে যায়। কখনও তা মাইগ্রেনের জন্য হতে পারে, কখনও সাইনাসের জন্য বা কখনও ঠাণ্ডার জন্য। তাই অনেক সমেয়ই বাড়ির বড়রা বলে থাকেন, এই সময়ে মাথা ঢাকা দিয়ে রাখতে। গলা ঢাকা দিয়ে রাখতে, তাতে ঠাণ্ডা লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে এবং মাথা যন্ত্রণা বা এই ধরনের কিছু হয় না। কিন্তু আদৌ কি মাথা যন্ত্রণা কমে এই নিয়ম? জেনে নেওয়া যাক-

মাথা যন্ত্রণা এবং শীতকাল

বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গিয়েছে, শীতকালে মাথা যন্ত্রণা বা মাথা ব্যথা হওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়। তার কারণ হিসেবে গবেষকরা জানিয়েছেন, এই সময়ে সূর্য কম সময় পর্যন্ত থাকে এবং রোদও সে অর্থে থাকে না। ফলে অ্যাটমোস্ফেরিক প্রেসার (ব্যারোমেট্রিক)-এ পরিবর্তন আসে। যার ফলে হেমোডায়নামিল (Haemodynamic) বা শরীরের ভিতরে রক্তচাপে পরিবর্তন হয়। যা মাথা যন্ত্রণা ও শীতকালীন মাইগ্রেনের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। পাশাপাশি খুব ঠাণ্ডা পড়লে, ঠাণ্ডা হাওয়া নার্ভ ও ব্রেনে প্রভাব ফেলে। যার ফলে মাথা যন্ত্রণা হতে পারে।

সাইনাস (Sinuses) শরীরে একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, যা বায়ু চলাচলে সাহায্য করে। নাকের দুই পাশে ও চোখের তলার হাড়ে আর চোখের উপরের দুই অংশ জুড়ে এটি থাকে। সাইনাস হল ফাঁকা গহ্বর বা গর্ত। এটি ভিতর থেকে মিউকাস মেমব্রেন (Mucous Membrane) বা শ্লেষ্মা ঝিল্লি নামে একটি চামড়ার সঙ্গে যুক্ত থাকে। এই শ্লেষ্মা ঝিল্লি বিভিন্ন সময়ে ইনফেকশন হয়ে বা এতে অ্যালার্জি হয়ে সাইনাস ব্লকেজ তৈরি করে। এ বার ব্লকেজ তৈরি হলে যখন সাইনাসে বায়ু চলাচল করতে পারে না তখন এটি ভিতর থেকে চাপ দিতে শুরু করে এবং যার ফলে মাথা যন্ত্রণা, চোখে তলার অংশে যন্ত্রণা হয়ে থাকে। ঋতু পরিবর্তন বা শীত পড়ার সময়ে এই সমস্যা বেশি হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলে থাকেন, দিন ছোট-বড় হওয়ার জন্যও অনেক সময় মাথা যন্ত্রণা সম্পর্ক থাকতে পারে। শীতকালে দিন ছোট হয়, রাত যেহেতু বড় হয়, তাই ঘুমের যে প্রক্রিয়া থাকে, তাতে পরিবর্তন আসতে পারে, যার ফলে এই মাথা যন্ত্রণার সমস্যা বাড়তে পারে।

কী ভাবে শীতে মাথা যন্ত্রণার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে-

১. আগেই বলা হয়েছে, বাড়ির বড়রা বলে থাকেন, শীতকালে মাথা ঢেকে রাস্তায় বের হতে। তাঁরা সকলে হয়তো বৈজ্ঞানিক ব্যখ্যা জানেন না কিন্তু তাঁদের কথাটা ঠিক। এই সময়ে মাথা ও গলা উলের কিছু বা ঠাণ্ডা না ঢুকতে পারে, এমন কিছু দিয়ে ঢাকা রাখলে মাথা যন্ত্রণা কম হতে পারে।

২. গলার ও কাঁধের পেশিকে আরাম দিতে হবে, রিল্যাক্সে থাকতে দিতে হবে, যাতে রক্ত চলাচল শরীরে ঠিক থাকে। যদি কোনও কারণে এই সময় অতিরিক্ত চিন্তিত লাগে নিজেকে, তা হলে এই পেশিগুলির একটু ব্যায়াম বা মাসাজে উপশম মিলতে পারে।

৩. রোজ আট ঘণ্টা ঠিক ভাবে ঘুমোতে হবে। পাশাপাশি, ঘুমানো ও ঘুম থেকে ওঠার একটা নির্দিষ্ট পদ্ধতি মেনে চলতে হবে।

৪. হিটার বা অন্য কিছু দিয়ে ঘর গরম রাখলে ভালো।

৫. দিনে অন্তত দু'বার ভাপ বা স্টিম নিলে সাইনাস পরিষ্কার থাকবে, এতে সাইনাসের যন্ত্রণা হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকবে।

৬. যদি সম্ভব হয়, তা হলে ফেস মাসাজার টুল দিয়ে মুখের বিভিন্ন অংশ মাসাজ করলে ভালো লাগতে পারে। পাশাপাশি এটি সাইনাসও পরিষ্কার করে দিতে পারে। ফলে মাথা যন্ত্রণা হয় না।

৭. শীতে একটু গরম জলে স্নান করলে ভালো. এতে পেশি সচল থাকে। কিন্তু মাথায় রাখতে হবে, অতিরিক্ত গরম জলে শরীর খারাপ হতে পারে। ফলে জলের ঠাণ্ডাটা শুধু কাটিয়ে নিতে হবে এবং বেশিক্ষণ গরম জলে স্নান করা চলবে না।

৮. শীতকালে পিপাসা কম পায় অনেকেরই। ফলে জল খাওয়া কমে যায়। এতে শরীরে নানা সমস্যা হতে পারে। জলের অভাবে মাথা যন্ত্রণাও হতে পারে। ফলে মাথায় রাখতে হবে, জল খাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

৯. হলুদ মেশানো দুধ বা আদা দেওয়া চা, এই ধরনের জিনিস শীতে খেলে, শরীর গরম রাখে ভিতর থেকে। ফলে দ্রুত ঠাণ্ডা লাগার প্রবণতা কমে ও শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়াতে সাহায্য করে।

১০. যদি এই সব মেনে চলার পরও মাথা যন্ত্রণা আটকানো না যায়, তা হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। কারও মাইগ্রেন থাকলে, শীতের আগেই চিকিৎসকদের পরামর্শ নিলে ভাল।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: