Home /News /life-style /
Virat Kohli Fitness : হার মেনেছে বয়স, বিরাট কোহলির তারুণ্যের রহস্য লুকিয়ে যেখানে

Virat Kohli Fitness : হার মেনেছে বয়স, বিরাট কোহলির তারুণ্যের রহস্য লুকিয়ে যেখানে

বিরাটকে দেখে তাঁর আসল বয়স বোঝার উপায় নেই।

বিরাটকে দেখে তাঁর আসল বয়স বোঝার উপায় নেই।

Virat Kohli Fitness : ইতিমধ্যেই ফিটনেসের দিক থেকে মাঠে এবং মাঠের বাইরে যুবসমাজের জন্য নজির গড়েছেন বিরাট কোহলি।

  • Share this:

বাইশ গজে দুর্দান্ত পারফরমেন্সের মাধ্যমে ঝড় তোলেন বিরাট কোহলি (Virat Kohli)। খেলার অনুশীলনের পাশাপাশি নিজের স্বাস্থ্যের উপরও সব সময় নজর রাখেন ফিটনেস ফ্রিক এই ক্রিকেটার। যদিও ৩৩ বছর বয়সী বিরাটকে দেখে তাঁর আসল বয়স বোঝার উপায় নেই। হামেশাই ফিটনেস রুটিন, জিম, এক্সারসাইজের ভিডিও নিজের ইনস্টাগ্রাম (Instagram) হ্যান্ডলে পোস্ট করেন তিনি। ইতিমধ্যেই ফিটনেসের দিক থেকে মাঠে এবং মাঠের বাইরে যুবসমাজের জন্য নজির গড়েছেন বিরাট কোহলি।

নিয়মিত ওয়ার্কআউট :

অনুশীলনের মাধ্যমেই মানুষ নিখুঁত হয়ে ওঠে। আর এটাই বিশ্বাস করেন বিরাট নিজেও। ফলে নিয়মিত ওয়ার্ক-আউট রুটিন মেনে চলেন বাইশ গজের এই সেলেব। সপ্তাহের পাঁচ দিন তিনি সব নিয়ম মেনে কড়া অনুশীলন করেন। এক্সারসাইজের পাশাপাশি দৌড়নোর মাধ্যমেই নিজেকে ফিট রাখেন তিনি।

দৌড়নোই তাঁর প্রধান ভালবাসা :

বিরাট একবার জানিয়েছিলেন যে, দৌড়নোই তাঁর অত্যন্ত পছন্দের ওয়ার্কআউট। জিম-এক্সারসাইজের পাশাপাশি নিয়মিত দৌড়নোর মাধ্যমে নিজেকে ফিট রাখেন তিনি। দৌড়নো আসলে দারুণ একটা কার্ডিও এক্সারসাইজ। যা স্ট্যামিনা বাড়াতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন :  কম বয়সেই বুড়িয়ে যাচ্ছে ত্বক? এই সব উপায় মানলে তারুণ্যে ফিরে পাবেন নিমেষে!

বিভিন্ন ধরনের ওয়ার্কআউট :

বিরাট আসলে যে কোনও এক ধরনের ওয়ার্কআউট করেন না। তিনি নিয়মিত নানা ধরনের ওয়ার্কআউট করে থাকেন। আর বিরাটের ফিটনেসের ক্ষেত্রে এটা অন্যতম বড় ভূমিকা পালন করে। শুধু তা-ই নয়, নানা ধরনের ওয়ার্কআউটের মাধ্যমে দেহের বিভিন্ন জায়গার পেশি শক্তিশালী করেন তিনি।

ওয়ান আর্ম পুশ-আপ:

বিরাটের পোস্ট করা একটি ইনস্টাগ্রাম ভিডিও-তে তাঁকে ওয়ান আর্ম পুশ-আপ (One-arm push-ups) করতে দেখা গিয়েছে। এই ধরনের এক্সারসাইজ হাত এবং কাঁধের পেশি সুগঠিত ও মজবুত করতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন :  গরমে প্রাণ ভরে লস্যি পান করেন? দেখুন কী ভয়ঙ্কর বিপদের বীজ লুকিয়ে এই সুস্বাদু পানীয়ে

কমপাউন্ড এক্সারসাইজ:

এই ধরনের এক্সারসাইজের মাধ্যমে একটা নির্দিষ্ট সময়ে দেহের সমস্ত পেশিকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে এই কমপাউন্ড এক্সারসাইজ (Compound Exercise) ইনট্রামাস্কুলার কো-অর্ডিনেশনের উন্নতিসাধন ঘটায়। যেমন - গ্লুট, কোয়াড্রিসেপস এবং কাফ মাসলের উপর কোয়াটস। এই ধরনের এক্সারসাইজও অভ্যেস করেন বিরাট কোহলি।

বিশ্রাম প্রয়োজন:

শুধুমাত্র দেহই নয়, পেশিরও বিশ্রামের প্রয়োজন হয়। আসলে পেশিকে পর্যাপ্ত বিশ্রাম দিতে হবে, যাতে তা দ্রুত শক্তিশালী হয়। তাই সপ্তাহের পাঁচ দিন নিয়মিত ওয়ার্কআউট করার পরে বাকি দু’দিন ভালো করে বিশ্রাম নেন বিরাট।

আরও পড়ুন :  কুসুম বাদ, শুধু ডিমের সাদা অংশই ত্বক করবে উজ্জ্বল

ব্যালেন্সড ডায়েট:

ফিটনেসের জন্য ব্যালেন্সড ডায়েট খুবই জরুরি। আসলে দেহ যদি পর্যাপ্ত পুষ্টি উপাদান বা নিউট্রিয়েন্ট না-পায়, তাহলে ওয়ার্কআউট করেও সেরকম কোনও ফল মিলবে না। আর এটা মেনে চলেন বিরাট। তবে তিনি নিরামিষাশী হলেও তাঁর ডায়েট বা খাদ্যতালিকা একাধিক নিউট্রিয়েন্ট এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর। এই রুটিন কঠোর ভাবে মেনে চলেই নিজেকে সুস্থ এবং তরতাজা রাখেন এই খেলোয়াড়।

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Fitness, Virat Kohli

পরবর্তী খবর