অর্ধেক শরীর চেয়ারে, অর্ধেক মাটিতে ! ভিডিও কলের মাঝেই ক্লান্ত হয়ে ঘুম শিশুর ! ভাইরাল ছবি

photo source twitter

৪০ মিনিট ধরে জুমে চলছিল অনলাইন ক্লাস। পড়া বুঝতে বুঝতে ক্লান্ত হয়ে শিশুটি চেয়ারেই ঘুমিয়ে পড়েছে। নিজের বাচ্চার এই ছবি ট্যুইটারে শেয়ার করেছেন কারা ম্যাকডোয়েল।

  • Share this:

    করোনা ভাইরাসে প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। সারা বিশ্ব এখন করোনার আতঙ্কে ভুগছে। চিনের ইউহান শহর থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়েছে এই ভাইরাস। এখনও পর্যন্ত সঠিক কোনও চিকিৎসা বা ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়নি। তবে আশা করা যাচ্ছে খুব তাড়াতাড়ি করোনা ভ্যাকসিন বাজারে আসবে। তখন হয়তো পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেও হতে পারে। আপাতত এই ভাইরাসের জন্য বন্ধ স্কুল, কলেজ, শপিংমল, ট্রেন থেকে শুরু করে প্রায় সব কিছুই। টানা লকডাউন না চললেও জারি রয়েছে কড়া নিয়ম। বাড়ির বাইরে অযথা মানুষকে বেরোতে দেওয়া হচ্ছে না। কোনওরকম সোশ্যাল জমায়েত হচ্ছে না। সব কিছুই করা হচ্ছে এই ভাইরাসকে প্রতিরোধ করার জন্য।

    করোনা মানুষ থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়তে পারে মুহূর্তে। তাই সতর্কতা মানতেই হচ্ছে। এই সময়টায় অফিসের কাজ থেকে বাচ্চাদের পড়াশোনা সব কিছুই হচ্ছে অনলাইনের মাধ্যমে। ওয়ার্ক ফ্রম হোমেই কাজ চলছে বেশিরভাগ অফিসের। আর স্কুল কলেজ বন্ধ থাকায় শিশুদের ক্লাস নেওয়া হচ্ছে অনলাইনে। টানা স্কুলের মতোই একের পর এক ক্লাস চলছে জুম ভিডিও কলের মাধ্যমে। তবে স্কুলে গিয়ে ক্লাসে বসে পড়া বোঝা আর অনলাইনে পড়া বোঝার মধ্যে থাকছে বিস্তর ফারাক। শিশুদের এই গোটা বিষয়টা মানিয়ে নিতেই লাগছে অনেকটা সময়। তারা কেউই অনলাইন ক্লাসে অভ্যস্ত নয়। তবুও এভাবেই চলছে বাচ্চাদের পড়াশুনো। অনলাইনে ক্লাস করার সময় বাচ্চারা ঘটিয়ে ফেলছে নানা মজার কাণ্ড।

    কয়েকদিন আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল একটি পোস্ট। সেখানে দেখা যাচ্ছিল দিদা টিচারের নোট লিখছেন, আর বাচ্চাটি বেঞ্চের ওপর উল্টে পড়ে ঘুমোচ্ছে। এবার তেমনই এক পোস্ট ফের ভাইরাল হল সোশ্যাল মিডিয়ায়। ৪০ মিনিট ধরে জুমে চলছিল অনলাইন ক্লাস। পড়া বুঝতে বুঝতে ক্লান্ত হয়ে শিশুটি চেয়ারের ওপরের ঘুমিয়ে পড়েছে। নিজের বাচ্চার এই ছবি ট্যুইটারে শেয়ার করেছেন কারা ম্যাকডোয়েল। তিনি লিখেছেন, '৪০ মিনিটের ভিডিও কলের প্রভাব।' সত্যিই বিষয়টি ভাবার। একভাবে বসে একের পর ক্লাস করা বাচ্চাদের পক্ষে খুব ক্লান্তিকর। কোনওরকম অন্য অ্যাক্টিভিটি না থাকায়, তারা মানসিক ভাবেও বেশ দূর্বল হয়ে পড়ছে। কিন্তু আপাতত অন্য কোনও উপায়ও নেই। তবে এই বাচ্চাটির ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার হতেই ভাইরাল হয়।

    Published by:Piya Banerjee
    First published: