• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Good Skin Tips: বাইরে বেরনোর আগেই প্রতিবার সানস্ক্রিন! ত্বকে বিষাক্ত প্রভাব ফেলার প্রবল সম্ভাবনা

Good Skin Tips: বাইরে বেরনোর আগেই প্রতিবার সানস্ক্রিন! ত্বকে বিষাক্ত প্রভাব ফেলার প্রবল সম্ভাবনা

Good Skin Tips|Skin Care|Life Style: ত্বকের উপরে বিষাক্ত প্রভাব পড়বে! তাই এই কাজ মোটেও করবেন না

Good Skin Tips|Skin Care|Life Style: ত্বকের উপরে বিষাক্ত প্রভাব পড়বে! তাই এই কাজ মোটেও করবেন না

Good Skin Tips|Skin Care|Life Style: ত্বকের উপরে বিষাক্ত প্রভাব পড়বে! তাই এই কাজ মোটেও করবেন না

  • Share this:

#কলকাতা: রাস্তায় বেরোলে বা সৈকতে ঘুরতে গেলে সানস্ক্রিন মাস্ট, বাড়িতে থাকলেও ঘুম থেকে উঠেই সানস্ক্রিন লাগানোর পরামর্শ দিয়ে থাকেন অনেকে। সানস্ক্রিন ব্যবহার করলেই ট্যান কমবে এবং সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি থেকে বাঁচা যাবে, এমনই ধারণা থাকে। কিন্তু সম্প্রতি একটি গবেষণা বলছে, সানস্ক্রিন ত্বকের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে এবং তা ত্বকে প্রভাব ফেলতে পারে।

Oregon State University-র গবেষণা, Photochemical and Photobiological Sciences-এ প্রকাশিত সমীক্ষা বলছে, যে সব সানস্ক্রিনে জিঙ্ক অক্সাইডের মতো উপাদান থাকে, সে সব সানস্ক্রিন ত্বকের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে। বিশেষ করে ব্যবহার করার ২ ঘণ্টা পর থেকে। কারণ এক্ষেত্রে সানস্ক্রিনটির কার্যকারিতা নষ্ট হয়ে যায়। আর বেশিরভাগ সানস্ক্রিনেই জিঙ্ক অক্সাইড থাকে কারণ এটি সানস্ক্রিন প্রস্তুত করার অন্যতম উপাদান।

কী ভাবে সানস্ক্রিন বিষাক্ত হয় তা দেখার জন্য জেব্রাফিশের উপর গবেষণা করা হয়। এই জেব্রাফিশে যা যা থাকে, তার অনেক কিছুই মানুষের সঙ্গে মেলে। অনেক গবেষণার ক্ষেত্রেই জেব্রাফিশের ব্যবহার করা হয়ে থাকে কারণ এর জেনেটিক, মলিকিউলার ও সেলুলার লেভেল মানুষের সঙ্গে মিলে যায়। এই গবেষণায় যুক্ত ছিলেন অ্যাগ্রিকালচার সায়েন্সের ফ্যাকাল্টি রবিন তাংগুয়ে, লিসা ট্রাউঙ্গ ও গ্র্যাজুয়েট ফেলো ক্লডিয়া সান্টিলান। প্রত্যেকেই সানস্ক্রিন সম্পর্কে একটি প্রশ্ন উত্থাপন করেন যা এর গ্লোবান মার্কেটে প্রভাব ফেলতে পারে।

প্রশ্নটি ছিল- সানস্ক্রিনে ব্যবহৃত উপাদানগুলি কতটা সুরক্ষিত এবং কার্যকরী ত্বকের ক্ষেত্রে! এখানে এককভাবে এবং উপাদানগুলি একসঙ্গে কতটা কার্যকরী ও সুরক্ষিত তা দেখা হয়। পাশাপাশই গবেষণা ও সমীক্ষায় দেখা হয়, সূর্যরশ্মির প্রভাব আটকাতে এই কেমিক্যালগুলি কতটা কাজ করে এবং এতে কী কী পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে পারে।

সমীক্ষায় দেখা যায়, সানস্ক্রিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি জিনিস এবং এটি সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির হাত থেকে বাঁচায় ফলে ত্বকের ক্যানসার রোধে সাহায্য করে। কিন্তু কিছু সানস্ক্রিনে যে ধরনের উপাদান ব্যবহার হয় যা UV রশ্মির সংস্পর্শে এসে প্রতিক্রিয়া করে এবং তা বিষাক্ত উপাদানে পরিণত হয়।

গবেষক তাংগুয়ে বলছেন, সাধারণ মানুষ সানস্ক্রিন সম্পর্কে যা ভাবে তার প্রভাব পড়ে প্রস্তুতকারকদের উপর। অনেক সময় কম তথ্য থাকায় অনেক উপাদান ব্যবহারও করা হয় না বা ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া হয়। তাংগুয়ে উদাহরণ স্বরূপ বলেন, অক্সিবেনজনের ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া হয় কারণ এটি কোরাল রেফার্সে ক্ষতি করে।

তিনি আরও বলেন, যে সকল সানস্ক্রিনে জিঙ্ক অক্সাইডের মতো কেমিক্যাল উপাদান থাকে বা টাইটেনিয়াম ডিঅক্সাইড থাকে, যা UV রশ্মি আটকায় এবং এটির উপর ভিত্তি করে বাজারে বিজ্ঞাপনও দেওয়া হয়, তা আসলে ক্ষতি করে এবং উল্টে রশ্মি শোষন করে।

ওরিগন বিশ্ববিদ্যালয়ের জেমস হাচিনসন ও অরোরা জিন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান রিচার্ড ব্ল্যাকবার্ন পাঁচটি মিশ্রণ তৈরি করেন যাতে তাঁরা UV ফিল্টারের প্রয়োগ করেন, সানস্ক্রিনে ব্যবহৃত উপাদানের প্রয়োগ করেন এবং ইওরোপ ও ইউনাইটেড স্টেটসের সানস্ক্রিনে ব্যবহৃত উপাদানের প্রয়োগ করেন যাতে জিঙ্ক অক্সাইডও (কমার্সিয়ালি যতটা পরিমাণের কথা বলা হয় ততটা) ছিল।

এর পর এই মিশ্রণ UV রশ্মিতে ২ মিনিট রাখা হয় এবং পরীক্ষা করা হয়। তার পরই এর কার্যকারিতা সম্পর্কে জানা যায়। এটিকে জেব্রাফিশের উপর প্রয়োগ করা হয় এবং তাতেও একই প্রভাব দেখা যায়। বোঝা যায়, এটি বিষাক্ত প্রভাব ফেলতে পারে। যেখানে জিঙ্ক অক্সাইড ছিল না তার কোনও ক্ষতিকারক প্রভাব পরিলক্ষিত হয় না।

ট্রউঙ্গ বলেন, আমরা সমীক্ষায় দেখতে পাই, বাজারচলতি স্মল মলিকিউল বেসড ফর্মুলা, অন্য ভাবেও তৈরি করা যায়, যেভাবে আমরা চেষ্টা করেছি ফোটোডিগ্রেডেশন কম করে। কিন্তু গবেষকরা ফটো টক্সিসিটি এবং ফটো স্টেবিলিটির মধ্যে বিস্তর ফারাক দেখতে পান জিঙ্ক অক্সাইডের ব্যবহারে। গবেষকদের কথায়, এই গবেষণা এবং এর ফল অবশ্যই সানস্ক্রিন ব্যবহারকারীদের উপর প্রভাব ফেলবে, এই বিষয়টি নিয়ে সচেতন থাকতে হবে।

Published by:Arjun Neogi
First published: