লাইফস্টাইল

corona virus btn
corona virus btn
Loading

পালং শাক থেকেই এ বার তৈরি করা যাবে বিদ্যুৎ, দাবি নয়া গবেষণার!

পালং শাক থেকেই এ বার তৈরি করা যাবে বিদ্যুৎ, দাবি নয়া গবেষণার!
  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বুঝতে পারছি, খবরের শিরোনামটা দেখে একটু হলেও বিরক্ত হতে পারেন আপনি! ভাবতেই পারেন- পাঠক যাতে প্রতিবেদনটা ক্লিক করে দেখতে বাধ্য হন, তার জন্য সংবাদমাধ্যমের এ আরেক কারসাজি! কিন্তু এই দাবি তো আর আমরা করছি না, করছে মার্কিন মুলুকের ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির রসায়ন বিভাগ আর তার একদল গবেষক। রীতিমতো হাতে-কলমে পরীক্ষা করে তাঁরা না কি অবশেষে আবিষ্কার করেছেন এই চমকে দেওয়ার মতো বিষয়টি! যা কি না সম্প্রতি আবার ছাপার অক্ষরে প্রকাশিতও হয়েছে এসিএস ওমেগা জার্নালে।

তা, সব কিছু ছেড়ে হঠাৎ করে পালং শাক নিয়ে পড়লেন কেন রসায়নের এই গবেষকরা? পালং শাক তো আর সে ভাবে দেখলে তাঁদের বিষয় নয়, ওটা পড়ে জীববিদ্যার খাতে!

উত্তরটা লুকিয়ে আছে তিনটে বিষয়ের মধ্যে। যার প্রথমটা হল খনিজ পদার্থের সীমিত পরিমাণ। দ্বিতীয়টা হল মূল্যবৃদ্ধি। আর সবার শেষটাকে আপনি বিষয়ও বলতে পারেন, চাইলে বলতে পারেন মাধ্যম বা প্রক্রিয়াও; যাকে রসায়ন বিজ্ঞানের পরিভাষায় বলা হচ্ছে ফুয়েল সেল। কোনও রাসায়নিক বিক্রিয়ার দ্বারা প্রভাবিত হয়ে কোনও কোষ যখন বিদ্যুৎ উৎপাদন করেন. তখন সেই প্রক্রিয়াকে বলা হয় ফুয়েল সেল।

এ বার ছোট করে একটু এই রাসায়নিক বিক্রিয়ার ব্যাপারে কিছু না বললেই নয়। রাসায়নিক বিক্রিয়া যখন, তখন সে ক্ষেত্রে প্রক্রিয়াকে সরাসরি প্রভাবিত করার জন্য একটা অনুঘটক লাগবেই। এত দিন পর্যন্ত সেই অনুঘটক হিসেবে ব্যবহার করা হত প্ল্যাটিনাম। এই পদ্ধতিকে রসায়ন বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় অক্সিজেন রিডাকশন রি-অ্যাকশন। প্ল্যাটিনাম কার্বনযুক্ত অনুঘটক জোগান দেয় আর তার পরিণামে ইলেকট্রন স্থানান্তরিত হলেই তৈরি হয় বিদ্যুৎ।

এ বার সমস্যা হল- পৃথিবীর প্ল্যাটিনামের পরিমাণ তো আর অফুরন্ত নয়। অন্য দিকে, জিনিসটার দামও যথেষ্ট বেশি। ফলে অনেক দিন ধরে বিজ্ঞানীরা একটা বিকল্পের খোঁজ করছিলেন। মূলত নানা জৈব ধরে কাজ করতে করতে অবশেষে তাঁরা এই সিদ্ধান্তে এসেছেন যে পালং শাক প্রচুর পরিমাণে কার্বনযুক্ত অনুঘটক জোগান দিতে পারে এবং তা গুণমানের দিক থেকে প্ল্যাটিনাম-উৎপন্ন কার্বন অনুঘটকের সমান। খুবই আশ্চর্য ব্যাপার, তাই না?

First published: October 7, 2020, 11:00 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर