• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • পোষ্য নিয়ে ঘুরতে যাওয়ার পরিকল্পনা ? তার আগে যে বিষয়গুলো মাথায় না রাখলে নয়

পোষ্য নিয়ে ঘুরতে যাওয়ার পরিকল্পনা ? তার আগে যে বিষয়গুলো মাথায় না রাখলে নয়

পোষ্যকে সঙ্গে নিয়ে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার আগে বেশ কিছু জিনিস মাথায় রাখা প্রয়োজন

পোষ্যকে সঙ্গে নিয়ে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার আগে বেশ কিছু জিনিস মাথায় রাখা প্রয়োজন

পোষ্যকে সঙ্গে নিয়ে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার আগে বেশ কিছু জিনিস মাথায় রাখা প্রয়োজন

  • Share this:

যে কোনও পরিবারে পোষ্য থাকলেই সে পরিবারের সদস্য হয়ে ওঠে। ছেলে-মেয়ে বা ভাই-বোনের মতোই তাদের বড় করে তোলা হয়। অনেকেই পোষ্যকে একা রেখে বাড়ির বাইরে যান না। অনেকে আবার ঘুরতে গেলে তাকে সঙ্গে নিয়ে যান। কিন্তু সব জায়গায়, বিশেষ করে পাবলিক ট্রান্সপোর্টে তাদের সঙ্গে করে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না।

কিন্তু যাঁরা ব্যক্তিগত গাড়িতে ট্র্যাভেল করতে চান, তাঁরা পোষ্যকে খুব সহজেই নিজেদের সঙ্গে রাখতে পারেন। কিন্তু সব পোষ্যই যে হঠাৎ করে বাইরের জগতের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারবে, তা ভেবে নেওয়া ভুল। বা লং জার্নি থাকলে, তারা যে সেই ধকল সামলাতে পারবে, তাও ভেবে নেওয়া ঠিক নয়। তাই পোষ্যকে সঙ্গে নিয়ে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার আগে বেশ কিছু জিনিস মাথায় রাখা প্রয়োজন।

এখনও যেহেতু করোনা (Covid-19) পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি, তাই যে কোনও জায়গায় যাওয়ার আগেই সেখানকার করোনা-নির্দেশাবলী জেনে নেওয়া প্রয়োজন। মানুষের পাশাপাশি পোষ্যদের ক্ষেত্রেও কী কী নিয়ম থাকছে, সেটাও জেনে নেওয়া প্রয়োজন। তবে, এ ক্ষেত্রে বলা যেতে পারে, বর্তমানে এই দেশের বেশিরভাগ জায়গায় পোষ্যদের জন্য করোনার আলাদা করে কোনও নিয়ম রাখা হয়নি। তাই এখন চাইলে সঙ্গে রাখাই যেতে পারে তাদের। কিন্তু তাদের নিয়ে বেরোনোর আগে মাথায় রাখতে হবে এই বিষয়গুলি-

১. অনুশীলন করানো প্রয়োজন - পোষ্য সারাদিন বাড়িতে থাকে, তাকে সেভাবে বের করা হয় না। রাস্তায় গাড়ির আওয়াজ বা অন্য পশুদের ডাকে সে অভ্য়স্ত নয়> এমন হলে হঠাৎ করে যদি তাকে গাড়িতে নিয়ে বেরিয়ে পড়া হয়, তা হলে তার সমস্যা হতে পারে। বিশেষ করে লং ড্রাইভে গেলে কখনওই শুরুতেই ৬-৭ ঘণ্টা জার্নি করা উচিৎ হবে না। এ ক্ষেত্রে গাড়ির বদ্ধ পরিবেশের সঙ্গেও মানিয়ে নিতে তার সমস্যা হতে পারে। তাই লং জার্নি প্ল্যানিংয়ের আগে তাকে মাঝে মাঝে গাড়িতে করে ঘুরতে নিয়ে গেলে ভালো। তাতে লক্ষ্য করা যাবে, সে বিরক্ত বোধ করছে না স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছে। পাশাপাশি গাড়িতে সে থাকতে চাইছে কি না, তাও বোঝা যাবে।

২. পোষ্যর সুরক্ষার দিকে নজর দিতে হবে - পোষ্য তার পরিবারের কাছে শান্ত, কিন্তু সে যে কোনও মুহূর্তে অচেনা লোকের দিকে তেড়ে যেতে পারে। ফলে, রাস্তায় বের হলে তার গলায় চেন বেঁধে রাখা দরকার। পাশাপাশি, তার সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে তার উপরে নজর রাখতে হবে, যাতে সে জানালা দিয়ে মাথা গাড়ির বাইরে না বের করতে পারে। এমন হলে, দ্রুত গতিতে অন্য গাড়ি মেরে দিতে পারে।

৩. এমারজেন্সি কিটস - লং জার্নি করলে নিজের জন্য বমির ওষুধ, ডায়ারিয়ার ওষুধ বা জ্বরের ওষুধ তো সঙ্গে রাখতেই হবে। ওষুধ রাখতে হবে পোষ্যর জন্যও। তার পায়ে চোট লাগলে বা কোনও পোকা কামড়ে দিলে কী কী লাগালে উপশম মিলবে, সে বিষয়ে জেনে নিতে হবে। পাশাপাশি, সে যদি কোথাও চলে যায়, কাছছাড়া হয়ে যায়, তা হলে তাকে কী ভাবে চেনা যাবে, সেটাও নির্দিষ্ট করে নিতে হবে।

৪. ওষুধ ছাড়াও পোষ্যর সঙ্গে ঘুরতে গেলে এগুলিও সঙ্গে রাখা প্রয়োজন- ওয়াটারপ্রুফ সিট কভার (যদি পোষ্য অসুস্থ হয়ে পড়ে) লেদার সিট কভার থাকলে তার উপরের কভার, যাতে পোষ্য দাঁত দিয়ে কাটতে না পারে। পর্যাপ্ত জল ও খাবার পোষ্যর জন্য গায়ের চাদর, খেলনা। এ ছাড়া ঘুরতে যাওয়া প্ল্যানিং করার আগে সঙ্গে ওই এলাকার পশু চিকিৎসাকেন্দ্রের নম্বরও রাখা দরকার।

৫. পোষ্যকে রাখা ব্যবস্থা আছে কি না জেনে নিতে হবে - ডেস্টিনেশনে পোষ্যকে রাখার ব্যবস্থা আছে কি না, তা আগে থেকে জেনে নিতে হবে। হোটেল পেট ফ্রেন্ডলি কি না, তাও জিজ্ঞাসা করে নিলে ভালো!

Published by:Ananya Chakraborty
First published: