Toxic Love: সুমধুর প্রেম কি অজান্তেই বদলে গিয়েছে বিষাক্ত সম্পর্কে? বলে দেবে এই লক্ষণগুলি

সম্পর্কে থাকা মানুষগুলি বুঝতে পারে না যে তাদের মধ্যে ফাটল ধরছে

সকলেই চায় তাদের প্রেমের (LOVE RELATIONSHIP) সম্পর্কগুলো অত্যন্ত মধুর হোক। কিন্তু সম্পর্কগুলির শুরুতে মধুর হলেও যত দিন যায় অনেক সম্পর্কে তখন ফাটল ধরতে শুরু করে।

  • Share this:

সকলেই চায় তাদের প্রেমের (LOVE RELATIONSHIP) সম্পর্কগুলো অত্যন্ত মধুর হোক। কিন্তু সম্পর্কগুলির শুরুতে মধুর হলেও যত দিন যায় অনেক সম্পর্কে তখন ফাটল ধরতে শুরু করে। সম্পর্কে থাকা মানুষগুলি বুঝতে পারে না যে তাদের মধ্যে ফাটল ধরছে। তবে বেশ কয়েকটি লক্ষণ থাকে যেগুলি দেখলে বোঝা সম্ভব সম্পর্কগুলি আলগা হতে শুরু হচ্ছে। কী দেখে বুঝবেন?

প্রতিটি সম্পর্ক মজবুত হয় তখনই যখন একে অপরকে সাপোর্ট করে। কথাতেই আছে, কাটবে প্রহর তোমার সাথে, হাতের পরশ রইবে হাতে। কিন্তু হাতের উপর যদি অপর হাতটি না পাওয়া যায় তাহলে জীবনের বাকি দিনগুলি কাটানো খুবই কষ্টকর হয়। তাই যদি দেখা যায় কোনও সম্পর্কে একে অপরকে সাহায্য করছে না তাহলে বুঝতে হবে সম্পর্কটা হয় তো পরিণতি পায়নি।

প্রতিটি সম্পর্কে স্বাধীনতা ও পরিসর থাকা খুবই প্রয়োজন। প্রতিটি মানুষই চায় স্বাধীন ভাবে বাঁচতে। কিন্তু সেই সম্পর্কে একজন যদি অন্যজনের স্বাধীনতার উপর হস্তক্ষেপ তাহলে বুঝতে হবে সম্পর্কের বাঁধন বেশি দিন শক্ত থাকবে না। সম্পর্কের মধ্যে থাকা কেউ হয় তো কোনও কাজ করতে চায়। সেক্ষেত্রে অপরজন যদি তার উপর বিধিনিষেধ আরোপ করে তাহলে সত্যিই তা স্বাধীনতার উপর হস্তক্ষেপ। আর এটা হওয়া মানে সম্পর্ক সুখের নয়, কোথাও একটা বিষাক্ত জায়গায় পৌঁছেছে।

প্রতিটি সম্পর্কে যৌনতা একটি স্বাভাবিক অংশ। কিন্তু যৌন সম্পর্ক স্থাপনে কেউ যদি দিনের পর দিন গররাজি থাকে তাহলে বুঝতে হবে সম্পর্কে ফাটল ধরছে। কখনও কখনও কারও যৌন সম্পর্ক স্থাপনে ইচ্ছা না-ও হতে পারে কিন্তু দিনের পর দিন সদিচ্ছা না থাকলে তা সম্পর্কে সমস্যা তৈরি করে, যা তিক্ত জায়গায় নিয়ে যায় ব্যাপারটাকে।

সম্পর্কে থাকা দু'টি মানুষের মধ্যে দীর্ঘদিন যোগাযোগ না থাকলে সেই সম্পর্ক খুব একটা ভাল থাকবে তা বলা সম্ভব নয়। হয় তো দু'জন ডিস্ট্যান্স রিলেশনশিপে রয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে যোগাযোগ থাকাটা খুবই প্রয়োজন। দু'জনের মধ্যে যোগাযোগ যত ভাল হবে সম্পর্ক তত দৃঢ় হবে। তাই যোগাযোগ দেখেও বোঝা সম্ভব কোন সম্পর্ক কেমন রয়েছে!

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published: