Home /News /life-style /
স্যানিটারি ন্যাপকিন নিয়ে সন্তানের কৌতূহল, কী ভাবে বিষয়টি বোঝানো যায় বলছেন বিশেষজ্ঞ

স্যানিটারি ন্যাপকিন নিয়ে সন্তানের কৌতূহল, কী ভাবে বিষয়টি বোঝানো যায় বলছেন বিশেষজ্ঞ

স্যানিটারি ন্যাপকিন কী, এই নিয়ে অনেক মাকেই পড়তে হয় সন্তানের প্রশ্নের মুখে। তাতে তাঁরা অনেকে বেশ অস্বস্তিও বোধ করে থাকেন

  • Share this:

#কলকাতা: বাড়িতে একটা জিনিস আছে, সেটা দোকান থেকে কিনে আনা হচ্ছে- এই সব বিষয় আর যাই হোক না কেন, ছোটদের চোখ এড়িয়ে যায় না। আমরা ভাবি বটে ওরা নিজেদের জগৎ নিয়ে মেতে থাকে! কিন্তু তারই মাঝে চারপাশে কী ঘটে চলেছে, সেই সব বিষয়েও বেশ সজাগ নজর থাকে ছোটদের। ফলে, স্যানিটারি ন্যাপকিন কী, এই নিয়ে অনেক মাকেই পড়তে হয় সন্তানের প্রশ্নের মুখে। তাতে তাঁরা অনেকে বেশ অস্বস্তিও বোধ করে থাকেন। নামপ্রকাশ না করে তেমনই এক মায়ের কথা এই পর্বে তুলে ধরেছেন বিশেষজ্ঞা পল্লবী বার্নওয়াল।

পল্লবী জানিয়েছেন যে এই বিষয়ে ওই মহিলা তাঁকে চিঠি দিয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছেন যে তাঁর ছেলের বয়স ৭ বছর। সে একদিন আচমকাই প্রশ্ন করে বসে- স্যানিটারি ন্যাপকিন কী! এর পর একটু অস্বস্তিতে পড়ে যান ওই মহিলা। তিনি ছেলেকে বলেন যে মেয়েরা যখন প্রস্রাব ধরে রাখতে পারে না, তখন তারা এটা ব্যবহার করে থাকে। এর পর থেকে ছেলে স্যানিটারি ন্যাপকিনকে মায়েদের ডায়াপার বলে উল্লেখ করছে। ঘটনাটা মহিলার অস্বস্তি বাড়িয়েছে বই কমায়নি! তিনি জানতে চেয়েছেন- এই পরিস্থিতিতে ঠিক কী করণীয় তাঁর!

বিশেষজ্ঞার পরামর্শ- সত্যিটা কখনই গোপন করা ঠিক হবে না। তিনি বলছেন যে ৭ বছর বয়সের এক শিশুকে খুব বিশদে না গিয়েও মেনস্ট্রুয়াল সাইকলের ব্যাপারটা বোঝানো যায়। কী ভাবে, তা পল্লবীর পরামর্শ অনুসারে দেখে নেওয়া যাক! দেখে নেওয়া যাক, কী বলার পরামর্শ দিচ্ছেন তিনি!

"যখন মেয়েদের ১২-১৩ বছর বয়স হয়ে যায়, তখন ওদের শরীরে নানা রকমের পরিবর্তন ঘটে। এই সময় থেকে তাদের শরীর সন্তানধারণের উপযোগী হয়ে ওঠে। বাড়িতে কেউ এলে তাকে থাকতে দেওয়ার জন্য যেমন জায়গা করা হয়, এটাও তাই! তবে কখনও কখনও নানা কেমিক্যাল, যাদের হরমোন বলে, তার প্রভাবে মেয়েদের শরীর থেকে একটু রক্ত বেরিয়ে আসে। সে যে আঘাত পেয়েছে তা নয়, ওটা এমনিই বেরিয়ে আসে। তখন মেয়েরা তাদের পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য ব্যবহার করে স্যানিটারি ন্যাপকিন", এই কথাগুলো বলার পরামর্শ দিয়েছেন পল্লবী।

কেন না, তাঁর সাফ যুক্তি- এই বয়স থেকেই শিশুদের জীবনের স্বাভাবিকতার সঙ্গে পরিচয় করানো উচিৎ। তাতে বড় হয়ে মেনস্ট্রুয়াল সার্কল সম্পর্কে তার মনে কোনও নেতিবাচক ধারণা তৈরি হবে না, যা এই দেশের অনেক পুরুষেরই হয়ে থাকে। পাশাপাশি, স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারের মতো বিষয়টিকেও সে সহজ ভাবে নিতে শিখবে বলে জানিয়েছেন পল্লবী!

Pallavi Barnwal

Published by:Ananya Chakraborty
First published:

Tags: Sexual Tips, Sexual Wellness

পরবর্তী খবর