রেডিয়েশন নয়, ওষুধ দিয়ে কমানো যাবে ক্যানসারের টিউমারের বৃদ্ধি; দাবি গবেষকদের

রেডিয়েশন নয়, ওষুধ দিয়ে কমানো যাবে ক্যানসারের টিউমারের বৃদ্ধি; দাবি গবেষকদের
দুই ধরনের ক্যানসারে আক্রান্ত হলে মানুষের জীবন থেকে উপভোগ্যতার অংশ অনেকখানিই বাদ পড়ে যায়

দুই ধরনের ক্যানসারে আক্রান্ত হলে মানুষের জীবন থেকে উপভোগ্যতার অংশ অনেকখানিই বাদ পড়ে যায়

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: মাথা আর ঘাড়ের ক্যানসারকে অনেকেই যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করেন না, সংবাদমাধ্যমের সামনে আক্ষেপের সুর স্পষ্ট হয়ে উঠেছে ইউনিভার্সিটি অফ সিনসিনাতির গবেষক ক্রিশ্চিনা ওয়াইকারের কণ্ঠে। অথচ এই দুই ধরনের ক্যানসারে আক্রান্ত হলে মানুষের জীবন থেকে উপভোগ্যতার অংশ অনেকখানিই বাদ পড়ে যায়।

মাথা আর ঘাড়ের ক্যানসার সরাসরি প্রভাব ফেলে আমাদের কণ্ঠনালী, জিভ এবং নাকে। যার পরিণামে আমাদের ঢোঁক গিলতে অসুবিধা হয়, খেতে অসুবিধা, কথা বলতেও অসুবিধা হয়। ক্রিশ্চিনা জানাচ্ছেন যে বর্তমানে বিশ্বে মাথা আর ঘাড়ের ক্যানসারকে সব চেয়ে আতঙ্কজনক ক্যানসারের তালিকায় ছয় নম্বরে রাখা হয়েছে। প্রথম ধাপে ধরা পড়লে তা অনেক সময়ে যেমন ঠিক হয়ে যায়, তেমনই আবার ফিরেও আসে! আর ফিরে এলে চিকিৎসায় তেমন সাড়া পাওয়া যায় না!

এ হেন সমস্যার মোকাবিলায় এত দিন পর্যন্ত রেডিয়েশন বা কেমোথেরাপিই ছিল একমাত্র প্রচলিত সনাতন চিকিৎসাপদ্ধতি। কিন্তু ইউনিভার্সিটি অফ সিনসিনাতির এই গবেষক দাবি করেছেন যে তাঁরা সম্প্রতি এক ওষুধ আবিষ্কার করেছেন সমস্যার মোকাবিলায়। এই ওষুধ খেলে আর রেডিয়েশনের মাধ্যমে চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার দরকার পড়বে না। ক্রিশ্চিনার দাবি- এই ওষুধ তৈরি করা হয়েছে রেডিয়েশন পদ্ধতি প্রযোগ করে। ফলে শরীরে যাওয়ার পরে তা কোনও সুস্থ কোষের ক্যানসার কোষে রূপান্তর আটকে দেবে।


ক্রিশ্চিনা এটাও জানিয়েছেন যে তাঁদের এই ওষুধ এর মধ্যেই প্রথমে পশু, এবং পরের ধাপে মানুষের উপরে প্রয়োগ করা হয়েছে। তাঁরা এই গবেষণায় দেখেছেন যে এই ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রেডিয়েশনের তুলনায় খুবই কম! রেডিয়েশন স্বাস্থ্য যে ভাবে ভেঙে দেয় এই ওষুধের প্রয়োগে তা হবে না। কিন্তু এর ফলাফল কী বলছে?

সে ব্যাপারেও বিশ্বকে আশার আলেই দেখাচ্ছেন ক্রিশ্চিনা এবং তাঁর গবেষকদল। জানা গিয়েছে যে এ ওষুধের প্রয়োগ ৯০ শতাংশ পর্যন্ত মাথা আর ঘাড়ের ক্যানসার প্রতিহত করতে পারছে। অন্য দিকে, টিউমার কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে এই ওষুধের কার্যকারিতা ৪০ শতাংশ বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

ক্রিশ্চিনার আশা, তাঁদের আবিষ্কৃত এই ওষুধের বিশ্বদরবারে প্রয়োগ শীঘ্রই শুরু হবে!

Published by:Ananya Chakraborty
First published: