লাইফস্টাইল

corona virus btn
corona virus btn
Loading

কী ছিলেন আর কী হলেন? সন্তানের জন্ম দিয়েই ফিরে পান তন্বী ফিগার, রইল টিপস

কী ছিলেন আর কী হলেন? সন্তানের জন্ম দিয়েই ফিরে পান তন্বী ফিগার, রইল টিপস
Photo-File

সন্তান জন্মের পর বাড়তি ওজন নিয়ে চিন্তায়? পুরনো চেহারায় ফেরার জন্য মেনে চলা যেতে পারে এই টিপসগুলি!

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: প্রেগনেন্সির সময় ওজন বেড়ে যাওয়া, চেহারায় পরিবর্তন এটা খুবই স্বাভাবিক বিষয়। বেশিরভাগ মহিলারই শরীরে নানা পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এই সময়ে চেহারা অর্থাৎ বডি শেপেও পরিবর্তন আসে। যা সন্তান জন্ম দেওয়ার পরও অনেক সময় থেকে যায়। আর সহজেই এই বাড়তি ওজন কমে না বলে অনেকেই ডিপ্রেশনে চলে যান বা মানসিক অনেক সমস্যা তৈরি হয়। কিন্তু সন্তান জন্ম দেওয়ার পরের সময়টা পুরোটাই সন্তানকে নিয়ে, নতুন জীবন নিয়ে আনন্দ করার। ফলে চেহারা নিয়ে চিন্তা না করে কয়েকটি টিপস মানলেই আবার পুরনো চেহারায় ফিরে যাওয়া সম্ভব হতে পারে।

১. বেশ কয়েকটি খাবারকে সঙ্গী করে নিতে হবে

অতিরিক্ত ক্যালোরিযুক্ত খাবার ভুলে, হাই-ফাইবার, হাই-প্রোটিন ও হাই ক্যালসিয়াম খাবার অ্যাড করতে হবে ডায়েটে। এ ক্ষেত্রে আখরোট, আমন্ড, অ্যাভোকাডো, ফ্লেক্স শিড, দুধে ভেজানো শিয়া শিড, দই ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে। পাশাপাশি, ডায়েটে অ্যাড করা যেতে পারে সবুজ শাক-সবজি, বিশেষ করে পালং শাক, ব্রোকোলি, রাজমা, গুড়, তিল ও নারকেলের মতো খাবার। যদি কেউ নন-ভেজিটেরিয়ান হন, তা হলে সে ক্ষেত্রে স্যামন, টুনা বা ডিমের সাদা অংশও খাওয়া যেতে পারে। মাছ বেশি করে খেলে বেশি উপকার মিলতে পারে, কারণ মাছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে, সঙ্গে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টস, যা ওজন কমাতে সাহায্য করে।

২. জাঙ্ক ফুডকে বিদায় জানাতে হবে

ফল, দুধ বা বাড়ির সাধারণ খাবারে অভ্যস্ত হতে হবে, আর জাঙ্ক ফুডকে বিদায় জানাতে হবে। এমন হলে ওজন স্বাভাবিক ভাবেই কমতে পারে।

৩. ব্যায়াম

সন্তান জন্মের পর ধীরে ধীরে ব্য়ায়াম করা শুরু করতে হবে। এতে পেশিও যেমন ভালো থাকবে, তেমন শরীরও। বিশেষ করে, পেট ও মাসলের ব্যায়াম করতে হবে। চিকিৎসকরা বলে থাকেন, সন্তান জন্মের ৬ সপ্তাহ পর থেকেই ব্যায়াম শুরু করা যেতে পারে। যদি ব্যায়াম করা সম্ভব না হয়, তা হলে নিয়ম করে ৩০ মিনিট হাঁটাও যেতে পারে। এর পাশাপাশি যোগ অভ্য়াস, ধ্যান করলে শরীর মন দুই'ই ভালো থাকতে পারে, ওজনও কমতে পারে।

৪. স্তন্যপান

চিকিৎসকরা বলে থাকেন, স্তন্যপানের মাধ্যমেও ক্যালোরি কমানো যেতে পারে। বেশ কিছু সমীক্ষা বলছে, ৫০০ ক্যালোরি পর্যন্ত কমানো যেতে পারে স্তন্যপানের মাধ্যমে।

৫. শরীর হাইড্রেটেড রাখতে হবে

শরীর হাইড্রেটেড রাখা এই সময় খুব জরুরি। হাউড্রেটেড রাখতে কোল্ড ড্রিঙ্কস বা বিভিন্ন হেলথ ড্রিঙ্কসের পরিবর্তে বার বার নির্দিষ্ট পরিমাণে জল খাওয়া যেতে পারে। এতে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে।

৬. অল্প অল্প করে বার বার খাওয়া

একটা খাবারের সঙ্গে পরবর্তী খাবারের গ্য়াপ অতিরিক্ত বেশি হয়ে গেলে, অনেক সময়েই অতিরিক্ত খিদে পেয়ে যায়। যার ফলে নির্দিষ্ট পরিমাণ খাবারের তুলনায় বেশি খাওয়া হয়ে যায় ও তা ওজন বাড়িয়ে দেয়। তাই বার বার অল্প অল্প করে খাবার খাওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। আর অবশ্যই কোনও মিল স্কিপ না করা বাঞ্ছনীয়।

সন্তান জন্মের পর ওজন কমাতে বা সুস্থ থাকতে একাধিক টিপস অনেকেই দিয়ে থাকেন, কিন্তু সব টিপস মেনে চলতে গেলে গোলমাল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই শরীর বুঝে, ওজন কতটা বেড়েছ, তা দেখে নির্দিষ্ট টিপস মেনে চলা যেতে পারে!

Published by: Debalina Datta
First published: January 4, 2021, 5:17 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर