• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • RARE SHAPED CHIPS SNACK COMPANY PAYS RS 14 LAKH TO 13 YEAR OLD GIRL TC SANJ

Rare Shaped Chips : প্যাকেট খুলতেই চোখ কপালে! 'বিরল চিপস' খেয়ে ১৪.৮৫ লক্ষ ঘরে নিয়ে গেলেন কিশোরী...

চিপস প্যাকেটে চমক!

Rare Shaped Chips : ভিডিওটি বর্তমানে সংস্থার Twitter ও Facebook পেজে শেয়ার করা হয়েছে। তবে মূল ভিডিওটি সোশ্যাল মাধ্যমে বিশেষ সাড়া ফেলেছে।

  • Share this:

#অস্ট্রেলিয়া: খাদ্যরসিক মানুষেরা বরাবর নতুনত্ব ও বিভিন্ন স্বাদের খাবারের সন্ধানে থাকেন। তবে তার জন্য পুরস্কৃত হওয়ার খবর তেমন একটা সামনে আসে না। তবে অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দা রাইলি স্টুয়ার্ট (Rylee Stuart) চিপসের প্যাকেট থেকে একটি বিরল 'পাফড-আপ' চিপ খুঁজে পেয়েছেন। ১৩ বছরের কিশোরীর এই আবিষ্কারের কারণে ওই চিপসের প্রস্তুতকারী সংস্থা ডরিটোস (Doritos) তাঁকে ২০,০০০ ডলার (১৪.৮৫ লক্ষ টাকা) পুরস্কার হিসেবে দিয়েছে।

এর আগে জনপ্রিয় স্ন্যাক্স সংস্থা McDonald's-এর তৈরি চিকেন নাগেট একটি ভিডিও গেমের চরিত্রের মতো দেখতে বলে, তা অনলাইনে বিক্রি হয়েছিল ১,০০,০০০ ডলারে। বিশেষ আকৃতির চিকেন নাগেটটি eBay-তে মোট ১৮৪টি বিড পেয়েছিল।

ডরিটোসের 'পাফড-আপ' চিপ সাধারণত খুব কুরমুড়ে পাতলা পাপড়ের মতো হয়। বাজারজাত রেগুলার প্যাকেটে রাইলির খুঁজে পাওয়া বিরল আকৃতির চিপ পাওয়া যায় না। কিশোরী জানিয়েছে সে যখন ওই চিপটি খুঁজে পায়, তখন তিনি খেয়ে নেওয়ার কথাই ভেবেছিল, কিন্তু পরে ডরিটোসের নাম নিয়ে একটি ভিডিও বানিয়ে TikTok-এ শেয়ার করে। সেই ভিডিওই ডরিটোস কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। সেই ভিডিওটি বর্তমানে সংস্থার Twitter ও Facebook পেজে শেয়ার করা হয়েছে। তবে মূল ভিডিওটি সোশ্যাল মাধ্যমে বিশেষ সাড়া ফেলেছে।

PepsiCo-র মালিকানাধীন সংস্থা ডরিটোস, ১৩ বছরের কিশোরী রাইলি স্টুয়ার্টকে পুরস্কৃত করার সিদ্ধান্ত নেয়। ডরিটোসের চিফ মার্কেটিং অফিসার বন্দিতা পান্ডে (Vandita Pandey) জানিয়েছেন ডরিটোসের প্রতি রাইলির ভালোবাসার কথা বিচার করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

যাই হোক, দৈনন্দিন জীবনে খাদ্যরসিক মানুষেরা এমন অনেক খাবারই বিরল আকৃতির পেয়ে থাকেন। তবে অনেকেই শৈল্পিক দৃষ্টি দিয়ে বিচার না করে রসনার তৃপ্তি নিবারণকেই প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। এবার তাঁদের এই খবর একটু হলেও প্রভাবিত করতে পারে। হয় তো আরও বড় কোনও পুরস্কারের খবরও সামনের সারিতে উঠে আসতে পারে আগামী দিনে!

Published by:Sanjukta Sarkar
First published: