Buying a House: অতিমারীর পরে একটি বাড়ি কিনতে চান? এই বিষয়গুলি অবশ্যই মনে রাখুন

Image Source: IANS

অনেক হয় তো অতিমারী কেটে যাওয়ার পর নিজের বাড়ি কেনার কথা ভাবছেন। কিন্তু কিছু জিনিস মাথায় রাখতে হবে।

  • Share this:

কলকাতা: গোটা বিশ্বে করোনা সংক্রমণের প্রভাব মানুষের জীবনে এনেছে আমূল পরিবর্তন। দৈনিক জীবনযাপনে যা কখনও কল্পনাও করা হয়নি তা বর্তমান পরিস্থিতি করতে বাধ্য করেছে। বিশেষ করে শহরের মানুষদের বুঝতে শিখিয়েছে নিজের বাড়িতে থাকার প্রয়োজনীয়তা। কারণ করোনা সংক্রমণ রোধ করার প্রধান শর্ত হল নিজের বাড়িতে দূরত্ব বজায় রেখে বসবাস করা। এ-ক্ষেত্রে শহরের মানুষদের একটু অসুবিধায় পড়তে হয়েছ। কারণ, ভাড়ার ঘরে অল্প জায়গায় পরিবার নিয়ে থাকতে হয়েছে। এছাড়াও ছোট জায়গায় থাকার অভিজ্ঞতা কম-বেশি অনেকেরই আছে। তাঁদের বেশিরভাগ মানুষের একটাই স্বপ্ন একটা নিজের বাড়ি যা কিনা হবে ‘হোম সুইট হোম’। অনেক হয় তো অতিমারী কেটে যাওয়ার পর নিজের বাড়ি কেনার কথা ভাবছেন। কিন্তু কিছু জিনিস মাথায় রাখতে হবে। তার মধ্যে কিছু বলে দিয়েছেন গোয়েল গঙ্গা ডেভলপমেন্ট-এর (Goel Ganga Developments) এমডি অনুজ গোয়েল (Annuj Goel)।

যেহেতু অতিমারীর কারণে অনেকাংশে অফিস যাওয়া প্রয়োজনীয়তা কমেছে, এখন নিজের বাড়িতে বসেই কাজ করছেন অনেকে, তাই নিজের নতুন বাড়ির জন্য ওয়ার্ক প্লেস এখন জরুরি একটি বিষয়। তাই নতুন ঘরে দেখে নিতে হবে অতিরিক্ত ঘর বা স্টাডি রুম থাকছে কি না।

এবার খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে, যেটা হল করোনা পরিস্থিতিতে রিয়েল এস্টেট ব্যবসা তলানিতে। বিভিন্ন ব্যাঙ্কের হোম লোন নিতে কেউ আগ্রহী নয়। এক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ লোনের জন্য নানা ধরনের অফার বাজারে এনেছে। যেগুলো করোনাকাল মিটে গেলে থাকবে কি না সন্দেহ আছে।

অনেক রিয়েল এস্টেট ফেডারেশন, গ্রুপ এবং গিল্ডগুলি করোনাকালে নানা ধরনের সুবিধার কথা বলছে নতুন বাড়ির ক্রেতাদের। সেই সমস্ত ছাড়ের দিকে নজর রাখতে হবে, যাতে গৃহকর্তা হিসাবে সরকার এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের থেকে পাওয়া সমস্ত সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যায়।

আরও একটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে, গ্রাহকদের দেওয়া সময়ের মধ্যে নতুন ফ্ল্যাট বাড়ির চাবি দিতে পারবে না অনেক রিয়েল এস্টেট। লকডাউনের ফলে নতুন কাজ বন্ধ করতে হয়েছে রিয়েল এস্টেটকে। তাই তাঁদের এখন ঘর হ্যান্ডভারের তারিখ বদলাতে হয়েছে। অতএব, বাড়ির মালিকদের এই দিকটিও মাথায় রাখার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

নতুন বাড়ির জন্য উপযুক্ত জায়গা বাছতে মাথায় রাখতে হবে স্কুল, হাসপাতাল, গণপরিবহন সুবিধা, মেট্রো স্টেশন এবং জীবনের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োজনীয় জিনিস কাছাকাছি থাকছে কি না। স্কুল, মেডিক্যাল শপ, মুদির দোকান বাড়ির কাছে থাকার ব্যাপারে এখন অনেকেই জোর দিচ্ছেন। তাই করোনা কেটে গেলেও এই বিযয়গুলি সম্পর্কে অবগত থাকতে হবে।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: