লাইফস্টাইল

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

অফিসের কাজের চাপে মন ভাল নেই ? নতুন রিসার্চে বেরিয়ে এল দেশ-বিদেশের মনের কথা !

অফিসের কাজের চাপে মন ভাল নেই ? নতুন রিসার্চে বেরিয়ে এল দেশ-বিদেশের মনের কথা !

সত্যিই কী আমরা সুস্থ আছি সব অর্থে? সত্যিই কী আমাদের মন ভালো রয়েছে?

  • Share this:

#লন্ডন: সত্যিই কী আমরা সুস্থ আছি সব অর্থে? সত্যিই কী আমাদের মন ভালো রয়েছে? নাকি বাইরের খোলসটাকে সাজাতে সাজাতে মনের অন্দর অন্ধকার ! নাকি বাইরে হাসির  মধ্যে, ভিতরে উত্তাল হয়ে উঠছে মানসিক দ্বন্দ্ধ ! আমরা কী কখনও কেউ এভাবে ভেবে দেখেছি? বেড়ে চলা প্রতিযোগিতা, অফিস ও বাড়ি বলা ভালো প্রফেশনাল ও পারসোনাল দুটোকে আলাদা না করতে পেরে ডামাডোল ! এরকমই এক ভাবনা থেকে ওয়ার্ল্ড মেন্টাল হেলথ ডে-তে ক্যাকটাস কমিউনিকেশন সামনে নিয়ে এল এক অসাধারণ সমীক্ষা ৷  দেশ ও বিদেশে এই সমীক্ষা চালানোর পর সামনে এল অবাক করা তথ্য ৷ গোটা বিশ্ব জুড়ে প্রায় ১৩ হাজার মানুষের ওপর চালানো হয়েছিল এই সমীক্ষা ৷ অংশ নিয়েছিল, ব্রিটেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং এশিয়ার বিভিন্ন দেশ, যেমন চিন, জাপান, কোরিয়া ও ভারত ৷ আসুন দেখে নেওয়া যাক, সমীক্ষায় ঠিক কী উঠে আসল-

প্রশ্ন রাখা হয়েছিল, বেশিমাত্রায় কাজ করার পর, কতটা স্বস্তিুতে থাকেন তাঁরা? সমীক্ষায় পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, দেখা গিয়েছে,  এশিয়া মহাদেশে থাকা মানুষেরা প্রায় ৫০ ঘণ্টা ও তার থেকে বেশি সময় ধরে কাজ করে থাকেন প্রতি সপ্তাহে ৷ অন্যদিকে, অন্যান্য দেশে এর হার ২৪ শতাংশ ৷

প্রশ্ন ছিল, কাজের ক্ষেত্রে কোনও রকম মানসিক চাপে ভুগলে, কতজন সাহায্য চান? সমীক্ষায় উঠে আসে এক্ষেত্রেও এশিয়ার দেশগুলির তুলনায় পাশ্চত্যের অন্যান্য দেশের মানুষের মানসিক অবসাদকে বেশি গুরুত্ব দেয় ও খোলামেলা কথা বলেন ৷ প্রশ্ন ছিল, কত জন মানুষ মানসিক অবসাদের ব্যাপারে চিকিৎসকের কাছে যান ও খোলামেলা আলোচনা করেন?

এক্ষেত্রেও দেখা গিয়েছে, এশিয়ার মানুষেরা মানসিক অবসাদকে গুরুত্ব দেওয়ার ব্যাপারে পাশ্চাত্যের দেশগুলোর তুলনায় একটু পিছিয়ে রয়েছেন ৷ সমীক্ষায় দক্ষিণ কোরিয়ার মানুষেরা জানিয়েছেন, তাঁরা নিজেদের মানুসিক অবসাদ, নিজেরাই ঠিক করে নেন ৷ অন্যদিকে, পাশ্চত্যের মানুষেরা এই বিষয়কে গুরুত্ব দেন ও সঠিক সময়ে চিকিৎসকের সঙ্গে আলোচনা করেন ৷ গোটা সমীক্ষা থেকে বের হয়ে আসা তথ্য থেকে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, গোটা বিশ্বে এখনও বহু মানুষ রয়েছেন যাঁরা মানসিক অবসাদকে কম গুরুত্ব দিচ্ছেন ৷ এর ফলে গোটা বিশ্বে ভবিষ্যতে মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে এই মানসিক অবসাদ ৷ তাই বিশেষজ্ঞদের মত, কিছু ব্যবস্থা প্রথম থেকে নিলেই এই ধরনের বিষয়কে আয়ত্তে রাখা সম্ভব হবে৷ আর এ ব্যাপারে এগিয়ে আসতে হবে প্রতিষ্ঠানগুলোকেই . যেমন, ওয়ার্ক লাইফ ব্যালেন্স, লাইফ কোচ অ্যাসিন্টেন্স, সুস্থ কাজের পরিস্থিতি, ইত্যাদি ৷

Published by: Akash Misra
First published: October 15, 2020, 2:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर