শারীরিক অন্তরঙ্গতার পরেও কেউ যোগাযোগ রাখছে না? কী করণীয় বলছেন বিশেষজ্ঞ!

শারীরিক অন্তরঙ্গতার পরেও কেউ যোগাযোগ রাখছে না? কী করণীয় বলছেন বিশেষজ্ঞ!

একবার শারীরিক সম্পর্ক তৈরি হলেই যে বার বার একই ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে ইচ্ছা করবে, তার কোনও মানে আছে কি ?

একবার শারীরিক সম্পর্ক তৈরি হলেই যে বার বার একই ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে ইচ্ছা করবে, তার কোনও মানে আছে কি ?

  • Share this:

#কলকাতা: শরীরের সঙ্গে মনের একটা যোগ তো থাকেই! মন যদি না চায়, তা হলে কারও সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক তৈরি হবে না! কিন্তু একবার শারীরিক সম্পর্ক তৈরি হলেই যে বার বার একই ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে ইচ্ছা করবে, তার কোনও মানে আছে কি?

এই পর্বে এই অত্যন্ত সংবেদনশীল বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন বিশেষজ্ঞ পল্লবী বার্নওয়াল। নামপ্রকাশ না করে তিনি তুলে ধরেছেন এক তরুণীর কথা। ওই তরুণী চিঠি মারফত তাঁকে জানিয়েছেন যে একবার তিনি একটি ছেলের সঙ্গে এক পার্কে ডেটে গিয়েছিলেন। সেখানে তাঁরা পরস্পরকে চুমু খান, ছেলেটি তরুণীর শরীরের নানা অংশের নিবিড় স্পর্শসুখও অনুভব করেন। তরুণীটিরও এতে কোনও আপত্তি ছিল না, তিনিও উপভোগ করেছিলেন ব্যাপারটা, ছেলেটিকেও তাঁর পছন্দ হয়েছিল।

কিন্তু এর পরের পর্বটি ডেটিংয়ের মতো সুখকর নয়। আশ্লেষের রোমাঞ্চ নিয়ে বাড়ি ফিরে এসে ওই তরুণী পরে অনেক বার ছেলেটিকে টেক্সট করেছেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু উল্টো দিক থেকে কোনও সাড়া আসেনি! এরকম অবস্থায় কী করা যায়, তিনি সেটা জানতে চেয়েছেন পল্লবীর কাছে!

এক্ষেত্রে সবার প্রথমে একটাই কথা মাথায় রাখতে হবে- ডেটিংয়ের পরের ঘটনা নৈরাশ্যজনক, কিন্তু বাস্তবকে স্বীকার করে নেওয়া ছাড়া উপায় নেই, সাফ জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞ। হতেই পারে যে ছেলেটি তরুণীটিকে নিয়ে আদপেই সিরিয়াস ছিলেন না, সে কারণেই তিনি এখন আর কোনও যোগাযোগ রাখতে চাইছেন না। হতেই পারে যে তিনি শুধু একটা সন্ধ্যে যৌন রোমাঞ্চ উপভোগ করতে চেয়েছিলেন এই তরুণীর কাছ থেকে, তার বেশি আর কিছু চাননি।

কিন্তু এই তরুণীটির মনে এখন যে খারাপলাগাটা তৈরি হচ্ছে, সেই জায়গায় আমরা যে কেউ যে কোনও দিন এসে দাঁড়াতে পারি। হতেই পারে যে একবার শারীরিক অন্তরঙ্গতার পরে অপর পক্ষ থেকে আর সাড়া এল না। সে ক্ষেত্রে কী করণীয়?

১. যদি কেউ এরকম করেন, তাহলে তাঁর সঙ্গে আরেকবার দেখা করার চেষ্টা করা যেতে পারে। সামনাসামনি বসে জেনে নেওয়া যায় যে তিনি এই বিষয়ে কী ভাবছেন! তাহলেই অনেক কিছু স্পষ্ট হয়ে যাবে।

২. যদি দেখা করার উপায় না থাকে, তাহলে ব্যাপারটাকে আঁকড়ে বসে থাকলে চলবে না। নিজেদের মনের উপরে ছড়ি ঘোরানোর অধিকার কেনই বা আমরা অন্যের হাতে তুলে দেব- প্রশ্ন তুলেছেন পল্লবী!

৩. নিজের মনকে বুঝতে হবে। নিজেকেই ঠিক করতে হবে ডেটিং কেন জরুরি- সম্পর্কে যাওয়ার জন্য না নিছক শারীরিক সুখের জন্য! দ্বিতীয়টা হলে অসুবিধা নেই। কিন্তু যদি ভালোবাসার সম্পর্ক তৈরি করাই মুখ্য উদ্দেশ্য হয়, তা হলে ডেটে যাওয়ার আগে জেনে নিতে হবে- অন্য পক্ষ কী চাইছেন! সেই মতো পদক্ষেপ করা যেতে পারে!

৪. এক ব্যক্তিকে শারীরিক ভাবে ভালো লেগেছে আরেকজনকে লাগবে না, তার কোনও মানে নেই! তাই যিনি উপেক্ষা করছেন, তাঁর কথা ভুলে আরেকজনকে খোঁজাই ঠিক হবে!

Pallavi Barnwal 

Published by:Ananya Chakraborty
First published: